ঘরে বসে কোরবানির পশু কিনুন ‘গরুহাটে’

   
প্রকাশিত: ৩:১৫ অপরাহ্ণ, ১৫ জুলাই ২০২০

দেশের শীর্ষস্থানীয় ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম সবজিবাজার ডটকম অনলাইনে ‘গরুহাট’নামে একটি কোরবানির বিশাল গরুর হাট নিয়ে হাজির হয়েছে। গরুহাট থেকে পরিবারের সব সদস্যদেরকে দেখিয়েই কিনতে পারবেন এবারের কোরবানির পশুটি। এরই পরিপ্রেক্ষিতে কোরবানির পশু কেনাবেচার জন্য ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের জন্য সুবিধাজনক পরিস্থিতি সৃষ্টি করবে ‘গরুহাটডটকম (GoruHaat.com)।

প্রান্তিক খামারিদের কাছ থেকে সংগ্রহ করা গরু ও ছাগল দিয়ে অনলাইন কোরবানি হাটে সাজিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটি। গরুহাট থেকে কেউ কোরবানির পশু কিনলে সেটি বাড়ি পৌঁছে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছে এই প্রতিষ্ঠান থেকে। কেনার পর বাসায় নিয়ে যাওয়ার ঝক্কিও পোহাতে হবেনা ক্রেতাকে। ইতোমধ্যে কোন কোন গরু বিক্রি করা হবে, সেগুলো ঠিক করা হয়েছে।এখানে পশুর ছবিসহ দাম, উচ্চতাও ওজন দেওয়া আছে। প্রবাসীরা পৃথিবীর যেকোনো প্রান্ত থেকে পছন্দের পশু কিনে বাংলাদেশে তাদের দেওয়া নির্ধারিত ঠিকানায় গরু পৌঁছে দিবে গরুহাট ডটকম।

এই বিষয়ে সবজিবাজার ডটকম এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শাহীন বলেন, করোনাভাইরাস আমাদের স্বাভাবিক কাজকে স্থির করে দিয়েছে, কিন্তু কাজকে তো আর থামিয়ে রাখা যাবেনা, ভাবতে হবে সঠিক সমাধান। ঝুঁকি নিয়ে হাটে না গিয়ে মানুষ যেন ঘরে বসেই কোরবানির সবকিছু করতে পারে তাই আমাদের এই অনলাইন হাটের আয়োজন।

তিনি আরো বলেন, যারা অনলাইনে আমাদের কাছ থেকে অর্ডার দিবেন আমরা সঠিক সময়ের মধ্যেই ক্রেতার বাসায় কোরবানির পশু পৌঁছে দিবো। ক্রেতা চাইলেই আমরা ইসলামী শরিয়ার সব নিয়মনীতি মেনে গরু/ছাগল কোরবানি করে গোস্ত প্যাকেট করে বাসাই পোঁছে দিব।

শাহীন বলেন, আর আমাদের ক্রেতারা কোরবানির প্রক্রিয়াটির শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত লাইভ স্ট্রিমিং এর মাধ্যমে পরিবারের সবাইকে নিয়ে উপভোগ করতে পারবেন। রয়েছে অনলাইনে পেমেন্ট করার সুবিধা। করোনার এই সময় সবজিবাজার ডটকম অনলাইনে নিত্যপণ্য মানুষের বাসায় পৌঁছে দিচ্ছে নির্ধারিত সময়ে। পাশাপাশি সেবা দিয়ে যাচ্ছে ঢাকা শহরের লকডাউন এলাকায়। লকডাউনএলাকায় অর্ডার করার সাথে সাথে পণ্য পৌঁছে দেয়া হচ্ছে ক্রেতার বাসায়। বিস্তারিত জানতে: GoruHaat.com

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: