প্রচ্ছদ / খোলা কলাম / বিস্তারিত

‘দোকান গুলোকে শুধুমাত্র কেয়ামতের শিঙ্গা ফুক দেবার পরই তুলে দিতে পারবে’

   
প্রকাশিত: ৭:১৫ অপরাহ্ণ, ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক এয়ারপোর্ট, ঢাকা এর যাত্রী সংখ্যা ব্যাপক বৃদ্ধি পাওয়ায় সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি প্রিমিয়াম এবং এরোস এর আউটলেট রেখে অন্য সব দোকান তুলে দিয়ে যাত্রী বসার ব্যবস্থা করে দিয়েছে। শুনলাম প্রিমিয়াম এবং এরোস একেবারে প্রথম থেকেই ছিল বিধায় তাদের বহাল রাখা হয়েছে। এমন ভাবে কথাগুলো বললেন নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সদস্য (যুগ্ম সচিব) মাহবুব কবির মিলন।

শুক্রবার (৬ সেপ্টম্বর) ফেসবুকে দেয়া এক পোস্টে এমনটিই জানালেন তিনি। ফেসবুকে মাহবুব কবির মিলন বলেন, হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক এয়ারপোর্ট, ঢাকা এর ডোমেস্টিক লাউঞ্জে (ভিতরেরটা) অনেকগুলো স্ন্যাক্স/কফি শপ ছিল। প্রথম ছিল সম্ভবত প্রিমিয়াম সুইটস এর আউটলেট। এরপর সারিবদ্ধ দোকান হতে থাকে একেবারে টয়লেট পর্যন্ত।

এটাই যাত্রী কল্যাণ। তবে সিভিল এভিয়েশন হঠাত করে এতগুলো দোকান কিভাবে তুলে দিতে পেরেছে তা হতবাক হবার বিষয়। কারণ সরকারি কাজ একবার বিক্রি হলে তা আর ফেরত আসে না। চিরদিনের জন্য এই বেচাবিক্রির বন্দোবস্ত আমরাই করে রাখি।

বিমানবন্দর রেলওয়ে ষ্টেশন। সম্ভবত দুনিয়ার সর্ববৃহৎ প্যাটফর্ম শপিং মল এখানে পাবেন। সেখানে দাঁড়াবার জায়গা থাকে না। নেই বসার ভাল ব্যবস্থা। এত যাত্রী রানিং থাকে যে, ট্রেন আসলে ঠেলাঠেলি, ধাক্কা ধাক্কিতে যাত্রী আর ট্রেনে উঠতে পারেনা। প্রতিদিন শুনবেন যাত্রী ঊঠতে না পেরে ট্রেন মিস করে টিকেট হাতে দাঁড়িয়ে আছে। ট্রেন চলে গেছে।

সামান্য চওড়া প্ল্যাটফর্মের অর্ধেক জুড়ে দখল করে আছে অসংখ্য দোকান। পা’ফেলার জায়গা থাকে না সেখানে। সে এক অমানবিক অবস্থা। মেয়েদের এত বিব্রত হতে হয় যা ভাষায় প্রকাশ করার মত নয়। প্রচন্ড ভিড়ের সুযোগে মেয়েদের গায়ে হাত দেয়ার মত ঘটনা প্রতিদিন ঘটে চলেছে। এ ধরেনের জঘণ্য পরিবেশ জগতে বিরল। শুনলাম নতুন করে আরও দুটি দোকান বসেছে।

আরও মজার কাহিনী শুনেছি। সত্য মিথ্যা জানি না। চুক্তি নাকি এমনভাবে করা হয়েছে যে, রেল এই দোকানগুলোকে শুধুমাত্র কেয়ামতের শিঙ্গা ফুক দেবার পরই তুলে দিতে পারবে। তার আগে নয়।

বর্তমান রেল মন্ত্রী মহোদয় অনেক সজ্জন, সৎ এবং ডেডিকেটেড ও ভাল মানুষ। তিনি অনেক পজিটিভ পরিবর্তন আনছেন রেলে। এরমধ্যে তিনি কয়েকবার বিমানবন্দর ষ্টেশন ভিজিট করেছেন এবং সেখান থেকে ট্রেনে উঠেছেন। কিন্তু এই শপিং মল নিয়ে রেল তাঁকে কি ব্যাখ্যা বা জাস্টিফিকেশন দিয়েছেন তা জানার খুব ইচ্ছা আমার।

এএস/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: