প্রচ্ছদ / সারাবিশ্ব / বিস্তারিত

করোনাভাইরাসে ভয়াবহ যন্ত্রণাদায়ক মৃত্যু হয়!

   
প্রকাশিত: ৮:৪০ পূর্বাহ্ণ, ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর গায়ে তীব্র ঝাঁকুনির সৃষ্টি হয়। ভাল্লুকের গায়ে জ্বর আসলে যেভাবে কাঁপতে থাককে ঠিক তেমনি কাঁপতে থাকে করোনাভাইরাসের আক্রান্ত মৃত্যুপথযাত্রী। করোনায় যারা আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছেন তাদের খুবই যন্ত্রণাদায়ক মৃত্যু হচ্ছে। মৃত্যুর আগে তাদের দেহের প্রতিটি অঙ্গপ্রত্যঙ্গই নাকি তীব্রভাবে অনবরত কাঁপতে থাকে। যা খুবই যন্ত্রণাদায়ক। ওয়ার্ল্ড টুডে নামের একটি সংবাদ মাধ্যমের ফেসবুক পেজে শেয়ার করা একটি ভিডিওতে এমনটাই দেখা গেছে। ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) চীনে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রাণহানি বেড়েই চলেছে। করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ১২১ জনের। যার অধিকাংশই ঘটেছে করোনাভাইরাসের ভরকেন্দ্র হুবেই প্রদেশে। নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন আরো প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ।

এর আগে বৃহস্পতিবার চীনে করোনাভাইরাসের প্রভাবে মৃত্যু হয়েছিল ২৪২ জনের। শুক্রবার সংখ্যাটা একটু কমলেও তা এক শ’র নিচে নামেনি। শুক্রবার গোটা দেশে মৃত্যু হয়েছে ১২১ জনের। যার জেরে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়াল ১৫০০। এখনো পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৬৫ হাজারে পৌঁছে গেছে।

কিভাবে এই ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করা হবে, কিভাবে চীনে মৃত্যু মিছিল বন্ধ করা সম্ভব হবে, তা নিয়ে এখনও দিশেহারা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। চীনের স্বাস্থ্য দপ্তরও খেই হারিয়ে ফেলছে। সরকার উচ্চপদস্থ স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের পদ থেকে সরিয়ে দিয়েছে। নতুন যারা এসেছেন, তারাও বিশেষ কিছু করে ওঠতে পারছেন না।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শক করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা নিয়ে যে ধরনের কথা বলেছেন, তা খুবই উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তিনি বলেছেন, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কা রয়েছে বিশ্বের দুই-তৃতীয়াংশ মানুষের।

ওদিকে, দুর্বল স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনার দেশগুলোতে গোপনে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ছড়িয়ে থাকতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন গবেষকরা। এখন পর্যন্ত চীনের বাইরে ২৫টি দেশে করোনা ভাইরাস শনাক্তের খবর পাওয়া গেলেও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও আফ্রিকার দেশগুলোও আক্রান্ত হয়ে থাকতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিজ্ঞানীরা। একইসঙ্গে, অনুন্নত দেশগুলো করোনা আক্রান্ত হলে মারাত্মক হুমকিতে পড়বে বলেও সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

চীনের বাইরে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ডসহ বিশ্বের ২৫টির বেশি দেশে এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তবে গবেষকদের আশঙ্কা, ২৫টি নয় বরং আরও অনেক দেশেই এ ভাইরাস ছড়িয়ে থাকতে পারে। সর্দি, হাঁচি-কাশি ও সাধারণ জ্বর করোনা ভাইরাসের লক্ষণ হওয়ায় সহজে শনাক্ত করা সম্ভব নয় এই ভাইরাস। অনুন্নত দেশগুলোতে এই রোগ ছড়িয়ে থাকলেও দুর্বল স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনার কারণে ভাইরাস শনাক্ত করা যাচ্ছে না বলে মনে করছেন তারা।

বিশেষ করে দক্ষিণপূর্ব এশিয়া ও আফ্রিকার দেশগুলোতে করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে থাকতে পারে বলে ধারণা তাদের। উহানের পাশাপাশি চীনের সঙ্গে বিভিন্ন দেশের বিমানের ফ্লাইটের তথ্য উপাত্ত পর্যালোচনার ভিত্তিতে এ আশঙ্কার কথা জানান গবেষকরা।

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: