প্রচ্ছদ / স্পোর্টস / বিস্তারিত

আমার ১২ বছরের ছেলের ক্রিকেট জ্ঞান রমিজের চেয়ে বেশি: হাফিজ

   
প্রকাশিত: ৩:২৪ অপরাহ্ণ, ২৩ নভেম্বর ২০২০

পাকিস্তানের অলরাউন্ডার মোহাম্মদ হাফিজ কিংবদন্তি রমিজ রাজার সঙ্গে কখনও বাদানুবাদে জড়াননি। হাফিজকে নানা সময়ে চাঁছাছোলা ভাষায় কটাক্ষ করেছেন রমিজ। জ্যেষ্ঠ ক্রিকেটারের সম্মানে হাফিজকে সহনশীলই দেখা গেছে এতদিন। তবে এবার আর নিজেকে ধরে রাখতে পারলেন না এই পাক অলরাউন্ডার। রমিজকে একহাত নিলেন তিনি।

পাকিস্তানের এই সাবেক অধিনায়ক বলেন, আমার ১২ বছর বয়সী ছেলেও রমিজ রাজার চেয়ে ভালো ক্রিকেট বোঝে। রমিজকে নিয়ে হাফিজের এমন আক্রমণাত্মক মন্তব্যের পেছনে অবশ্য কারণ আছে।

চলতি বছরের জুনের দিকে রমিজ তার ইউটিউব চ্যানেলে বলেছিলেন, মোহাম্মদ হাফিজ ও শোয়েব মালিকের অবসরে যাওয়া উচিত। পাকিস্তান ক্রিকেটের ভালোর জন্যই তাদের খেলা ছেড়ে দেয়া উচিত। বয়সের ভারে হাফিজের ফিল্ডিং আগের মতো নেই। তরুণদের জায়গা করে দিতে এ দুই ক্রিকেটারের অবসর নেয়া উচিত।

জবাবে সেই সময় হাফিজ বলেছিলেন, ‘রমিজ ভাই আমার বন্ধু, মতামত দেয়ার অধিকার তার আছে।’ রমিজের সমালোচনার জবাব মুখে না দিলেও হাফিজ তা মাঠের পারফরম্যান্স দিয়ে দিয়েছেন।

ইংল্যান্ড সফরে ও পাকিস্তান সুপার লিগে দুর্দান্ত পারফরম করেছেন হাফিজ। সেই পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে ৪০ বছর বয়সেও আসন্ন নিউজিল্যান্ড সফরে একাদশে স্থান করে নিয়েছেন।

সফরের আগে পাকিস্তানের একটি ক্রিকেট ওয়েবসাইটে এবার রমিজের সমালোচনার কড়া জবাব দিলেন হাফিজ। কোনো লুকোচুরি না করে রমিজ রাজার ওপর ক্ষোভ উগড়ে দিলেন হাফিজ।

তিনি বলেন, ‘ক্রিকেটার হিসেবে পাকিস্তানের জন্য রমিজ ভাইয়ের অবদান আমি স্বীকার করি। যদিও আমি রমিজ ভাইয়ের মতামতকে শ্রদ্ধা করি, তবে তার ক্রিকেট বোধ ও ম্যাচ সচেতনতা নিয়ে আমার প্রশ্ন আছে। আমার ১২ বছর বয়সী ছেলের সঙ্গে যদি কথা বলেন, তার বোধও রমিজ ভাইয়ের চেয়ে ভালো।’

এরপর হাফিজ আরও বলেন, ‘নিজের ইউটিউব চ্যানেলের প্রচারের জন্য রমিজ ভাই যদি এমন সব কথা বলতেই থাকেন, তাকে আমি থামাতে পারব না। আমি শুধু এটুকু বলতে পারি– যতদিন ফিট আছি ও পারফরম করছি, পাকিস্তানের হয়ে আমি খেলেই যাব। আর আমি যদি ফিটনেস কিংবা পারফরম্যান্সের মানদণ্ড পূরণ করতে না পারি অথবা দেখি যে পাকিস্তানের জন্য ভালো কেউ প্রস্তুত আছে, তা হলে আমি খুশি মনেই চলে যাব। আমার ক্রিকেট ক্যারিয়ার নিয়ে আমি সন্তুষ্ট।’

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: