প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

করোনার উপসর্গ নিয়ে আইসোলেশনে থাকা ব্যক্তির মৃত্যু

   
প্রকাশিত: ৫:১১ অপরাহ্ণ, ১ এপ্রিল ২০২০

শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার মোক্তারের চরের বেপারীকান্দি গ্রামের রফিকুল জ্বর-শ্বাসকষ্ট নিয়ে জেলা সদর হাসপাতালের আইসোলেশন বিভাগে ভর্তি হওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। ইতোমধ্যে করোনা ভাইরাস সন্দেহে তার নমুনা সংগ্রহ করেছে আইইডিসিআরে পাঠিয়েছে শরীয়তপুর স্বাস্থ্য বিভাগ। সরকারি নির্দেশনায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দিকনির্দেশনা মত নিরাপদ অবস্থায় ইসলামী ফাউন্ডেশনের পিপিই পরিহিত ৪ জনের কাছে ওই ব্যক্তির মরদেহ দাফনের জন্য হস্তান্তর করা হয়েছে। এমন খবরে ওই এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে।

স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার মোক্তারের চরের বেপারীকান্দি গ্রামের রফিকুল গতকাল সকালে জ্বর-শ্বাসকষ্টজনিত কারণে নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। কিন্তু তার অবস্থার অবনতি হতে থাকলে বিকেল ৫টার দিকে তাকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে এনে আইসোলেশন বিভাগে ভর্তি করানো হয়। সেখানে সে চিকিৎসারত অবস্থায় গতকাল রাত ৯টার দিকে মারা যায়। মৃত রফিকুল একজন চিহ্নিত যক্ষা রোগী ছিল। সে সরকারিভাবে যক্ষার চিকিৎসা গ্রহণ করছিলেন।

যেহেতু মৃত্যুর আগে তার শরীরে জ্বর এবং অতিরিক্ত শ্বাসকষ্ট ছিল এবং নড়িয়ায় যেহতু অনেক ইতালি প্রবাসী ফেরত এসেছে সেই ক্ষেত্রে মৃত্যুর কারণ জানতে এবং তার শরীরে করোনা ভাইরাস এর সংক্রমণ ছিল কিনা সেই বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্যই নমুনা সংগ্রহ করে তা আজ আইইডিসিআরে পাঠাচ্ছে স্বাস্থ্য বিভাগ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মনির আহম্মেদ। এদিকে, সে করোনা রোগী নয় এবং তার টিবি হয়েছিল এমন দাবিতে চিকিৎসার অবহেলার অভিযোগ আনে মৃত রফিকুলের পরিবার।

এদিকে দুপুরে নড়িয়া থানার ওসি হাফিজুর রহমানের সহযোগীতায় নড়িয়া থানা পুলিশ, ইসলামিক ফাউন্ডেশন ও স্থানীয় অল্প কয়েকজন মুসল্লি নামাজে জানাজা শেষে চন্ডিপুর সরকারি কবরস্থানে দাফন করেন।

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: