‘আল্লাহ হাফেজ’ ও ‘খোদা হাফেজ’ নিয়ে ভাষাগত দ্বন্দ্বের খবর বিশ্ব গণমাধ্যমে

   
প্রকাশিত: ৫:১৬ অপরাহ্ণ, ২২ অক্টোবর ২০২০

ছবি: প্রতীকী

‘খোদা হাফেজ-এর জায়গায় আল্লাহ হাফেজ-এর প্রচলন কখন, কীভাবে হলো? আরবদের মাঝে বিদায়ী সম্ভাষণের ভাষা কী?’ এই শিরোনামে বিবিসি বাংলায় একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে, যা পাঠক-দের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো।

‘উপমহাদেশে ও তার বাইরেও মুসলিম রীতিতে সম্ভাষণ জানানো হয় ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলে বাংলাদেশের এক টিভি অনুষ্ঠানে ‘আল্লাহ হাফেজ’ নিয়ে একজন অধ্যাপকের মন্তব্য নিয়ে অনলাইনে তুমুল আলোচনা-বিতর্ক চলছে।

বাংলাদেশের একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেল এক আলোচনা অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক জিয়া রহমান বলেন, ‘আগে আমরা ‘স্লামালেকুম’ বলতাম … এখন যেভাবে স্ট্রেস দিয়ে ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলে এটা এই পুরো বিএনপি-জামাত মাসলার মধ্যে শেখানো হয়েছে। কিংবা ‘আল্লাহ হাফেজ’… যে ‘খোদা হাফেজ’ আমরা বলতাম খুব সহজে, এটা আল্লাহ হাফেজ… এগুলো দিয়ে কিন্তু একটা ডিসকোর্স তৈরি করা হয়েছে।’

অধ্যাপক জিয়া রহমানের এই মন্তব্য প্রচার হবার পরই শুরু হয় সামাজিক মাধ্যমে তীব্র সমালোচনা-বিতর্ক।

সামাজিক মাধ্যমে অনেকে বলছেন, স্পষ্ট করে আসসালামু আলাইকুম বলায় দোষের কিছুই নেই, শুদ্ধ উচ্চারণে ইংরেজি বলা দোষের না হলে শুদ্ধভাবে এই ঐতিহ্যগত সম্ভাষণ উচ্চারণ করা দোষের হবে কেন? তারা বলছেন, ‘আল্লাহ হাফেজ’ বলাটাও তাদের মতে ‘খোদা হাফেজ’ বলার চাইতে ধর্মীয় দিক থেকে অধিকতর সংগত।

অন্য অনেকের মত, বাঙালি মুসলিমদের সম্ভাষণ ও বিদায় জানানোর যে চিরাচরিত রীতি তা থেকে মানুষ বিচ্যুত হয়ে যাচ্ছে – এবং তার পেছনে আছে সৌদি-অনুপ্রাণিত ওয়াহাবি ভাবধারার ইসলামী মতাদর্শের উত্থান। এর সাথে কেউ কেউ উগ্রপন্থা বা জঙ্গিবাদের সম্পর্কও দেখছেন।

কিন্তু পরস্পরকে সম্ভাষণ ও বিদায় জানাবার এই মুসলিম রীতিগুলো আসলে কোন পটভূমিতে সৃষ্টি হয়েছে? পৃথিবীর অন্য মুসলিম দেশে কি ‘আল্লাহ হাফেজ’ বা ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলা হয়?

মুসলমানরা কীভাবে পরস্পরকে সম্ভাষণ করেন? সাধারণভাবে বলা যায়, বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানে মুসলমানদের মাতৃভাষা যাই হোক না কেন সাধারণত: তারা পরস্পরকে সম্ভাষণ করেন ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলে।

এটা ঠিক যে কথাটা আগে যেমন একটু সংক্ষেপ করে স্লামালেকুম বলা হতো, আজকাল অনেকে তা না করে পুরো কথাটা স্পষ্ট করে উচ্চারণ করেন।

আরব দেশগুলোতে সাধারণত সম্ভাষণ ও বিদায়ের সময় যথাক্রমে আসসালামু আলাইকুম ও মা’সালামা বলা হয়। তাছাড়া অনেককে ‘আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমতুল্লাহে ওয়া বারাকাতাহু’ বলতেও শোনা যায়, তবে এটাকে একটু ‘আনুষ্ঠানিক’ বলা যেতে পারে – সাধারণ কথোপকথনের সময় এটা কমই বলতে শোনা যায়। আর বিদায়ের সময় এ অঞ্চলে ‘খোদা হাফেজ’ বা ‘আল্লাহ হাফেজ’ বলা হয়।

মরক্কো থেকে ইরাক পর্যন্ত বিশ্বের যে বিস্তীর্ণ ভুখন্ডে আরবি ভাষাভাষীরা বাস করেন – তারা একে অপরের সাথে দেখা হলে ‘আসসালামু আলাইকুম’, এবং বিদায় নেবার সময় ‘মা’সালামা’ বলেন, তবে অঞ্চলভেদে কিছু স্থানীয় রীতিও আছে।

ফারসি-ভাষী ইরানে সাক্ষাতের সময় পরস্পরকে ‘সালাম’ এবং বিদায় নেবার সময় ‘খোদা হাফেজ’ বলা হয়।

আল্লাহ হাফেজ-এর উৎপত্তি কোথায়, কখন, কীভাবে?

বলা যেতে পারে, মুসলিমদের মধ্যে বিদায়ের সময় ‘আল্লাহ হাফেজ’ বলার রীতি শুধু ভারতীয় উপমহাদেশেই আছে। এখান থেকেই হয়তো তা এশিয়ার অন্যান্য অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে থাকতে পারে।

তাহলে প্রশ্ন, ‘আল্লাহ হাফেজের’ উৎপত্তি হলো কোথায়, কখন, কীভাবে?

বাংলাদেশে ১৯৮০র দশকে প্রথম ‘আল্লাহ হাফেজ’ কথাটি শোনা যেতে থাকে। এর আগে বাঙালি মুসলমানরা প্রায় সার্বজনীনভাবেই বিদায়ের সময় খোদা হাফেজ বলতেন।

‘আল্লাহ হাফেজ’ কথাটির উৎপত্তি নিয়ে অনেক লেখক-গবেষকই বিভিন্ন সময় লিখেছেন।

পাকিস্তান ও মধ্য এশিয়া বিষয়ে একজন বিশেষজ্ঞ ও সাংবাদিক সৈয়দ হামাদ আলি ২০১২ সালে ব্রিটিশ দৈনিক দি গার্ডিয়ানে এক নিবন্ধে লিখেছেন, পাকিস্তানে ১৯৯০এর দশকেও অধিকাংশ লোকই বিদায় নেবার সময় ‘খুদা হাফিজ’ বলতেন, কিন্তু এখন সবাই – ধর্মীয় নেতা থেকে শুরু করে ফ্যাশন মডেল বা টিভির উপস্থাপক পর্যন্ত – সবাই ‘আল্লাহ হাফিজ’ বলছেন।

তিনি মন্তব্য করেন, এ পরিবর্তন পাকিস্তানের উদারপন্থীদের অস্বস্তির কারণ হয়েছে, তাদের মতে এটা পাকিস্তানের সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে একটা পরিবর্তনের আভাস দিচ্ছে।সূত্র: বিবিসি।

সৈয়দ হামাদ আলি বলছেন, ‘আল্লাহ হাফিজ’ কথাটা প্রথম ব্যবহার শুরু হয় পাকিস্তানে ১৯৮০র দশকে প্রেসিডেন্ট জিয়াউল হকের শাসনকালে।

জিয়া-উল-হক ১৯৭৭ থেকে ১৯৮৮ পর্যন্ত পাকিস্তানের শাসক ছিলেন।

তার মতে, ১৯৮৫ সালে রাষ্ট্রীয় টিভি চ্যানেল পিটিভিতে একজন সুপরিচিত উপস্থাপক প্রথম ‘আল্লাহ হাফিজ’ কথাটা ব্যবহার করেন। তবে জনসাধারণের মধ্যে এর ব্যবহার ছড়িয়ে পড়ে আরো অনেক পরে।

মি. আলি লিখেছেন, এর পেছনে যুক্তি হিসেবে বলা হয়, ফারসি শব্দ ‘খোদা’র অর্থ ‘ঈশ্বর’ যা যেকোন ধর্মের ঈশ্বর বোঝাতে পারে, তাই আল্লাহ শব্দটি ব্যবহার করা উচিত যা শুধুমাত্র মুসলিমদের ধর্মগ্রন্থ কোরআনে উক্ত সৃষ্টিকর্তার নাম।

তবে তিনি আরো লেখেন, মধ্যপ্রাচ্যের এক কোটি আরবি-ভাষী খ্রিস্টানও ঈশ্বর বোঝাতে ‘আল্লাহ’ শব্দটিই ব্যবহার করেন এবং আরবরা কখনোই পরস্পরকে বিদায় জানানোর সময় ‘আল্লাহ হাফেজ’ বলেন না।

আরবরা সম্ভাষণের সময় কি বলেন?

এ নিয়ে কথা হয় বিবিসির আরবি বিভাগের সিনিয়র সাংবাদিক মোহাম্মদ আল-কাসিরের সাথে।

তিনি বলছিলেন, মরক্কো থেকে শুরু করে ইরাক পর্যন্ত এক বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে অনেকগুলো দেশের অভিন্ন ভাষা আরবি, কিন্তু প্রতিটি দেশেই আরবি ভাষা কিছুটা আঞ্চলিক রূপ নিয়েছে। সেটা উচ্চারণের টান এবং শব্দ-বাক্য ব্যবহারের ভিন্নতা থেকেও বোঝা যায়।

কিন্তু সাধারণভাবে সব আরবের মধ্যেই পরস্পরকে প্রথম সম্ভাষণের রীতি হলো ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলা এবং বিদায় জানাবার সময় ‘মা’সালামা’ বলা।

মোহাম্মদ আল-কাসির নিজে মিশরের লোক।

তিনি বলছিলেন, মিশরে এমনকি আরব খ্রিস্টানরাও পরস্পরের সাথে দেখা হলে ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলেন। সে হিসেবে হয়তো এটাকে কোন বিশেষ ধর্মীয় রীতি না বলে ‘আরব রীতি’ বলা যায়।

আরব বিশ্বের কোথাও কোথাও অন্যভাবেও স্থানীয় রীতিতে সম্ভাষণ বা বিদায় জানানো হয়।

বিদায় নেবার সময় ‘মা’সালামা’ বলা মোটামুটি সব আরব দেশেই প্রচলিত।

আরবরা কেউই বিদায় নেবার সময় ‘আল্লাহ হাফেজ’ ব্যবহার করেন না।

বিদায় নেবার সময় ‘মা’সালামা’ বলা ছাড়াও আরবি ভাষাতে ভিন্নভাবে বিদায় জানানোর রীতিও আছে।

মোহাম্মদ আল-আসির বলছিলেন, বিদায় নেবার সময় আরবরা কখনো কখনো “আল্লাহ ইয়া’আতিক আল’আসিয়া” – এটাও বলে থাকেন।

তবে তারা কেউই বিদায় নেবার সময় ‘আল্লাহ হাফেজ’ ব্যবহার করেন না। কিন্তু ‘আল্লাহ আপনার হেফাজত করুন’ এরকম বাক্য কথাবার্তার মধ্যে প্রাসঙ্গিক জায়গায় ব্যবহার করা হয়।

আরবদের মধ্যে সম্ভাষণ হিসেবে ‘আহ্লান’ বা ‘আহ্লান ওয়া সাহ্লান’ (অনেকটা ইংরেজি হ্যালো’র মত), বা সাবাহ্ আল-খায়ের (সুপ্রভাত), বা মাসা আল-খায়ের (শুভ সন্ধ্যা) – এগুলোও বলা হয়ে থাকে।

বিদায় নেবার সময় মা’সালামা ছাড়াও আরবে ইলা’লিকা-ও বলা হয় – যার অর্থ খানিকটা ‘আবার দেখা হবে’-র মতো।

ফারসি ভাষীরা কি বলেন?

এ নিয়ে কথা হয় বিবিসি ফারসি বিভাগের সিনিয়র সাংবাদিক আলি কাদিমির সাথে।

তিনি বলছিলেন, ইরানের সর্বত্রই দুজন ব্যক্তির দেখা হলে সম্ভাষণ হিসেবে একে অপরকে বলেন ‘সালাম’, আর বিদায় নেবার সময় বলেন ‘খোদা হাফেজ’।

তবে তিনি বলছিলেন, ইরানে খুব কমসংখ্যক কিছু লোক আছেন – যাদের তিনি বিদায় জানানোর সময় আল্লাহ শব্দটি ব্যবহার করতে শুনেছেন। তারা ফারসি ভাষায় ‘আল্লাহ আপনাকে সুস্থ ও শান্তিতে রাখুন’ এমন একটা বাক্য বলে বিদায় জানিয়ে থাকেন।

তেহরানের একটি বাজার: ইরানীরা বিদায়ের সময় বলেন খোদা হাফেজ

ইরানে এবং ফারসি ভাষায় ‘খোদা’ এমন একটি শব্দ – যা সৃষ্টিকর্তা বা ঈশ্বর বোঝাতে ব্যবহৃত হয় এবং তা যে কোন ধর্মের ঈশ্বরকে বোঝাতেই ব্যবহৃত হতে পারে।

মধ্য এশিয়ার যেসব দেশে ফারসি বা তার কাছাকাছি ভাষাগুলো বলা হয়, যেমন আফগানিস্তান, তাজিকিস্তান, আজারবাইজান ইত্যাদি দেশেও বিদায়ের সময় ‘খোদা হাফেজ’ বলার প্রচলন আছে।

ভারতীয় উপমহাদেশে মুসলিম শাসন কায়েম হবার পর থেকে ১৮৩০-এর দশক পর্যন্ত রাজদরবার ও আইন-আদালতের ভাষা ছিল প্রধানত ফারসি।

তাই ফারসি আদব-কায়দার প্রভাবেই হয়তো উপমহাদেশের মুসলিমদের মধ্যে বিদায়ী শুভেচ্ছা হিসেবে ‘খোদা হাফেজ’ বলার’ প্রথা চালু হয়।

১৯৮০র দশকে ‘আল্লাহ হাফেজ’ চালু?

প্রশ্ন হলো, ১৯৮০র দশকে পাকিস্তানে ‘আল্লাহ হাফেজ’ চালু হবার কথাই বা কতটা সঠিক?

পাকিস্তানের করাচি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এবং উর্দু ভাষাবিদ ড. রউফ পারেখের মতে, ১৮০ বছর আগেও উর্দু ভাষায় ‘আল্লাহ হাফিজ’ কথাটি ছিল।

মুসলিমদের মধ্যে ভিন্ন ভিন্ন দেশে আচার আচরণের বেশ কিচু পার্থক্য আছে।

সম্প্রতি ডন পত্রিকায় প্রকাশিত এক নিবন্ধে তিনি লেখেন, উর্দু ভাষার সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য অভিধান উর্দু লুঘাতে বলা হচ্ছে, বিদায়ী শুভেচ্ছা অর্থে ‘আল্লাহ হাফিজ’ কথাটি প্রথম ব্যবহারের নজির পাওয়া যায় ১৯০১ সালে।

ড. পারেখ বলছেন, তারও আগে ১৮৮০ এবং ১৮৪৫ সালের পুরোনো উর্দু অভিধানেও ‘আল্লাহ আপনাকে সুরক্ষা দিন’ অর্থে ‘আল্লাহ হাফিজ’ বাক্যবন্ধটির উল্লেখ আছে, এবং উর্দু কবি হাজিম ১৮৬৮ সালে তার কবিতায় ‘আল্লাহ হাফিজ’ ব্যবহার করেছেন।

ড. পারেখের সাথে আমার যোগাযোগ হয় ইমেইলে।

তিনি জানালেন, উনিশশ’ আশির দশকে ‘আল্লাহ হাফিজ’ কথাটা প্রথম ব্যবহার হয় এমন কথা ভুল, কারণ লোকের মুখে কথাটা ব্যবহৃত না হলে কবিরা এটা ব্যবহার করতেন না, অভিধানেও তা থাকতো না।

ড. পারেখের কথায় মনে হয়, ‘আল্লাহ হাফেজ’ কথাটার উৎপত্তি সম্ভবত পাকিস্তানেই – উর্দু ভাষার পরিমণ্ডলের মধ্যে।

তবে এর ব্যবহার ব্যাপকভাবে শুরু হয় সেদেশে প্রেসিডেন্ট জিয়া-উল-হকের সময় থেকে।’

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: