প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

এম. সুরুজ্জামান

শেরপুর প্রতিনিধি

নালিতাবাড়ীতে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর ২৫ বস্তা চাল জব্দ

   
প্রকাশিত: ৮:২৪ অপরাহ্ণ, ১ অক্টোবর ২০২০

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে কালো বাজারে বিক্রি হয়ে যাওয়া খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর ১০ টাকা কেজি দরের ২৫ বস্তা চাল জব্দ করেছে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়। বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে উপজেলার পোড়াগাঁও ইউনিয়নের বেকিকুড়া আশ্রয়ন প্রকল্পের একটি বাড়ি থেকে এসব চাল জব্দ করা হয়।

জানা গেছে, সম্প্রতি ১০ টাকা কেজি দরের চাল তালিকাভুক্ত উপকারভোগীদের মাঝে বিক্রি করা হয়। এরমধ্যে বেশকিছু বস্তা চাল ফরিয়া চক্রের মাধ্যমে পাচারের জন্য বেকিকুড়া আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দা জৈনক ইব্রাহিমের ঘরে রাখা হয়। বুধবার ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখা ওইসব চালের বস্তার খবর প্রকাশ হয়ে পড়লে সেখানে গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত হন। একপর্যায়ে খবর পেয়ে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় হতে একজন পরিদর্শক ঘটনাস্থলে যান। এসময় ইব্রাহিমের কাছে পৃথকভাবে রাখা মোট ২১ বস্তা চাল জব্দ করা হয়। পরে ওইসব চালের বস্তা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর ইউনিয়ন কমিটির সভাপতি আজাদ মিয়ার হেফাজতে রাখা হয়। এদিকে একই দিন সমশ্চুড়া এলাকা থেকে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর আরও ৪ বস্তা চাল উদ্ধার করা হয়।

এ বিষয়ে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর পোড়াগাঁও ইউনিয়নের ডিলার জয়ন্তি মারাক সরকারী চাল কালো বাজারে বিক্রির বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, অনেক স্বচ্ছল ব্যক্তি ডিলার পয়েন্ট থেকে চাল ক্রয় করে বাড়ি নেওয়ার সময় বিক্রি করে দেন।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আজাদ মিয়া জানান, হতদরিদ্রদের দেওয়া ১০ টাকা কেজি দরের চাল সিন্ডিকেটের হাতে চলে যাচ্ছে। এর আগেও খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর চাল নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় একজন ডিলার পরিবর্তন হয়েছে। তাই বিষয়টি সঠিকভাবে যাচাই-বাছাই করে প্রকৃত রহস্য উদঘাটনের দাবী জানাই।

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কেএম নাসির উদ্দিন জানান, জব্দকৃত চালগুলোর মালিক পাওয়া যায়নি বিধায় কারও বিরুদ্ধে সরাসরি অভিযোগ প্রমাণ হয়নি। এমতাবস্থায় ওইসব চালের বস্তা ইউপি চেয়ারম্যানের জিম্মায় রাখা হয়েছে। পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহোদয় এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।

এআইআর/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: