শাওন ইসলাম,

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট:

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) আইন-২০০৪ এর দুটি ধারার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিট আবেদনটি খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। এর ফলে সাবেক কাস্টমস কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা চলতে বাধা নেই বলে জানিয়েছেন দুদকের আইনজীবী।

সাবেক এই কাস্টম কর্মকর্তা দুদকের ২৬ (২) ও ২৭ (১) ধারা চ্যালেঞ্জ করে রিট দায়ের করেছিলেন যেটি আজ অখারিজ হয়ে গেলো। বিচারপতি জিনাত আরা ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রোববার এ রায় দেন।

আজ আদালতে দুদকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী খুরশিদ আলম খান। অপরদিকে রিটকারির পক্ষে ছিলেন ড. কাজী আখতার

হামিদ। এ মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, ২০১০ সালের ২৯ মার্চ দুদকের তৎকালীন উপ-পরিচালক মোহাম্মদ জয়নাল আবেদিন

শিবলী কাস্টমস কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেনের সম্পত্তির হিসাব চান। দেলোয়ার হোসেন সম্পদের হিসাব না দেওয়ায় ২০১১ সালের মে

মাসে দুদকের সহকারী পরিচালক মো. নাজিম উদ্দিন বাদী হয়ে পল্টন থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় দেলোয়ার হোসেন ছাড়াও তার স্ত্রী ও ছেলেকে আসামি করা হয়।পুলিশের এ মামলা করার পর দুদকের ওই দুই ধারার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে তিনি রিটটি দায়ের করেন হাইকোর্টে।

রিটে বলা হয়, দুদক আইনকে অপব্যবহার করেই ব্যক্তি আক্রোশে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। তাছাড়া তিনজন পৃথক করদাতা হলেও একই মামলায় সকলকে আসামি করা বে-আইনী।

এরপরেএ মামলার শুনানী করে অঅদালত এ বিষয়ে একটি রুল জারি করেন। রুলে দুদকের ওই দুই ধারা, সম্পত্তির হিসেব তলবের বিষয়ে দুদকের প্রজ্ঞাপন এবং মামলা কেন আইন বহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না তার কারণ জানতে চায়।

আইনজীবী খুরশিদ আলম খান আরো জানান, আদালত রিট আবেদনটি খারিজ করে দিয়েছেন। ফলে দেলোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে বিচারিক আদালতে মামলা চলতে বাধাঁ রইলো না।