প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

জুলফিকার আলী ভূট্টো

নীলফামারী প্রতিনিধি

নীলফামারীতে আগাম ভোটের প্রচারণায় সরব হয়ে উঠেছে গ্রাম-মহল্লার দোকানপাট

   
প্রকাশিত: ১১:৪৮ পূর্বাহ্ণ, ৫ ডিসেম্বর ২০২০

দেশের বিভিন্ন এলাকায় প্রথম দফা এবং দ্বিতীয় দফায় পৌরসভার নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা হওয়ায় নীলফামারী জেলায় আগাম নির্বাচনী প্রচারনা শুরু হয়েছে। জেলার ডোমার উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় আগাম নির্বাচনী প্রচারনায় সম্ভাব্য প্রার্থীরা ভোটারদের কাছে দোয়া ও সমর্থন চেয়ে পোষ্টার,ফেষ্টুনের পাশাপাশি ভোটারদের বাড়ি বাড়ি ঘুরছেন। ভোটের আগাম হাওয়ায় গ্রাম মহল্লার চায়ের দোকানগুলো সরগরম হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে সন্ধার পর দোকান গুলোতে সম্ভাব্য প্রার্থীদের পক্ষে-বিপক্ষে আলোচনা সমালোচনা নিয়ে মূখর থাকে। নিজেদের পক্ষে সমর্থন পেতে সম্ভাব্য প্রার্থীরা পাড়া মহল্লায় দফায় দফায় সভা সমাবেশ করছেন। ভোটাররাও নতুন এবং পুরাতনদের মধ্যে পার্থক্য নির্নয় করে হিসাব কষছেন।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ডোমার উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার চেয়ারম্যান পদে অর্ধশতাধিক, ১০৮টি ওয়ার্ডে মেম্বার পদে ৫শতাধিক এবং ৩৩টি সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার পদে দুই শতাধিক সম্ভাব্য প্রার্থী প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছেন।

ডোমার সদর ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান মোছাব্বের হোসেন মানু,উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাসুম আহমেদ, আওয়ামীলীগ নেতা হাফিজুল ইসলাম হাফিজ, শ্যামল চন্দ্র রায় ও আহমেদুল হক মানিকের নাম শোনা যাচ্ছে। বোড়াগাড়ী ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম রিমুন, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মন্জুর আহমেদ ডন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য জেবুন্নেছা আক্তার, দিলিপ চন্দ্র রায়, সন্তোষ অধিকারী ও রফিকুল ইসলাম। হরিনচড়া ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আজিজুল ইসলাম,আওয়ামীলীগ নেতা তৈয়বুর রহমান, দিলীপ অধিকারী, রাসেল রানা, জাকারুল ইসলাম দুখু, আরিফুর রহমান মিলন ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম। সোনারায় ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ চৌধুরী, সাবেক চেয়ারম্যান ফজলুল হক সরকার ও জাপা নেতা তহিদুল ইসলাম। জোড়াবাড়ী ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আবুল হাসান, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এহতেশামুল হক, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি সব্যসাচী, শ্রমিক নেতা বুলবুল আলম বুলু ও সাবেক চেয়ারম্যান মনোয়ার হোসেন।বামুনিয়া ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান ওয়াহেদুজ্জামান বুলেট, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইদুল ইসলাম, সহ-সভাপতি মনোরঞ্জন রায় এবং সাবেক চেয়ারম্যান মমিনুর রহমান।

পাঙ্গা মটুকপুর ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান এমদাদুল ইসলাম,সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হাকিম ভূট্টু,বাবুল ইসলাম, আরিফুর রব্বানী লাজু ও নুর আলম বাবু। গোমনাতী ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল হামিদ, আফজাল হোসেন হিরু, বেলাল হোসেন, আব্দুর রহমান মাষ্টার ও আহমেদ ফয়সাল শুভ।ভোগডাবুড়ী ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান একরামুল হক, সাবেক চেয়ারম্যান মুরাদ আলী প্রামানিক, আবু তাহের, উপজেলা বিএনপির সভাপতি রেয়াজুল ইসলাম কালু, যুবলীগ নেতা একেএম জাহাঙ্গীর বসুনিয়া রাসেল, রাশেদুল ইসলাম প্রামানিক, রবাইয়াত হোসেন ডন ও নেওয়াজ মোর্শেদ। কেতকীবাড়ী ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান জহুরুল হক দিপু, সাবেক চেয়ারম্যান রাকিব আহসান প্রধান, আশিকুর রহমান, মাহবুবুর রহমান ও মজিবুল ইসলাম এবং ডোমার পৌরসভায় বর্তমান মেয়র মনছুরুল ইসলাম দানু, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ময়নুল হক, আওয়ামী লীগ নেতা আবু সুফিয়ান লেবু ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক গনেশ কুমার আগরওয়ালা।

চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীদের মধ্যে বেশির ভাগই আওয়ামীলীগের। তারা নিজেদেরকে নৌকার যোগ্য প্রার্থী হিসেবে দাবি করছেন। আসন্ন নির্বাচনে দলীয় প্রতিক পেতে অনেকে উপজেলা এবং জেলা নেতৃবৃন্দের সাথে যোগাযোগ রাখছেন।
উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ডোমার পৌর সভার সর্বশেষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় গত ২০১৬ সালের ৭ আগষ্ট এবং উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় গত ২০১৬ সালের ৭মে। উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা প্রায় দুই লাখ।

দলীয় প্রার্থীদের প্রতিক বরাদ্দের বিষয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ বলেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীদের সমর্থনে দলীয় প্রতিকের জন্য প্রার্থী নির্বাচন করা হবে।

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: