প্রচ্ছদ / সারাবিশ্ব / বিস্তারিত

পাল্টা ব্যবস্থায় ভারতের ওয়েবসাইটে প্রবেশ বন্ধ করল চীন

   
প্রকাশিত: ৮:৩৯ পূর্বাহ্ণ, ৪ জুলাই ২০২০

চীনের ৫৯টি অ্যাপ নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে ভারত। পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে এবার চীন বন্ধ করল ভারতের উইঅন ওয়েবসাইটের অ্যাকসেস। এবার থেকে চীনে এই ভারতীয় ওয়েবসাইট দেখা যাবে না বলে জানিয়েছ চীনা কর্তৃপক্ষ। ভারত-চীন সীমান্ত সংঘর্ষের জেরে উভয় দেশের ব্যবস্থা-পাল্টা ব্যবস্থা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর মধ্যেই সীমান্তের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় দুই দেশই একে অপরের চোখে চোখ রেখে দাঁড়িয়ে রয়েছে। এরই মাঝে রাতারাতি ৫৯টি চীনা অ্যাপ বাতিল ঘোষণা করে ডিজিটাল স্ট্রাইক ঘোষণা করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

ভারতের ব্যবস্থা গ্রহণের সেই পথে হেঁটেই এবার চীনের মূল ভূখণ্ডে উইওনিউজ অ্যাকসেস বন্ধ করে দিল চীন। চীনের ইন্টারনেট মনিটরিং সংস্থা জানাচ্ছে চীনে এই ওয়েবসাইটটি পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। মূলত এই ওয়েবসাইটটি লাদাখে চীনের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে লেখালেখি করছিল, তাতে ক্ষুব্ধ হয় বেইজিং। এরপরেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

মার্চ মাসেই চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জানিয়েছিলেন সোশ্যাল মিডিয়া থেকে ব্লক করা হয়েছে উইঅন ওয়েবসাইটকে। ভারতে চীনা রাষ্ট্রদূতও এই ওয়েবসাইটের চীনবিরোধী কনটেন্ট নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন। শুধু লাদাখে ভারত-চীন সংঘর্ষ নয়, করোনা বিস্তারে চীনের ভূমিকা নিয়ে এই ওয়েবসাইটের বিষয়বস্তু পছন্দ হয়নি বেইজিংয়ের। এ খবর দিয়েছে কলকাতা ২৪।

এর আগে, কথিত ‘ডিজিটাল স্ট্রাইক’ চালিয়ে মোদী সরকার চীনকে হাতে নয়, ভাতে মারতে উদ্যোগী হয়। সোমবার রাত থেকে ভারতে নিষিদ্ধ করা হয় চীনের সঙ্গে সম্পর্কিত ৫৯টি মোবাইল অ্যাপ। এর পরই এই ইস্যুতে বিবৃতি দেয় ভারত সরকার। আর সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, এসব অ্যাপের ডেটা গিয়ে জমা হত ভারতের বাইরে থাকা কোনো সার্ভারে। সেসব সার্ভার চীনে রয়েছে বলেই জানা যায়। তাই এসব অ্যাপ ভারতের নিরাপত্তার জন্য ক্ষতিকর হয়ে উঠছিল বলে অভিযোগ রয়েছে। এতে চীনকে উচিৎ শিক্ষা দেওয়া হবে বলেও মন্তব্য অনেক ভারতীয়র। লাদাখের গালওয়ান ভ্যালিতে চীনা হামলার পর থেকেই চীনা দ্রব্য বয়কট করার পক্ষে জনমত গড়ে ওঠে ভারতে।

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: