ধোনির অবসর নিয়ে মুখ খুললেন কোহলি

   
প্রকাশিত: ১১:৩৩ পূর্বাহ্ণ, ১১ জুলাই ২০১৯

ভারতের ব্যাটিং লাইনআপ নিয়ে এতদিন ধরে ছিল অনেক প্রশংসা। সবার ধারণা ছিল- যে কোনো টার্গেট দেওয়া হোক, সেই রান খুব সহজেই তুলে ফেলবে বিরাট কোহালির দল। কিন্তু আসল দিনে দেখা গেল ভারতের ব্যর্থতা। এতে থেমে গেল তাদের বিজয় রথ।

ভারতের বিদায়ের পরপরই দলের উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান মহেন্দ্র সিং ধোনির বিশ্বকাপের পর অবসর নেয়ার কথা চলছে। ৩৮ বছরের ধোনি ২০০৪ সালে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে নিজের প্রথম ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছিলেন। তারপর তিনি লাগাতার ভারতীয় দলের অংশ ছিলেন। গত কিছুদিন ধরে ধোনির ব্যাট থেকে আগের মতো রান বেরোচ্ছে না। এই বিশ্বকাপে ধোনি বেশ কিছু ভালো ইনিংস খেললেও কিন্তু তাতে পুরোনো ধোনির ঝলক দেখা যায়নি।

মহেন্দ্র সিং ধোনির অবসরের ব্যাপারে টানা কথা বলা হচ্ছে আর তা নিয়েও বিরাট কোহলিকে প্রশ্ন করা হয়। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে হারের পর কোহলি প্রেস কনফারেন্সে মিডিয়ার প্রশ্নের জবাব দেন। যখন কোহলিকে ধোনির অবসরের ব্যাপারে প্রশ্ন করা হয় তখন তিনি বলেন, ‘ধোনি এখনো পর্যন্ত এ ব্যাপারে আমাদের কিছু বলেননি’।

৯২ রানে ৬ উইকেটে হারানো মরা ম্যাচে রবীন্দ্র জাদেজাকে নিয়ে প্রাণ ফিরিয়েছিলেন ধোনি। জাদেজার ৭৭ রানের পর ৭২ বলে ধোনি নিজে ৫০ রান করে দলকে জয়ের কাছেই নিয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু রানআউটের খাড়ায় পড়ে শেষ পর্যন্ত পারেননি। ম্যাচ শেষে অবশ্য দুজনের ইনিংসেরই ব্যাপক প্রশংসা করেন কোহলি।

 

ধোনির রানআউট নিয়ে বিতর্ক!

ইনিংসের শুরু থেকে ভারত যখন একের পর এক উইকেট হারাচ্ছিল, তখনও মাঠে দেখা যাচ্ছিল না মহেন্দ্র সিং ধোনিকে। পাঁচ রানে তিন উইকেট হারানোর পর ২৪ রানে চতুর্থ উইকেট হারায় ভারত। সেমিফাইনালের মতো ম্যাচে প্রথমে তিন উইকেট হারিয়ে ভারত যখন বিপদে, তখনও ধোনি কেন ব্যাটিংয়ে নেই? এমন প্রশ্ন উঠেছিল কমেন্ট্রি বক্স থেকেও। তবে খেলায় শুভ সমাপ্তি টানতে রিজার্ভ ডে তে সম্পূর্ণ দায়িত্বও এসে পড়ে ধোনির কাঁধে। উইকেটের একপ্রান্ত সামলে নিচ্ছিলেন এই সাবেক ভারতীয় অধিনায়ক। যদিও ম্যাচ ফিনিশ করতে পারেননি মি. ফিনিশার। গাপটিলের অসাধারণ থ্রোতে রান আউট হয়ে টেল-এন্ডারদের হাতে ম্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

গতকাল বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে ১৮ রানে জয়ের পর কিউই অধিনায়ক মার্টিন গাপটিলও স্বীকার করেন, ধোনির রান আউট হওয়াই ম্যাচ ঘুরিয়ে দিয়েছে। কিন্তু এ রান আউট নিয়েই শুরু হয়েছে বিতর্ক।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি ভিডিও এবং ছবি প্রকাশের পর ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো ধোনির রান আউট নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। ধোনি লকি ফার্গুসনের যে ডেলিভারিতে রান আউট হলেন সেটি বৈধ ছিল কি না এবং বৈধ না হলে ফলটাও পাল্টে যেতে পারত বলে মনে করা হচ্ছে।

ম্যাচের সে মুহূর্তে (৪৯তম ওভার) তৃতীয় পাওয়ার প্লে চলছিল, যখন নিয়ম অনুযায়ী ৩০ গজের বাইরে পাঁচজন ফিল্ডার রাখতে হয়। কিন্তু ফার্গুসনের ওই ডেলিভারির (৪৮.৩) আগে টিভিতে একটি গ্রাফিক দেখানো হয়, যেখানে দেখা যায় নিউজিল্যান্ডের ছয়জন ফিল্ডার ৩০ গজের বাইরে। বাউন্ডারি সীমানায় ছয়জন ফিল্ডার রাখার সুবিধা থেকেই ধোনিকে ওই বলে ২রান নিতে দেয়নি নিউজিল্যান্ড। উল্টো রান আউট হতে হয় ধোনিকে। আর নিয়ম অনুযায়ী ফার্গুসনের ডেলিভারিটি ‘নো বল’ হওয়ার কথা। তবে এটাও মনে রাখতে হবে ‘নো বল’ হলেও ধোনি কিন্তু রান আউটই হতেন (নো বলে ব্যাটসম্যান রান আউট হতে পারে)।

কেইআর/এসইসি

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: