প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

দিলওয়ার খান

বিশেষ প্রতিনিধি, নেত্রকোনা

চু‌রির একদিনেই চোরসহ কালিবাড়ি মন্দিরের মালামাল উদ্ধার

   
প্রকাশিত: ৫:১৮ অপরাহ্ণ, ৩ ডিসেম্বর ২০২০

গত মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) বেলা সাড়ে বারোটার দিকে সাতপাই শ্রী শ্রী কালীবাড়ী মন্দিরের সেবাইত ও তাহার স্ত্রী নিত্য পূজা অর্চনা শেষে মন্দিরের ভোগ, ভোগ রাখার ঘরে গেলে অজ্ঞাতনামা কেউ মন্দিরের ভিতর প্রবেশ করে মন্দিরে প্রতিষ্ঠিত কালী মূর্তির গায়ে থাকা অনুমানিক প্রায় ৪,১৮,৬০০/- টাকার স্বর্ন ও রূপার অলংকার চুরি করে নিয়ে যায়।

উক্ত ঘটনায় মন্দিরের সাধারন সম্পাদক বাদী হয়ে নেত্রকোণা মডেল থানায় মামলা করেন। ( মামলা নং-০১, তারিখ-০১/১২/২০২০ খ্রি, ধারা-৪৫৪/৩৮০ দঃ বিঃ)

দিনে দুপুরে কালি মন্দিরে চাঞ্চল্যকর চুরির ঘটনা সংঘটিত হওয়ার পর, ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটনের নিমিত্তে মন্দিরে থাকা সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করে অজ্ঞাতনামা চোরকে সনাক্তসহ গ্রেফতারের জন্য অভিযানে নামে নেত্রকোণা মডেল থানা পুলিশ।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার বলেন, সিসি ক্যামেরার ফুটেজ এ সন্দেহভাজন চোর এর মুখমন্ডল পরিষ্কার ভাবে বুঝা না যাওয়ায় চোরকে সনাক্ত করন সম্ভব হচ্ছিল না। তথাপি নেত্রকোণা মডেল থানা পুলিশের চৌকস টীমের বিভিন্ন স্থানে ৩০ ঘন্টার নিরবিছিন্ন অভিযানে নেত্রকোণা সদরের বড় বাজারস্থ “নরসিংহ জিউর আখড়া” এর সামনে হতে চোরকে আটক করা হয়। আটককৃত সুমন চোর সুমন চন্দ্র সরকার আরধন (৩২), জেলার আটপাড়া উপজেলার বাউসা কলাপাড়া গ্রামের স্বপন চন্দ্র সরকার সুজন ও মাতা- অর্জনার সন্তান।

পরে তার কাছ থেকে মন্দিরে চুরি হওয়া ১টি স্বর্ণের মাথার চূড়া, টিকলী, নাকের নথ, ১ জোড়া দুল, ১ টি চুড়ি, শাখা বাধাঁনোর স্বর্ণের তার, ৩টি চেইন, ১টি বল চেইন, ১টি মুন্ডু মালা এবং ১টি রুপার মাথার চূড়া ও ১টি খর্গ যাহার সর্ব মোট মূল্য অনুমান ৪,০০,০০০/- টাকা উদ্ধার পূর্বক জব্দতালিকা মূলে জব্দ করা হয়।

ঘটনার নেপথ্যে জানা যায়, আসামী সুমন চন্দ্র একজন পেশাদার চোর। সে ভাসমান ভাবে নেত্রকোনা শহরের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে বেড়ায় এবং চুরি করিয়া থাকে। গত মঙ্গলবারে শ্রী শ্রী কালিবাড়ি মন্দির, সাতপাই, নেত্রকোণা মন্দিরে পূজাঁ অর্চনা শেষ হয়ে যাওয়ায় লোকজনের উপস্থিতি কম থাকায় চুরির উদ্দেশ্যে প্রবেশ করে। সে মন্দিরের আঙ্গিনায় প্রবেশ করে পুতপবিত্র হওয়ার ভান করে কালীমাতার ভক্ত হিসাবে আচরণ করে এবং সুযোগ খুজতে থাকে। এক পর্যায়ে শ্রী শ্রী কালীবাড়ী মন্দিরের সেবাইত ও তাহার স্ত্রী নিত্য পূজা অর্চনা শেষে মন্দিরের ভোগ, ভোগ রাখার ঘরে গেলে সেই সুযোগে আসামী মন্দিরের ভিতর প্রবেশ করে বর্ণিত স্বর্ণ ও রুপার অলংকার নিয়ে পালিয়ে যায়।

এআইআর/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: