অভিন্ন নামে দুটি বিশ্ববিদ্যালয়: প্রতিবাদ জানিয়ে বশেমুরবিপ্রবির ১২ সংগঠনের বিবৃতি

   
প্রকাশিত: ৮:৩৩ অপরাহ্ণ, ২৬ জুলাই ২০২০

আশরাফুল আলম, বশেমুরবিপ্রবি থেকে: অভিন্ন নামে একাধিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা না করার দাবি জানিয়ে যৌথ বিবৃতি প্রদান করেছে গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২ টি সংগঠন। সম্প্রতি মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের, বৃত্তি ও প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় শাখার যুগ্মসচিব সৈয়দ আলী রেজা স্বাক্ষরিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় পিরোজপুর আইন- ২০২০’ এর খসড়ার ওপর মতামত আহ্বানের একটি পত্র সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ালে এ বিবৃতি প্রদান করেছে তারা।

বিবৃতি প্রদানকারী সংগঠনগুলো হলো বশেমুরবিপ্রবি ডিবেটিং সোসাইটি, বশেমুরবিপ্রবি টুরিস্ট সোসাইটি, কালের কন্ঠ শুভসংঘ বশেমুরবিপ্রবি, কাম ফর রোড চাইল্ড (বশেমুরবিপ্রবি শাখা), ইন্সপিরেশন ফর হিউম্যান ওয়েলফেয়ার, বশেমুরবিপ্রবি সাংবাদিক সমিতি, মুক্তি, স্ফুলিঙ্গ আবৃত্তি সংসদ, বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী (বশেমুরবিপ্রবি শাখা), বশেমুরবিপ্রবি সাইন্স ক্লাব, বশেমুরবিপ্রবি ফিল্ম সোসাইটি এবং বশেমুরবিপ্রবি ছায়া জাতিসংঘ সংস্থা।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের জাতির জনক এবং সর্বকালের সর্বশেষ্ঠ বাঙালী। বলা অত্যুক্তি হবে না, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে এই স্বাধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্রেরই জন্ম হতো না। তাই তার নামে একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ের নামকরণ হওয়াটাও কাংক্ষিত বিষয় বটে। কিন্তু হুবহু অভিন্ন নামে দুটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হলে উভয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাই প্রতিষ্ঠান কেন্দ্রিক পরিচয় সংকটের সম্মুখীন হবে। বিভিন্ন সময় নিবন্ধনের ক্ষেত্রেও বাড়বে বিড়ম্বনা।’

বিবৃতিতে তারা আরও বলেন, দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম একই হলে একসময় বিশ্ববিদ্যালয় দুটি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে পরিচিত না হয়ে ‘গোপালগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়’ এবং ‘পিরোজপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়’ হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠতে পারে।

তাই আমরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের নামের মধ্যে পার্থক্য প্রত্যাশা করছি।

তাছাড়া প্রতিষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নামের সাথে পার্থক্য রেখেই নতুন বিশ্ববিদ্যালয়টি বঙ্গবন্ধুর নামে নামাঙ্কিত হবে বলে তাদের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।

উল্লেখ্য, জাতীয় সংসদে ২০০১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০০১ পাসের মাধ্যমে গোপালগঞ্জে যাত্রা শুরু করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।বর্তমানে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় ১২হাজার শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত রয়েছে।

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: