আন্তর্জাতিক দারিদ্র্য বিমোচন দিবস পালনে ব্র্যাকের আয়োজনে ওয়েবিনার

   
প্রকাশিত: ৯:২০ অপরাহ্ণ, ১৯ অক্টোবর ২০২০

বিশ্বব্যাপী ১৭ অক্টোবর ‘আন্তর্জাতিক দারিদ্র্য বিমোচন দিবস’ হিসেবে পালিত হয়। এ বছর এ দিবসটি পালনে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক ‘দারিদ্র্যের প্রতিবন্ধকতা জয়: কোভিড-১৯ প্রেক্ষাপটে দারিদ্র্য বিমোচনে নতুন অগ্রাধিকার’ শীর্ষক একটি ওয়েবিনারের আয়োজন করে।

ওয়েবিনারের মূল উদ্দেশ্য ছিল টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা-১ অর্জনে সরকারসহ অন্যান্য সহযোগী সংস্থার ভূমিকা; বিশেষত, কোভিড-১৯ সময়ে অর্থনৈতিক গতিশীলতা পুনরুদ্ধারের ক্ষেত্রে অতিদরিদ্রদের জন্য গৃহীত বিভিন্ন পরিকল্পনা সম্পর্কে সম্যক ধারণা অর্জন করা।

ওয়েবিনারে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফরেন কমনওয়েলথ অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট অফিস, বাংলাদেশের ডেভলপমেন্ট ডিরেক্টর মিস জুডিথ হারবার্টসন, ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর (বাংলাদেশ ও ভুটান) মার্সি মিয়াং টেমবন, ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের সাবেক ঊর্ধ্বতন উপদেষ্টা সৈয়দ এম. হাশেমী এবং ব্র্যাক ও ব্র্যাক ইন্টারন্যাশনালের মাইক্রোফাইন্যান্স অ্যান্ড আল্ট্রা-পুওর গ্রাজুয়েশনের ঊর্ধ্বতন পরিচালক শামেরান আবেদ।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও ব্র্যাকের চেয়ারপার্সন ড. হোসেন জিল্লুর রহমান। একইসাথে দারিদ্র্য বিমোচনে ব্র্যাকের অভিজ্ঞতা এবং মাঠপর্যায়ে করোনাকালীন সময়ে ব্র্যাকের বিশেষ কার্যক্রমও এই ওয়েবিনারে সংক্ষিপ্ত আকারে তুলে ধরা হয়।

মার্সি মিয়াং টেমবন তার বক্তব্যে বলেন, ‘বাংলাদেশের চমৎকার নীতিমালা রয়েছে, প্রয়োজন সঠিক বাস্তবায়নের। এক্ষেত্রে, সম্পদের সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে, অর্থনীতিতে আরো সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে এবং সামাজিক সুরক্ষা বেষ্টনীকে এমনভাবে কাজে লাগাতে হবে যেন দরিদ্র জনগোষ্ঠী এই বেষ্টনীর মাধ্যমে দুর্যোগে নিজেদের মধ্যে সহনশীলতা সৃষ্টি করতে পারে।’

অন্যদিকে, জুডিথ হারবার্টসন বাংলাদেশের জনগণের সহনশীলতার ভূয়ষী প্রশংসা করে বলেন, ‘বাংলাদেশে সামাজিক সুরক্ষা বেষ্টনী সঠিকভাবে প্রয়োগ করতে হলে টার্গেটিং -এর দিকে নজর দিতে হবে।’ তিনি কোভিড-১৯ প্রাক্কালে সরকারিভাবে বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ এবং দারিদ্র্য দুরীকরণে নতুন উদ্ভাবনের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, ‘সকলের জন্য সামাজিক ন্যায়বিচার এবং সহনশীলতার দিকে নজর দিতে হবে। যদিও, আমাদের খুব ভালো নীতিমালা আছে, কিন্তু কেবলমাত্র তা নিয়ে সন্তুষ্ট থাকলেই চলবে না, বরং আমাদের সীমাবদ্ধতার দিকেও নজর দিতে হবে।’

উল্লেখ্য, দেশের দারিদ্র্য বিমোচনে ১৯৭২ সাল থেকেই সরকারের পাশাপাশি ব্র্যাক বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে কাজ করে চলেছে এবং ২০০২ সাল থেকে অতিদরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য ‘আলট্রা-পুওর গ্র্যাজুয়েশন’ শীর্ষক বিশেষ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। কর্মসূচিটি এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের ২০ লাখের বেশি পরিবারকে অতিদারিদ্র্যের চক্র থেকে বেরিয়ে আসতে সহায়তা করেছে। বর্তমানে, ব্র্যাক উদ্ভাবিত এ মডেলটির আলোকে ৪০টির বেশি দেশে সরকার, ব্র্যাকসহ বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা এবং অন্যান্য স্টেকহোল্ডার প্রায় ১শ’টি গ্র্যাজুয়েশন প্রোগ্রাম বাস্তবায়ন করছে।

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: