ফ্রিতে ব্রেকিং নিউজ এ্যালার্ট

ছেলের সিদ্ধান্তে মুখ খুললেন মাশরাফির মা

                       
প্রকাশিত: ৯:৫৯ পূর্বাহ্ণ, ৭ মার্চ, ২০২০

বাংলাদেশ ক্রিকেটে মাশরাফি নামটি একটি দিন বদলের নাম। মাশরাফির বিকল্প যে বাংলাদেশ ক্রিকেট কখনও পাবে না, তা দেশের প্রতিটা ক্রিকেটপ্রেমী খুব ভালোভাবে মানেন এবং বিশ্বাস করেন। ২০১৪ সালে জয়ের জন্য ধুঁকতে থাকা বাংলাদেশের দায়িত্ব নেয়ার পর সব পাল্টে ফেলেছেন। একটি দলের মাঠের পারফম্যান্সের থেকে মাঠের বাইরের পারফরম্যান্স বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল ম্যাশের কাছে। তাই দলটাকে নিজের মতো গড়েছেন, একই সুতোয় বাধার চেষ্টা করেছেন। বাংলাদেশের অধিনায়ক হিসেবে ছেলে মাশরাফি বিন মুর্তজার শেষ ম্যাচ দেখতে গতকাল সকালেই নড়াইল থেকে সিলেটে উড়ে গেছেন মাশরাফির বাবা গোলাম মুর্তজা স্বপন। কিন্তু যাওয়া হয়নি মা হামিদা মুর্তজার। নড়াইল শহরের মহিষাখোলার বাড়িতে বসেই টিভিতে দেখেছেন ছেলেকে শেষবারের মতো নেতৃত্ব দিতে।

গতকাল শুক্রবার (৬ মার্চ) বৃষ্টিতে যখন খেলা বন্ধ, তখন ছেলেকে নিয়ে গণমাধ্যমের কাছে নিজের অনুভূতি ব্যক্ত করেছেন মা হামিদা মর্তুজা। মুঠোফোনে তিনি কথা বলেছেন গণমাধ্যমের সাথে। প্রকৃতির নিয়মের মতোই অধিনায়ক হিসেবে ছেলের বিদায়কে বরণ করেছেন তিনি। গত ৫ মার্চ সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি বলেছিলেন, ঘুম থেকে উঠেই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এবং দুপুরে জানিয়ে দিয়েছেন। এমনকি আগের দিনও পরিবারের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেননি। গতকাল হামিদা মুর্তজার কথায়ও যার সত্যতা পাওয়া গেল। মাশরাফির মা বলছিলেন, ‘সে ঘুম থেকে উঠেই সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, সে অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেবে। প্রত্যেক দিনই আমাকে বলে যায় যে, আম্মা আমি মাঠে যাচ্ছি। আমার জন্য দোয়া করো। কালকেও (৫ মার্চ) সে একই নিয়মে বলছে যে আম্মা আমি অধিনায়কত্ব থেকে অবসর নেব। আমি মাঠে গিয়ে সংবাদ সম্মেলনে আজকে আমি বলে দেব। তুমি দোয়া করো। এটুকুই আমার সঙ্গে কথা হয়েছে। তাছাড়া আর কোনো কথা হয়নি। এবং আমাকে, ওর আব্বাকে, ওর মামাকে, ওর বন্ধু-বান্ধব সবাইকেই বলছে যখন এই সিদ্ধান্ত ও নিছে যে, অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেবে। সবাইকে বলছে।’

তৃতীয় দফায় টানা ছয় বছর বাংলাদেশের অধিনায়কের দায়িত্বে ছিলেন মাশরাফি। গত এক বছর ধরে ধেয়ে আসা আলোচনার ঝড় থামিয়ে নেতৃত্ব ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন। ছেলের ক্যারিয়ারের শেষের শুরু দেখে হামিদা মুর্তজার ভেতরটা ঠিকই কেঁপেছে। যা প্রকাশেও রাগঢাক করেননি। গতকাল বলেছেন, ‘বুঝেন তো দীর্ঘ ছয়টা বছর অধিনায়কত্ব করছে। এখন অবসর নিল। একটু খারাপ তো লাগেই। এটা তো বুঝেনই। এটা তো বলার অপেক্ষা রাখে না। সবারই বোঝা উচিত। এখন খারাপ লাগলে তো সবকিছু চলবে না। এটাকে তো মেনে নিতেই হবে।’ হামিদা মুর্তজা আরও বলেন, ‘নতুন অধিনায়ক আসুক। ২০২৩ সালে বিশ্বকাপ, নতুন অধিনায়কের হাত ধরে খেলবে বাংলাদেশ। ওরটা তো ছাড়তেই হবে, আজকে হোক, কালকে হোক ছাড়তেই হবে। আগেই ছেড়ে দিল। সম্মানের সঙ্গে ছাড়াটাই সবচেয়ে উত্তম। নিজের সম্মান নিয়ে সরে দাঁড়ানোটাই সব থেকে উত্তম। সেটাই করছে।’ লাল-সবুজ জার্সিতে ছেলের অর্জন মায়ের মনকে গর্বের আনন্দে ভরিয়ে তোলে। হামিদা মুর্তজা বলেন, ‘আসলে এটা তো আপনারাও জানেন, ও ক্রিকেটকে কি দিছে, না দিছে। নিজের জন্য কখনোই খেলেনি। সবসময় দেশের জন্য খেলছে। আর ক্রিকেটকে কতদূর এগিয়ে এনেছে, এটা তো সারা বাংলাদেশের মানুষই জানে। যখন মানুষের মুখে ওর কথা শুনি, তখন অবশ্যই গর্ব হয়। মা হিসেবে মাথাটা উঁচু হয়ে যায়।’

আরএএস/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


পাঠকের মন্তব্য:

© স্বত্ব বিডি২৪লাইভ মিডিয়া (প্রাঃ) লিঃ
এডিটর ইন চিফ: আমিরুল ইসলাম আসাদ
বাড়ি#৩৫/১০, রোড#১১, শেখেরটেক, ঢাকা ১২০৭

ফোন: ০৯৬১১৬৭৭১৯০, ০৯৬১১৬৭৭১৯১
ইমেইল: info@bd24live.com