জাহিদুল ইসলাম

কুবি প্রতিনিধি

কাল কুবির প্রথম সমাবর্তন, প্রাণোচ্ছল ক্যাম্পাস

   
প্রকাশিত: ৬:৩০ অপরাহ্ণ, ২৬ জানুয়ারি ২০২০

ছবি: প্রতিনিধি

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি) প্রতিষ্ঠার ১৩ বছরেরও অধিক সময় পরে আগামীকাল (২৭ জানুয়ারি) অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে প্রথম সমাবর্তন। শিক্ষাজীবন শেষ করে প্রত্যেক শিক্ষার্থীরই প্রত্যাশা থাকে এ দিনটির জন্য। একসাথে সবাই মিলিত হওয়া, আর মর্যাদার কালো গাউন ও ক্যাপ পরে সমাবর্তনে অংশ নেওয়ার স্বপ্ন থাকে সবার। সেই বহুল প্রত্যাশিত স্বপ্ন এবার পূরণ হবার পালা গ্র্যাজুয়েটদের। আর তাই সমাবর্তনকে ঘিরে শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখর ক্যাম্পাস।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত হবে সমাবর্তনের আয়োজন। এর মধ্যে প্রায় প্রস্তুতি শেষ হয়েছে সমাবর্তনস্থলের। রবিবার (২৬ জানুয়ারি) হবে সমাবর্তন মহড়া। বিশ^বিদ্যালয়টির প্রথম এ সমাবর্তনে প্রায় ২ হাজার ৮৮৮ জন গ্র্যাজুয়েটকে ডিগ্রী দেওয়া হবে। সমাবর্তনকে সুন্দর ও স্বার্থক করতে শেষ মুহুর্তে ব্যস্ত সময় পার করছেন বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদস্যরা।

সমাবর্তনস্থল বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে নির্মাণ করা হয়েছে প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ ধারণ ক্ষমতার বিশাল প্যান্ডেল। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থানে আলোকসজ্জার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থানে সৌন্দর্যবর্ধনে লাগানো হয়েছে বাহারি ফুল গাছ।

সমাবর্তনে সভাপতিত্ব করবেন বিশ্ববিদ্যালয়টির আচার্য রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ। সমাবর্তন বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ সরকারের অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত থাকবেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চেীধুরী এমপিসহ প্রমুখ।

সমাবর্তনের সার্বিক প্রস্তুতির বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক এমরান কবির চৌধুরী বলেন,‘সাবেক শিক্ষার্থীদের একান্ত প্রত্যাশার বিষয় সমাবর্তন। প্রথমবার এত বড় আয়োজন করাটা চ্যালেঞ্জের। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সহযোগিতায় ইতোমধ্যে সমাবর্তনের সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। আজ সমাবর্তন মহড়া অনুষ্ঠিত হয়েছে।’

জানা যায়, সমাবর্তনে নিবন্ধন করা ২ হাজার ৮৮৮ জন গ্র্যাজুয়েট সুযোগ পাচ্ছেন কালো গাউন ও ক্যাপ পরিধান করার। যার মধ্যে স্নাতক ডিগ্রিধারী ১ হাজার ২২২ জন এবং স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারী ১ হাজার ৬৬৬ জন। এছাড়া শিক্ষায় অসমান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ১৪জন শিক্ষার্থীকে চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক প্রদান করবেন রাষ্ট্রপতি। সমাবর্তনের দিন ছাড়াও ২৮ জানুয়ারি সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত নিজ নিজ অনুষদ থেকে মূল সনদ গ্রহণ করা যাবে। কেউ এ সময়ের মধ্যে সনদ গ্রহণে ব্যর্থ হলে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক দপ্তর থেকে সনদ তুলতে পারবেন।

সমাবর্তনকে সামনে রেখে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। গত শুক্রবার থেকে দেওয়া শুরু হয়েছে সমাবর্তনের গিফট সামগ্রী। বিদায় বেলায় নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনেক শিক্ষার্থী বাবা-মাকে নিয়ে এসেছেন। দীর্ঘদিন পর বন্ধুদের সাথে দেখা হয়ে আনন্দে কেঁদে ফেলছেন কেউ কেউ। কথা হয় সমাবর্তন পাচ্ছেন এমন ১০ জন শিক্ষার্থীর সাথে। ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষালাভের চূড়ান্ত অর্জন সমাবর্তন। অনেকদিন পর ক্যাম্পাসে এসেছি। ছবি তুলছি, আনন্দ করছি। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের এ দিনগুলো স্বরণীয় হয়ে থাকবে।’

সমাবর্তনে রেজিস্ট্রেশন করা গ্র্যাজুয়েটদের দুপুর ১২ টা ৩০ থেকে ২ টার মধ্যে আসন গ্রহণ করতে হবে। পর্যায়ক্রমে আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দের আসন গ্রহণ, সমাবর্তন শোভাযাত্রা, মহামান্য রাষ্ট্রপতির আগমন ও জাতীয় সংগীত, পবিত্র ধর্মগ্রন্থসমূহ থেকে পাঠ, সমাবর্তনের অনুষ্ঠান উদ্বোধন, বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের স্বাগত বক্তব্য, মাননীয় চ্যান্সেলর কর্তৃক ডিগ্রি প্রদান, স্বর্ণপদক প্রদান, অতিথির বক্তব্য, সমাবর্তন বক্তার বক্তব্য, ক্রেস্ট বিনিময়, মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও মাননীয় চ্যান্সেলরের ভাষণ, সমাবর্তন অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা, জাতীয় সংগীত এবং মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও মাননীয় চ্যান্সেলরের সমাবর্তন স্থল ত্যাগের মধ্যে দিয়ে সমাবর্তন অনুষ্ঠান শেষ হবে। এ ছাড়া সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন জয়প্রিয় শিল্পী জেমস এর ব্যান্ডদল নগর বাউল ও ব্যান্ড এনকোরসহ প্রমুখ।

প্রথম সমাবর্তন উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় ও আবাসিক হলসমূহ বন্ধ থাকবে না বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আবু তাহের। তিনি আরো জানান, সমাবর্তন ঘিরে চারস্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। ইতোমধ্যে বিএনসিসি, রোভার স্কাউট সদস্যদের প্রস্তুত করা হয়েছে।

এসএ/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: