এ আর রাশেদ

ইবি প্রতিনিধি

ইবিতে র‌্যাগিংয়ের অভিযোগ, ক্ষমা চেয়েই পার!

   
প্রকাশিত: ১০:৪৪ অপরাহ্ণ, ৪ মার্চ ২০২০

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) সমাজকল্যাণ বিভাগের প্রথমবর্ষের এক ছাত্রীকে র‌্যাগিং দেওয়ার ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও ভূমি ব্যবস্থাপনা বিভাগের অভিযুক্ত সেই চার ছাত্রী পার পেয়ে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে। বুধবার (৪ মার্চ) দুপুরে সমাজকল্যাণ বিভাগ এবং আইন ও ভূমি ব্যবস্থাপনা বিভাগের উভয় সভাপতির হস্তক্ষেপে ক্ষমা চাওয়ার মধ্যদিয়ে অভিযুক্তরা মাফ পেয়ে যাচ্ছেন বলে বিভাগীয় সূত্রে জানা যায়।

জানা যায়, গত ২ মার্চ আইন ও ভুমি ব্যবস্থাপনা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী শারমিন সাথী, অনন্যা নারগিস, তাজমীন নাহার ও জান্নত-ই-কাওনাইন মাকনুনের দ্বারা র‌্যাগিংয়ের স্বীকার হন সমাজকল্যাণ বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী সুইটি (ছদ্মনাম)।

এ ঘটনায় ভূক্তভূগী ওই ছাত্রী শারিরীক ও মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন। এরপর মঙ্গলবার (৩ মার্চ) ওই ছাত্রী বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. শাহিনুর রহমান বরাবার একটি লিখিত অভিযোগ করেন। এরপর অভিযোগটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

র‌্যাগিংয়ের এই বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর বুধবার (৪ মার্চ) উভয় বিভাগের সভাপতি বিষয়টি সমাধানের জন্য বিভাগের শিক্ষক, ভূক্তভূগী ও অভিযুক্তদের সঙ্গে নিয়ে বসেন। এরপর ক্ষমা চাওয়ার মধ্যদিয়ে বিষয়টি সমাধান করা হয়।

এদিকে প্রক্টর অধ্যাপক ড. পরেশ চন্দ্র বর্মনকে র‌্যাগিংয়ের এই ঘটনায় প্রতিবেদন দাখিলের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার কথা থাকলেও তার আগেই বিষয়টি সমাধান করে ফেলা হয়েছে। এতে করে অভিযুক্তরা সবাই পার পেয়ে গেছেন বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. পরেশ চন্দ্র বর্মন বলেন, ‘আমি যতদূর জানি বিভাগের সভাপতিরা বসে বিষয়টি সমাধান করে ফেলেছেন। এ বিষয়ে এখনো প্রতিবেদন শেষ হয়নি। আগামী শনিবার (৭ মার্চ) প্রতিবেদন জমা দিবো।’

এ বিষয়ে আইন ও ভূমি ব্যবস্থাপনা বিভাগের সভাপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. সেলিম তোহা বলেন, ‘বিষয়টি প্রক্টর আগেই শুনেছিল। তারপর আমরা উভপক্ষ শুনলাম। আসলে যেটুকু শুনলাম, তাতে শাস্তিযোগ্য বিষয় বলে আমার কাছে মনে হয় নি। সবাই এ বিষয়ে একমক হয়েছি।’

এ বিষয়ে সমাজকল্যাণ বিভাগের সভাপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহিনুর রহমান বলেন, ‘মেয়েটির অভিযোগের ভিত্তিতে আমার সবাই বসেছিলাম। যে ঘটনাটি ঘটেছে, সেটি র‌্যাগিংয়ের পর্যায় পড়ে না। অভিযুক্তরা নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছে এবং ওই মেয়েও ক্ষমা করে দিয়েছে। এভাবে বিষয়টা সমাধান করা হয়েছে।’

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: