প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

আরমান হোসেন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা সিটি নির্বাচন: ভয়াবহ অবস্থা হতে পারে যে ১৮ কেন্দ্রে

   
প্রকাশিত: ৭:৫৭ অপরাহ্ণ, ২৬ জানুয়ারি ২০২০

ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ এ দুই সিটিতে ৫০টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তবে এর মধ্যে ১৮টি কেন্দ্রে ভয়াবহ ঝুঁকি রয়েছে । সূত্র জানায়, ১২৯ ওয়ার্ডের মধ্যে ৯২টি ওয়ার্ডে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রয়েছেন। এ ৯২ ওয়ার্ডের ৫০টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ মনে করছে পুলিশ। এ ৫০টি ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের মধ্যে ১৮ কেন্দ্র অধিক ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এ অধিক ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলো নিয়ে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ৪০ হাজার সদস্য ভোটের মাঠে থাকবে। কেন্দ্রভিত্তিক সাধারণ কেন্দ্রে ১৬ ও গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ১৮ জন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য থাকবে। এছাড়া স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে র‌্যাব ও বিজিবি মোতায়েন থাকবে। কেন্দ্রে সংখ্যা অনুযায়ী আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হবে। সবসময়ই তারা সতর্ক আছেন, কোনো সমস্যা থাকলে তারা ব্যবস্থা নেবেন।

গোয়েন্দা সংস্থার তালিকায় ঝুঁকিপূর্ণ ৫০টি কেন্দ্রের মধ্যে ঢাকা উত্তর সিটিতে ২৩ আর দক্ষিণ সিটিতে রয়েছে ২৭টি কেন্দ্র। কেন্দ্রগুলোর ওয়ার্ডে ক্ষমতাসীন দলের একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী থাকা, সাম্প্রতিক সময়ে ক্যাসিনো ও দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের প্রভাব, দলীয় মনোনয়ন না পাওয়া প্রার্থীদের ক্ষোভ, বিরোধী দলের শক্ত প্রার্থী থাকা ও এলাকাগুলো ক্রাইম জোন হওয়ার কারণে কেন্দ্রগুলো ঝুঁকিপূর্ণ বলে শনাক্ত করা হয়েছে। নির্বাচনে বিভিন্ন ওয়ার্ডে ক্ষমতাসীন দলের বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন।

বেশি ঝুঁকিপূর্ণ ১৮ কেন্দ্র আগের দায়িত্ব পালন করা কাউন্সিলর যারা দলের মনোনয়ন পাননি তারাও ভোটে দাঁড়িয়েছেন। কোনো প্রার্থী না দাঁড়িয়ে বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে ভোটের মাঠে জোর প্রচারণা চালাচ্ছেন। কিছুদিন আগে ক্যাসিনো ও দুর্নীতিবিরোধী অভিযান চালানো হয়েছে। এতে অবৈধ উপায়ে যারা অর্থ আয় করেছেন তারা অনেকটা দৌড়ের ওপর আছেন। তাদের পক্ষের এবং বিপক্ষের লোকজনের তৎপরতা সক্রিয় আছে এলাকায়। এতে ওইসব ভোট কেন্দ্রের এলাকাগুলোতে দলাদলির প্রভাবে সংঘর্ষের আশঙ্কা রয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে, ভোটকেন্দ্রের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আগাম সতর্কতা হিসেবে সংশ্লিষ্ট থানা ও পুলিশ ফাঁড়িগুলোকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও ভোটকেন্দ্রগুলো ও আশপাশের এলাকায় থানা পুলিশের মোবাইল পার্টি, পিকেট পার্টি, হাঁটা পার্টি, গাড়ি টহল পার্টিকে বেশি সক্রিয় হতে বলা হয়েছে। বিট পুলিশিংকে আরও কার্যকর ভূমিকা পালনের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ভোটকেন্দ্রের আশপাশে বসাতে বলা হয়েছে চেকপোস্ট। এছাড়াও ভোটের কয়েকদিন আগে থেকে ভোটকেন্দ্রের আশপাশের এলাকাগুলোতে দুর্বৃত্তদের দমনের জন্য বাসাবাড়িগুলোতে ব্লক রেইড দেওয়া হতে পারে।

গোয়েন্দা সংস্থা নির্বাচন কমিশনের কাছে ৫০টি ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের তালিকা জমা দিয়েছে। ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলো হচ্ছে বাড্ডা প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাড্ডা হাইস্কুল, তেজগাঁও কলেজ, সেন্ট্রাল রোডের আইডিয়াল কলেজ, রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ, ঢাকা কমার্স কলেজ মিরপুর, ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজ, আল হেরা কলেজ, বাড্ডা কলেজ, নিকুঞ্জ মডেল কলেজ, পল্লবী কলেজ, রামপুরা একরামুন্নেছা ডিগ্রি কলেজ, লালমাটিয়া মহিলা কলেজ, শের-ই-বাংলা আদর্শ মহিলা কলেজ, মনিপুর উচ্চবিদ্যালয়, মোহাম্মদপুর মহিলা কলেজ, তেজগাঁও মহিলা কলেজ, উত্তরা মডেল টাউন স্কুল, নিউ মডেল ডিগ্রি কলেজ, কল্যাণপুর গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ, উত্তরার ঢাকা ওমেন কলেজ, খিলগাঁও উচ্চবিদ্যালয়, আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ মতিঝিল, নটর ডেম কলেজ মতিঝিল, ঢাকা সিটি কলেজ, ওয়ারীর সলিমুল্লাহ ডিগ্রি কলেজ, সিদ্ধেশ্বরী ডিগ্রি কলেজ, মতিঝিল মডেল হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজ, আবুজর গিফারি ইউনিভার্সিটি কলেজ, মালিবাগ অগ্রণী স্কুল অ্যান্ড কলেজ, আরামবাগ গার্লস হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজ, শহীদুল্লাহ কলেজ বকশিবাজার, হাবিবুল্লাহ বাহার কলেজ, পুরানা পল্টন গার্লস কলেজ, আরকে চৌধুরী কলেজ সায়েদাবাদ, দনিয়া কলেজ, ঢাকা সিটি ইন্টারন্যাশনাল কলেজ শহীদবাগ, ইস্পাহানি স্কুল অ্যান্ড কলেজ, কমলাপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজ, খিলগাঁও গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ, খিলগাঁও মডেল কলেজ, মেহেরুন্নেছা গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মির্জা আব্বাস ওমেন্স ডিগ্রি কলেজ শাহজাহানপুর, শাহ আলী গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ, শান্তিবাগ স্কুল অ্যান্ড কলেজ, শেখ বোরহান উদ্দিন পোস্ট গ্রাজুয়েট কলেজ, টিএন্ডটি কলেজ মতিঝিল ও বদরুন্নেছা সরকারি মহিলা কলেজ।

এসএ/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: