প্রচ্ছদ / জাতীয় / বিস্তারিত

জয়ন্ত শিরালী জয়

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি

৪৪তম মৃত্যুবার্ষিকী

টুঙ্গিপাড়ায় প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

   
প্রকাশিত: ১১:৩৪ পূর্বাহ্ণ, ১৫ আগস্ট ২০১৯

ছবি: ইন্টারনেট

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪ তম শাহাদৎ বার্ষিকীতে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টা ১২ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে তাঁর সমাধিসৌধের বেদীতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। প্রধানমন্ত্রী শ্রদ্ধা নিবেদনের পর সমাধিসৌধের বেদীর পাশে কিছু সময় নিরবে দাঁড়িয়ে থাকেন। এ সময় তিন বাহিনীর পক্ষ থেকে গার্ড অব অর্নার প্রদান করা হয়। বিউগলে বেঁজে ওঠে শোকের করুণ সুর। সাদা কালো শাড়ি পরিহীত প্রধানমন্ত্রীকে মুখে ভেষে উঠে শোকের অবায়ব। পিতার সমাধি সৌধে সৃষ্টি হয় শোকাবহ পরিবেশ।

পরে প্রধানমন্ত্রী পবিত্র ফাতেহাপাঠ ও পিতা বঙ্গবন্ধু, মাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, ভাই শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রাসেলসহ ১৫ আগষ্টের শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনায় বিশেষ দোয়া মোনাজাত করেন।

পরে দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দদের সাথে নিয়ে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শোক দিবসের শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। রাষ্ট্রীয় এসব কর্মসূচী শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টুঙ্গিপাড়া বঙ্গবন্ধু ভবনে প্রবেশ করেন।

এরপর জতীয় সংসদের স্পিকার শিরিন শারমিন চৌধূরী শোক দিবসের শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

পরে গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ, টুঙ্গিপাড়া, কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগসহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

এ সময় ৩ বাহিনীর প্রধানগণ, মন্ত্রী পরিষদ সচিব, দলের সাধারণ সম্পাদক সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহম্মেদ, আমির হোসেন আমু, সাবেক কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধূরী, প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপি, লেঃ কর্ণেল (অবঃ) মুহাম্মদ ফারুক খানসহ আওয়ামীলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ, মন্ত্রী পরিষদের সদস্য, সংসদ সদস্যসহ পদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা সমাধিসৌধে উপস্থিত ছিলেন।
বেলা ১১ টায় সমাধি সৌধ কমেপে¬ক্সে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ ও জেলা প্রশাসন আয়োজিত মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে মন্ত্রী পরিষদের সদস্য, আওয়ামীলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ, পদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা শরিক হন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার পরিবারের সদস্যরা টুঙ্গিপাড়া বঙ্গবন্ধু ভবনে বসে মিলাদ মাহফিলের মোনাজাতে অংশ নেন।
প্রধানমন্ত্রী শ্রদ্ধা নিবেদনের পর কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছা সেবকলীগ, যুবলীগ, মহিলা আওয়ামীলীগ, যুবমহিলা লীগ, গোপালগঞ্জ জেলা মহিলা আওয়ামীলীগ, কোটালীপাড়া পৌরসভা, টুঙ্গিপাড়া পৌরসভা, জাতীয় বিশ্ব বিদ্যালয়, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কেন্দ্রীয়, জেলা ও উপজেলা কমান্ড, গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, মিল্কভিটা, শেখ সাহেরা খাতুন মেডিকেল কলেজ, শেখ ফজিলাতুন্নেছা চক্ষু হাসপাতাল, এসেনশিয়াল ড্রাগসসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক সামাজিক সাংস্কৃতিক, শ্রমজীবী, পেশা জীবি সংগঠনের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

বঙ্গবন্ধুর জন্য উপাসনালয়ে প্রার্থনা: বঙ্গবন্ধুর ৪৪ তম শাহাদৎ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে গোপালগঞ্জ, টুঙ্গিপাড়া, কোটালীপাড়া, মুকসুদপুর ও কাশিয়ানী উপজেলার বিভিন্ন সমজিদে দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গোপালগঞ্জ কেন্দ্রীয় সার্বজনীন কালিবাড়ি, লেকপাড় লোকনাথ মন্দিরসহ জেলার বিভিন্ন মন্দির ও গীর্জায় বঙ্গবন্ধুর আত্মার শান্তি কামনায় বিশেষ প্রার্থনা হয়।

শোকের অবায়ব: পহেলা আগষ্ট থেকেই শোক দিবস উপলক্ষে মাদারীপুর জেলার কাঠালবাড়ী ইলিয়াছ আহম্মেদ ঘাট থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা হয়ে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া পর্যন্ত ১১৬ কিঃমিঃ সড়কে কালো কাপড় দিয়ে নির্মান করা হয়েছে অসংখ্য তোরণ। টাঙানো হয়েছে নানা ব্যানার ও ফেস্টুন। জেলা শহর থেকে টুঙ্গিপাড়ায় পর্যন্ত পথে পথে দেখা গেছে কালো পতাকা। সৃষ্টি হয়েছে শোকাবহ পরিবেশ।

সমাধি সৌধে শোকার্ত মানুষের ঢল: প্রধানমন্ত্রী টুঙ্গিপাড়া ত্যাগ করার পর বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধে ঢল নামে শোকার্ত মানুষের। শোকের চিহ্ন কলো ব্যাচ বুকে ধারণ করে পুস্প স্তবক, ফুলে তোড়া ও ফুল নিয়ে সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে আসেন। শতাব্দীর মহানায়কের সমাধিসৌধ বেদীতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়ে তাঁর জন্য দোয়া মোনাজাত করেন। ৭৫ এর ১৫ আগষ্টের কথা স্মরণ করে তারা বঙ্গবন্ধুর জন্য অশ্রুসিক্ত হন। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত আওয়ামীলীগ ও সহযোগি, শ্রমজীবি, পেশা জিবি, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের হাজার হাজার নেতা কর্মী শোকার্ত পরিবেশে বঙ্গবন্ধুর প্রতি বিন¤্র শ্রদ্ধা জানান। এছাড়া বিভিন্ন বয়সের মানুষ বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে এসে পুস্পস্তবক অর্পন করেন। দিন ব্যাপী চলে শ্রদ্ধা নিবেদনের পালা। ফুলে ফুলে ছেয়ে যায় সবার সেরা বাঙ্গালী বঙ্গবন্ধুর টুঙ্গিপাড়ার সমাধিসৌধ।

গরীব মানুষের মধ্যে খাবার বিতরণ: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪ তম শাহাদৎ বার্ষিকী উপলক্ষে গোপালগঞ্জ জেলার ৬৮ টি ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ডে, বিভিন্ন গ্রামে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল শেষে গরীব মানুষের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়। এছাড়া গোপালগঞ্জ, মুকসুদপুর, কোটালীপাড়া পৌর এলাকায় বিভন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন, ব্যবসায়ী সমতির উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর জন্য দোয়া মোনাজাত শেষে খাবার বিতরণ করা হয়।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শোক দিবস: গোপাগঞ্জ জেলার ৫ উপজেলার স্কুল, কলেজ সহ সব শিক্ষা প্রাতিষ্ঠানে জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন, চিত্রাংকণ, রচনা, প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা, দোয়া, মিলাদ মাহফিলের মধ্য দিয়ে এ বছর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে দিবসটি পালন করা হয়।

এসএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: