প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

সুমিত সরকার সুমন

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি

গজারিয়ায় দিনে-দুপুরে বর যাত্রীবাহী লঞ্চে ফিল্মি স্টাইলে ডাকাতি!

   
প্রকাশিত: ১১:০৮ পূর্বাহ্ণ, ১৫ আগস্ট ২০২০

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার সীমানাধীন মেঘনা নদীর বড় কালীপুরা এলাকায় বর যাত্রীবাহী লঞ্চে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এসময় ধস্তাধস্তিতে আহত হয় অন্তত ১০জন। যাত্রীদের কাছ থেকে ৩০টি মোবাইল সেট, প্রায় ৩২ভরি স্বর্ণালংকার, দুই লক্ষাধিক টাকা লুট করে নেয় ডাকাত দল।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী রোজিনা বেগম, ফাতেমা আক্তার ও বাবু জানান, বালুয়াকান্দি ইউনিয়নের তেতৈতলা গ্রামের তাজুল ইসলামের ছেলে নুরুল ইসলাম বিলাশের সাথে শুক্রবার একই উপজেলার ইমামপুর ইউনিয়নের চর কালীপুরা গ্রামের সাহাবুদ্দিন আহমেদের মেয়ে আছিয়া আক্তারের বিবাহের দিন ধার্য ছিল। প্রায় ৬০/৭০জন বরযাত্রী শুক্রবার দুপুরে লঞ্চে করে তেতৈতলা গ্রাম থেকে রওনা হয় চর কালীপুরা গ্রামের উদ্দেশ্যে পথিমধ্যে তাদের বহনকারী লঞ্চটি বিকেল সাড়ে চারটার দিকে মেঘনা নদীর চর কালীপুরা এলাকায় পৌঁছালে একটি স্পিড বোট নিয়ে ১২/১৫জনের একটি ডাকাত দল তাদের লঞ্চটির গতিরোধ করে। ডাকাতরা সবাই অস্ত্রধারী ছিল তাদের কারো হাতে পিস্তল কারো হাতে দেশীয় অস্ত্র ছিল। এসময় তারা অস্ত্রের মুখে সবাইকে জিম্মি করে সাথে যা কিছু আছে সব দিয়ে দিতে বলে। এ সময় যাত্রীদের কাছ থেকে ৩০টি মোবাইল সেট প্রায় ৩২ ভরি স্বর্ণালংকার দুই লক্ষাধিক টাকা লুট করে নেয় ডাকাতদল। কয়েকজন ডাকাতদলের কথা না শোনায় তাদের মারধর করে ডাকাতরা। এসময়ের ধস্তাধস্তিতে আহত হয় অন্তত ১০। ডাকাতির শেষ করে স্পিড বোটে করে নিরাপদে পালিয়ে যায় ডাকাত দল।

বরের বড় ভাই মাজহারুল ইসলাম জানান, ষোলআনী বিদ্যুৎ প্রকল্পের সামনে থেকে একটি স্পিড বোট বর যাত্রীবাহী লঞ্চটিকে অনুসরণ করতে থাকে সে সময় স্পিড বোটটিতে ২/৩ জন লোক ছিল। পরবর্তীতে স্পিড বোটটি আরো ১০/১২জন লোক নিয়ে বর যাত্রীবাহী লঞ্চটিকে পেছন থেকে ধাওয়া করে গতিরোধ করতে বাধ্য করে। স্পিড বোটটি ডাকাত দলের ছিল তবে প্রথমে তারা এটিকে বালু মহলের স্পিড বোট বলে মনে করেছিলেন।

গজারিয়া থানার ওসি (তদন্ত) মামুন-আল-রশিদ জানান, স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান তবে কাউকে আটক করা যায়নি। এ ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: