প্রচ্ছদ / সারাবিশ্ব / বিস্তারিত

টিকটক বন্ধ করায় ভারতে দেখা দিয়েছে বেকারত্ব!

   
প্রকাশিত: ২:৪৬ অপরাহ্ণ, ২ জুলাই ২০২০

গেল সোমবার (২৯ জুন) চীনের সাথে চলমান উত্তেজনার জের ধরেই ভারতে নিষিদ্ধ করা হয়েছে চীনের ৫৯ টি অ্যাপ। যার মধ্যে রয়েছে ভারতের তুমুল জনপ্রিয় অ্যাপ টিকটক। এবার টিকটক বন্ধ করায় ভারতে দেখা দিয়েছে বেকারত্ব। যার ফলে বিপাকে পড়েছে মোদি সরকার।

মূলত লাখ লাখ রুপি আয়ের উৎস ছিলো এই টিকটক। সীমান্ত নিয়ে বৈরী রাজনীতির জেরে সোমবার (২৯ জুন) ৫৯টি চীনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করেছে ভারত। জনপ্রিয় এ অ্যাপে ভিডিও পোস্ট করে তারকা বনে যাওয়া ভারতীয়রা পড়েছেন বিপাকে। ভারতীয় টিকটক তারকাদের অন্যতম মঞ্জুল খট্টর। প্রায় ১৪ কোটি ফলোয়ার রয়েছে তার। শুধু ভিডিও পোস্ট করেই আয় আসতো প্রায় ৫ লাখ রুপি। গিমা আশির ইনস্টাগ্রামেও প্রচুর ফলোয়ার রয়েছেন। দিল্লির মেধাবী ছাত্রী গিমা টিকটকে ভিডিও পোস্ট করে মাসে ৬ লাখ রুপি আয় করেন। এছাড়া অবেজ দরবারের কমেডি ভিডিও টিকটকে খুবই জনপ্রিয়। টিকটকে ফলোয়ারের সংখ্যা ২ কোটি। তার মাসিক আয় ছিলো ১৪ লাখ রুপি টাকা।

ভারতে এমন আরো অনেক টিকটক তারকাই আছেন যারা এই অ্যাপটি ব্যবহার করে মাসে লাখ লাখ টাকা আয় করতেন। তবে টিকটক নিষিদ্ধ হয়ে যাওয়ায় মাথায় হাত পড়েছে তাদের। জানিয়েছেন ক্ষোভ। আয় বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ক্ষতিপূরণও চাইছেন মোদি সরকারের কাছে। তাদের দাবি, টিকটক বন্ধ করায় বাড়বে বেকারত্ব। আয় রোজগার বন্ধ হয়ে পথে বসে যেতে হবে তাদের। অনেক টিকটক তারকাই আবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করে বিকল্প হিসেবে নিজেদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করার অনুরোধ জানাচ্ছেন ভক্ত ও ফলোয়ারদের কাছে। জানা গেছে, মোট ৩৯টি ভাষায় টিকটক অ্যাপ রয়েছে। তার মধ্যে ভারতে রয়েছে ১৪টি ভাষায়। ২০১৯ সালে বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি টিকটক ডাউনলোড হয়েছে ভারতে ৩২ কোটি ৩০ লাখ। যা বিশ্বের মোট টিকটক গ্রাহকদের ৪৪ শতাংশ। একটি সমীক্ষা বলছে, টিকটকে গড়ে এক জন গ্রাহক সময় কাটান ৪৫ মিনিট। সেখানে ভারতীয় গ্রাহকরা প্রতি দিন ৩৮ মিনিট ব্যবহার করেন এই অ্যাপ।

আরএএস/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: