প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

ট্রাক খাদে পড়ে ১৩টি গরুর মৃত্যু, নিহত ১

   
প্রকাশিত: ৫:৪৩ অপরাহ্ণ, ১ ডিসেম্বর ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

শেরপুর জেলার নকলা উপজেলায় গরুবোঝাই একটি ট্রাক খাদে পড়ে গিয়ে সোরহাব আলী (৬০) নামে নির্মাণ কাজের এক পাহারাদার নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গরুর পাইকার নবী হোসেন (৩২) ও ট্রাক চালক মোখলেছ মিয়া (২৫) আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন। তাছাড়া অন্তত ১৩টি গরু এ দুর্ঘটনায় মারা গেছে। মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) ভোর রাত সোয়া ২টার দিকে উপজেলার কুর্শাবাদাগৈড় এলাকায় ঢাকা-শেরপুর মহাসড়কে এ দুর্ঘটনাটি ঘটেছে বলে স্থানীয় সূত্র জানায়। নিহত সোরহাব আলী উপজেলার কুর্শাবাদাগৈড় এলাকার মৃত সৈয়দ আলীর ছেলে। আহত নবী হোসেন কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ উপজেলার মাঝিরকোনা গ্রামের শওকত আলীর ছেলে ও মোখলেছ মিয়া একই উপজেলার পাবদা কাঠালিয়া গ্রামের আব্দুল মালেকের ছেলে।

স্থানীয়রা জানায়, ঢাকা-শেরপুর মহাসড়কের দুই পাশে সম্প্রসারণ কাজ চলছে। সম্প্রসারণ কাজের অংশ হিসেবে কুর্শাবাদাগৈড় এলাকায় একটি কালভার্ট নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। কালভার্ট নির্মার্ণের জন্য রাস্তায় গভীর গর্ত করা হয়েছে। কিন্তু ব্যস্ততম এই রাস্তায় গভীর গর্ত করলেও জনগণ ও যানবাহন চলাচলে বাধার সৃষ্টি করতে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে কোন প্রকার ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি, করা হয়নি কোন আলোর ব্যবস্থাও। তাই স্বাভাবিক চলাচলের অভ্যাসের কারণে দ্রুতগামী ট্রাকটি সরাসরি গর্তে পড়ে যায়। এসময় কালভার্ট নির্মাণ কাজের পাহারাদার গরুবোঝাই ট্রাকটির চাকার নিচে পড়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায়।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সোমবার রাতে কুড়িগ্রাম থেকে গরু বোঝাই করে রাজধানী ঢাকায় যাওয়ার পথে প্রায় শেষ রাতে কুর্শাবাদাগৈড় এলাকায় পৌঁছালে এ ঘটনাটি ঘটে। এতে একজন নিহত, ২ জন আহত ও ১৩টি গরু মারা যায়। এ ঘটনায় ট্রাকের চালক মোখলেছ মিয়া ট্রাকের ভিতরে আটকা পড়ে যায়। সংবাদ পেয়ে মঙ্গলবার সকালে ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধার কর্মীরা এসে ট্রাকের বডি কেটে তাকে উদ্ধার করে নকলা হাসপাতালে ভর্তি করেন। এর আগে স্থানীয়রা গরুর পাইকার নবী হোসেনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে নকলা হাসপাতালে ভর্তি করেন। আহতরা এখন পর্যন্ত ঝুঁকিমুক্ত আছেন বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্মরত চিকিৎসকগণ।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) জাহিদুর রহমান, উপজেলা চেয়ারম্যান শাহ মো. বোরহান উদ্দিন, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুশফিকুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। নকলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুশফিকুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাস্থল থেকে সোরহাব আলীর মরদেহ এবং ১৯টি গরু জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হেয়েছে। এ বিষয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

 

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: