প্রচ্ছদ / স্পোর্টস / বিস্তারিত

রেদওয়ান শাওন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

একই রাতে পৃথক ম্যাচে রিয়াল-বার্সার পরাজয়

   
প্রকাশিত: ৯:০৫ পূর্বাহ্ণ, ১৮ অক্টোবর ২০২০

কোনো কোনো সময় স্প্যানিশ পরাশক্তি এবং চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই ক্লাব রিয়াল বার্সা যেন এক সুতোয় গাঁথা। লা লিগায় একই দিনে দুই বড় দলের হার দেখেছে বিশ্ব। শনিবার (১৭ অক্টোবর) রাতে গেতাফের বিপক্ষে ১-০ গোলে হেরেছে বার্সেলোনা। এর আগে, কাদিসের বিপক্ষে ১-০ গোলে হেরে যায় রিয়াল মাদ্রিদ।

ঘরের মাঠ আলফ্রেড ডি স্টেফানো স্টেডিয়ামেই তাদের ১-০ গোলের ব্যবধানে হারিয়েছে লা লিগায় নবাগত কাদিজ। ২৯ বছর পর কাদিজের বিপক্ষে হারের মুখ দেখলো। জাতীয় দলের হয়ে খেলার পর এদিন জিনেদিন জিদান বিশ্রাম দিয়েছিলেন ক্যাসিমিরো, ফেদে ভালভার্দে এবং ফারল্যান্ড মেন্ডিকে।

আর জিদানের এমন সিদ্ধান্তের মাশুলও দিতে হলো তিন পয়েন্ট খোয়ানোর মধ্য দিয়ে। ম্যাচের শুরু থেকেই স্বাগতিক রিয়ালের ওপর চড়াও কাদিজ। এ যেন রিয়ালের নয় কাদিজ খেলছিল নিজেদের মাঠেই। আর তাই তো ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটেই প্রায় গোল হজম করে বসেছিল লস ব্ল্যাঙ্কোসরা। টনি ক্রুস নিজেদের ডি বক্সের ভেতর থেকে বল ক্লিয়ার করতে ব্যর্থ হলে বল পেয়ে যান কাদিজ স্ট্রাইকার আলভারো নেগরেডো। দুর্দান্ত শটে কোর্তোয়াকে পরাস্থ করলেও গোললাইন থেকে বল ক্লিয়ার করেন সার্জিও রামোস।

একের পর এক আক্রমণে তখন বিপর্যস্ত রিয়ালের রক্ষণ, ক্রুস, ইস্কো আর মদ্রিচকে নিয়ে গড়া মধ্যমাঠ পাত্তায় পাচ্ছিল না কাদিজের কাছে। যার মাশুল ম্যাচের ১৬ মিনিটে দেয় লস ব্ল্যাঙ্কোসরা। কাদিজ মিডফিল্ডার জোসে মারি স্ট্রাইকার নেগরেডোকে উদ্দেশ করে দারুণ এক ক্রস করেন, আর নেগরেডো হেড দিয়ে তার সামনে থাকা আরেক স্ট্রাইকার অ্যান্থনি লোজানোর উদ্দেশে বাড়ান। লোজানো সার্জিও রামোসের মার্কিং ফাঁকি দিয়ে রিয়ালের ডি বক্সে ঢুকে বল পাঠিয়ে দেন জালে। ম্যাচের ১৬ মিনিটেই চ্যাম্পিয়নদের বিপক্ষে তাদের মাঠেই ১-০ গোলে এগিয়ে নবাগত কাদিজ।

এরপর ম্যাচের আধাঘণ্টা ছুঁতেই আরও এক গোলের সুযোগ কাদিজের, তবে রিয়ালের জন্য এদিন লৌহ মানব হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন রামোস। আবারও রিয়ালকে বাঁচালেন আর ধরে রাখলেন ম্যাচে। ম্যাচের ৩৮তম মিনিটে এসে গোলের প্রথম সুযোগ তৈরি করে চ্যাম্পিয়নরা। টনি ক্রুসের নেওয়ার কর্নার থেকে রাফায়েল ভারান হেড দেন, তবে তা লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে রক্ষা পায় কাদিজ। আর এভাবেই শেষ হয় প্রথমার্ধ।

এরপর ম্যাচের ৮০ মিনিটে মার্সেলোর ক্রস থেকে কাদিজের ডি বক্সের ডান প্রান্তে বল পেয়ে যান বেনজেমা আর বল নিয়ন্ত্রণে এনে পাস দেন গোলমুখে থাকা লুকা জোভিচকে। তরুণ এই স্ট্রাইকার বল জালে জড়ান, তবে বেরসিক লাইন্সম্যান জানান দেন বেনজেমা আগে থেকেই ছিলেন অফসাইডে। গোল বাতিল, ম্যাচের ১০ মিনিট থাকতেও রিয়াল পিছিয়ে ১-০’তে। শেষ দিকে আরও কিছু সুযোগ পেলেও তা কাজে লাগাতে না পারলে কাদিজের বিপক্ষে নিজেদের মাঠেই ১-০ গোলের ব্যবধানে পরাজয় বরণ করতে হয় রিয়াল মাদ্রিদকে।

অপরদিকে, আগের ম্যাচে সেভিয়ার বিপক্ষে ড্র করা দলে বেশ কিছু পরিবর্তন আনেন বার্সা কোচ। ৪-২-৩-১ থেকে সরে দলকে খেলান ৪-৩-৩ ফর্মেশনে। আক্রমণ-প্রতি আক্রমণে শুরু থেকে জমে ওঠে ম্যাচ। প্রথম ভালো সুযোগটা পায় গেতাফে। অষ্টাদশ মিনিটে গোলরক্ষক বরাবর শট নিয়ে দলকে হতাশ করেন নেমানিয়া মাক্সিমোভিচ। দুই মিনিট পর এগিয়ে যেতে পারতো বার্সেলোনা। প্রথমবারের মতো শুরুর একাদশে খেলা সের্জিনো দেস্তের কাছ থেকে বল পেয়ে লিওনেল মেসির বুলেট গতির শট ফেরে পোস্টে লেগে।

২৯তম মিনিটে আবার সুযোগ আসে সফরকারীদের সামনে। মেসির ফ্রি-কিকে ঠিক মতো হেড করতে পারেননি লংলে। পুরোপুরি ফাঁকায় ছিলেন নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফেরা এই ফরাসি ডিফেন্ডার। পরের মিনিট সুবর্ণ সুযোগ হাতছাড়া করেন গ্রিজমান। প্রতি-আক্রমণে পেদ্রির কাছ থেকে বল পেয়ে অবিশ্বাস্যভাবে অনেক উপর দিয়ে শট নেন এই ফরাসি ফরোয়ার্ড। ৫৬তম মিনিটে হাইমে মাতার সফল স্পট কিকে এগিয়ে যায় গেতাফে। ডিজেনে ডাকোনামকে ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং ফাউল করায় পেনাল্টি পায় স্বাগতিকরা। বাকি সময় গোলের জন্য মরিয়া ওঠে বার্সা, কিন্তু ভালো কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি তারা। হার নিয়েই ছাড়তে হয়েছে মাঠ।

এই পরাজয়ের পরেও এখন পর্যন্ত লিগ টেবিলের শীর্ষেই থাকছে রিয়াল। গেতাফে, কাদিস ও গ্রানাদার পয়েন্ট ১০ করে। ৯ পয়েন্ট রিয়াল বেতিসের। ৮ পয়েন্ট করে আতলেতিকো, রিয়াল সোসিয়েদাদ ও ভিয়ারিয়ালের। ৪ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে ৯ নম্বরে রয়েছে বার্সেলোনা।

আরএএস/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: