প্রচ্ছদ / সারাবিশ্ব / বিস্তারিত

‘খাবার-পানি ছাড়া’ জীবনযাপন করা সেই ভারতীয় যোগীর মৃত্যু

   
প্রকাশিত: ১২:০২ পূর্বাহ্ণ, ২৮ মে ২০২০

ভারতের গুজরাটের গান্ধীনগরে চারদা গ্রামে তার নিজের বাড়িতে ৯০ বছর বয়সে প্রহ্লাদ জানি বার্ধক্যজনিত রোগে মারা গেছেন। কয়েক দশক ধরে পানি কিংবা খাবার না খেয়ে জীবনযাপনের দাবি করা প্রহ্লাদ জানি। প্রহ্লাদের দাবি নিয়ে চিকিৎসকদের এক সময় তুমুল আগ্রহ ছিল। এভাবে কারো জীবনযাপন করা সম্ভব নয় বলে চিকিৎসকেরা জানালেও তিনি দিনের পর দিন দাবি করেছেন, খাবার-পানি ছাড়াই বেঁচে আছেন! এএফপি জানিয়েছে, যোগীর দাবির সত্যতা যাচাইয়ের জন ২০১০ সালে আহমেদাবাদের একটি হাসপাতালে দুই সপ্তাহ তাকে রাখা হয়। সিসিটিভিতে পুরোটা সময় তাকে পর্যবেক্ষণ করা হয়। চিকিৎসকেরা তার মস্তিষ্ক এবং রক্তকোষের উপাদান নিয়ে পরীক্ষাও করেন। ওই সময় হাসপাতাল থেকে বলা হয়, তিনি কিছু খাননি এবং বাথরুমেও যাননি। শুধুমাত্র গোসল এবং মুখ ধোয়ার সময় কিছু পানির স্পর্শ নিয়েছেন।

স্নায়ু বিশেষজ্ঞ সুধীর শাহ তখন প্রহ্লাদের ঘটনায় বিস্ময় প্রকাশ করেন, ‘আমরা এখনো জানি না কীভাবে তিনি বেঁচে আছেন। এটা রহস্যময় একটা ব্যাপার।’

ভারতের ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন পরিচালিত ওই পর্যবেক্ষণ প্রক্রিয়ার ফলাফল নিয়ে তবু প্রশ্ন আছে। কারণ প্রতিবেদনটি কখনো প্রকাশ করা হয়নি কিংবা পিয়ার রিভিউ জার্নালেও পাঠানো হয়নি। প্রহ্লাদের প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার সকালে তিনি মারা যান। আশ্রমে অসুস্থ হয়ে পড়লে মধ্যরাতে হাসপাতালে নেয়া হয়েছিল।

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: