এ আর রাশেদ

ইবি প্রতিনিধি

অসুস্থ মাকে বাঁচাতে ইবি ছাত্রীর আকুতি

   
প্রকাশিত: ৯:৩১ অপরাহ্ণ, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০

শায়লা আক্তার মিতু। পড়ালেখা করছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) অর্থনীতি বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে। জন্ম রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার গোছা গ্রামের এক নিম্নবিত্ত পরিবারে। বাবা-মা ও বড় বোনকে নিয়ে চার সদস্যের পরিবার তার।

মুদির দোকানী বাবার সামান্য উপার্জনে দুই বোনের পড়ালেখার খরচসহ কোন মতে সংসার চলত তাদের। কিন্তু হঠাৎ দূর্ঘটনায় তার বাবার এক হাত ভেঙে যাওয়ায় অনেকটা কর্মক্ষম হয়ে পড়েছেন তিনি। এর মধ্যে আবার মা দূরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে পড়েছেন।

এক দিকে পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী অসুস্থ বাবার অক্ষম হয়ে পড়া, অন্যদিকে টাকার অভাবে অসুস্থ্য মাকে ঠিকমতো চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারছেন তার পরিবার। চিকিৎসার অভাবে দিন দিন শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্নের দিকে চলে যাচ্ছে মিতুর মায়ের।

হঠাৎ করে অসুস্থ্য হয়ে পড়ায় তার মাকে ভর্তি করানো হয় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক)। সেখানে বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষার পর চিকিৎসকরা জানান, তার মায়ের হার্টের প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ নষ্ট হয়ে গেছে। এ দেশে এর কোন চিকিৎসা নেই।

তাই উন্নত চিকিৎসার জন্য পাড়ি জমাতে হবে দেশের বাইরে। তার মায়ের চিকিৎসার জন্য এই মূর্হুতে প্রয়োজন প্রায় ১০ লক্ষ টাকা। যা তার পরিবারের পক্ষে সরবরাহ করা একেবারে অসম্ভব। এ অবস্থায় মেয়েটির পরিবার এখন অনেকটা দিশেহারা।

সার্বিকভাবে সংকটাপন্ন অবস্থায় মিতুর পরিবার। এতগুলো টাকা যোগাড় করে যে মায়ের চিকিৎসা করাবে, একথা ভাবতেও রিতিমত হিমশিম খেতে হচ্ছে তার পরিবারকে। উপায়ন্ত না থাকায় সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন সমাজের বিত্তবান মানুষদের কাছে।

এ বিষয়ে শায়লা আক্তার মিতু বলেন, ‘মায়ের শরীরের অবস্থার কোন উন্নতি হচ্ছে না। দিন দিন খারাপের দিকে যাচ্ছে। বাবার উপার্জনের কোন মাধ্যম নেই। এরমধ্যে আবার বড় বোনের বিয়ের সময় পার হয়ে যাচ্ছে। আমি চাই মা আরো কিছুদিন বেঁচে থাকুক। সকলের সহযোগিতা পেলে হয়তো মাকে সুস্থ করে তুলতে পারবো।’

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: