ঘূর্ণিঝড় আম্ফান নিয়ে যা লিখল ভারতীয় গণমাধ্যম!

   
প্রকাশিত: ১২:০৬ অপরাহ্ণ, ১৯ মে ২০২০

প্রায় দু’দশক আগেকার ভয়াবহ স্মৃতি উস্কে বঙ্গোপসাগরে ফের জন্ম নিল এক ‘সুপার সাইক্লোন’ বা মহা ঘূর্ণিঝড়। তবে দিল্লির মৌসম ভবনের আশ্বাস, আমপান নামের ওই ঘূর্ণিঝড় সুপার সাইক্লোনে পরিণত হলেও সে ওই ভয়াল চেহারা নিয়ে ডাঙায় আছড়ে পড়বে না। কাল, বুধবার সন্ধ্যায় সে দিঘা এবং বাংলাদেশের হাতিয়া দ্বীপের মাঝামাঝি কোনও জায়গা দিয়ে স্থলভূমিতে ঢুকতে পারে এবং সেই সময় তার যে-রূপ ধরার কথা, আবহবিদদের পরিভাষায় তাকে বলা হয় ‘এক্সট্রিমলি সিভিয়ার সাইক্লোন’ বা মারাত্মক ঘূর্ণিঝড়।

আমপান স্থলভূমিতে ঢোকার সময় উপকূলবর্তী এলাকায় ঘণ্টায় ১৬৫-১৭৫ কিলোমিটার বেগে ঝড় বইবে। ঝড়ের গতিবেগ স্বল্প সময়ের জন্য ঘণ্টায় ১৯৫ কিলোমিটার পর্যন্ত হতে পারে। উপকূলীয় এলাকায় প্রবল বৃষ্টি হবে। অতিভারী বৃষ্টি হতে পারে কলকাতাতেও। হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস, ঝড়বৃষ্টিতে সব চেয়ে ক্ষতি হতে পারে দক্ষিণ ও উত্তর ২৪ পরগনা এবং পূর্ব মেদিনীপুর জেলার। ১৯৯৯ সালে ওড়িশায় সুপার সাইক্লোনে জনজীবন লন্ডভন্ড হয়ে গিয়েছিল। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রসচিব এ বারের ঘূর্ণিঝড়ের সম্ভাব্য হামলার বিষয়ে সোমবার ওড়িশা ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিবদের সঙ্গে কথা বলেছেন। কেন্দ্রীয় আবহাওয়া বিভাগের ডেপুটি ডিরেক্টর জেনারেল (পূর্বাঞ্চল) সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় এ দিন জানান, আজ, মঙ্গলবার থেকেই গাঙ্গেয় বঙ্গে বৃষ্টি শুরু হতে পারে। বিকেলের পরে উপকূলে ঝোড়ো হাওয়া বইবে। কাল, বুধবার সকাল থেকে ঝোড়ো হাওয়া বইবে গাঙ্গেয় বঙ্গে কলকাতা-সহ উপকূলবর্তী জেলায়। বুধবার বিকেলের পর থেকে কলকাতা-সহ উপকূলের জেলাগুলিতে ঘণ্টায় ১১০-১২০ কিলোমিটার বেগে ঝড় এবং অতিভারী বৃষ্টির আশঙ্কা আছে। ভারী বৃষ্টি হবে দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সব জেলাতেই। উপকূলে তিন থেকে ছয় মিটার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে। উত্তর ওড়িশাতেও ঝড়ের প্রভাব পড়তে পারে বলে জানাচ্ছেন আবহবিদেরা। সূত্র: আনন্দবাজার

আরএএস/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: