প্রচ্ছদ / সারাবিশ্ব / বিস্তারিত

ট্রাম্পের হুমকি উড়িয়ে দিয়ে হংকংয়ের সুরক্ষা আইনের অনুমোদন দিল চীন

   
প্রকাশিত: ১১:২৪ অপরাহ্ণ, ২৮ মে ২০২০

চীন আধা স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল হংকংয়ে ‘দেশদ্রোহিতা বা রাষ্ট্রদ্রোহিতা’ ঠেকানোর জন্য ‘ন্যাশনাল সিকিউরিটি ল’ আইনটি অনুমোদন দিয়েছে চীনের জাতীয় আইনসভা ন্যাশনাল পিপলস কংগ্রেস।মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের হুমকিকে তোয়াক্কা না করে এটা করা হলো। সম্প্রতি তিনি এ আইনের বিরুদ্ধে কঠোর প্রতিক্রিয়া জানান। বিশ্লেষকেরা বলছেন, আইনের পর হংকংয়ের রাজনৈতিক স্বাধীনতা আরও খর্ব হবে। উইয়র্ক টাইমস এবং সিএনএন জানিয়েছে, ভালোভাবে বিচার-বিশ্লেষণ না করেই বৃহস্পতিবার (২৮ মে) আইনটি অনুমোদন দেয়া হয়। হংকংয়ে সব ধরনের আন্দোলন ঠেকানোর জন্য মূলত চীন এই আইনটি করছে। নিউইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে, এদিন সংসদে মাত্র একজন প্রতিনিধি প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভোট দেন। ভোট দেয়া থেকে বিরত থাকেন ছয়জন। পক্ষে ভোট পড়ে ২ হাজার ৮৭৮টি।

অনুমোদনের পর এনপিসির স্থায়ী কমিটি আইনটির খসড়া করবেন। এটি করতে দুই মাসের মতো সময় লাগবে। তারপর হংকংয়ের আইনসভায় পাসের মাধ্যমে সরকারের ওপর এটি জারি হবে। হংকংয়ের আইনসভায় সাধারণত চীনের কোনো আইন আটকায় না।

সংবাদমাধ্যম সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়, নতুন আইনে হংকংয়ে বিচ্ছিন্নতা, বৈদেশিক হস্তক্ষেপ, সন্ত্রাসবাদ এবং উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ করা হবে।

গত বছর এমনই আরেকটি আইন নিয়ে চীনের আধা স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল হংকংয়ের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক রীতিমতো অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে। ওই সময় বন্দি প্রত্যর্পণের সুযোগ রেখে চীন একটি আইন পাস করতে চাইলে প্রতিবাদে ফেটে পড়ে হংকং। কয়েক মাসের টানা আন্দোলনের মুখে পিছু হটে চীন। সেই আন্দোলন পরে গণতন্ত্রের দাবিতে রূপ নেয়।

১৯৯৭ সালে ব্রিটিশদের কাছ থেকে হংকং শহরের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর আর কখনো এত ঝামেলায় পড়েনি চীন। বিক্ষোভ দমাতে কঠোর হওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েও সফল হয়নি তারা।

এরপর মোটামুটি সব ঠিক থাকলেও হংকংকে নিয়ন্ত্রণের পরিকল্পনা থেকে সরে আসেনি চীন। নতুন আইনকে হংকংয়ের স্থানীয়রা তাদের পায়ে ‘পরাধীনতার শিকল’ পরানোর সঙ্গে তুলনা করে আবার আন্দোলনে নেমেছেন। চলছে ধরপাকড়।

হংকংয়ের পক্ষে চীন কী নতুন আইন প্রয়োগ করছে?

বুধবার ট্রাম্প প্রশাসন জানায় যে, চীন থেকে হংকং স্বায়ত্তশাসন পেয়েছে তা আর প্রমাণ করা যাবে না। ১৯৯৭ সালে ব্রিটিশরা শহরটি ফেরত দেওয়ার আগে স্বায়ত্তশাসনের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল। চীনের এই পদক্ষেপের জেরে নিষেধাজ্ঞাসহ বহু পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারে ট্রাম্প প্রশাসন।

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: