প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

মনজুরুল ইসলাম

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

পুলিশের পোশাক পরে বাবা-ছেলেকে অপহরণ চেষ্টা

   
প্রকাশিত: ১১:০৫ অপরাহ্ণ, ১ সেপ্টেম্বর ২০২০

ময়মনসিংহের নান্দাইলে পুলিশের পোশাক পড়ে মার্ডার মামলার আসামী বলে বাবা-ছেলেকে তুলে নেয়ার সময় দুইজনকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয়রা। এ সময় একজন পুলিশের পোশাক ফেলে পালিয়ে গেছে বলে জানা গেছে। আটককৃতরা হলেন, পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার রাওতারা মহিষ বাজার গ্রামের শামছুল হকের ছেলে নুরুল ইসলাম (৩০) ও নেত্রকোনা জেলার মোহনগঞ্জ উপজেলার টেংরাপড়া গ্রামের আলী হোসেনের ছেলে আকাশ (৩৫)। অন্য দিকে পালিয়ে যাওয়া ব্যক্তি হচ্ছে নান্দাইলের গাঙাইল ইউনিয়নের মৃত গোমেদ আলীর ছেলে মো. শাহজাহান মিয়া (৩০)।

সোসবার (৩১ আগস্ট) রাতে ময়মনসিংহের নান্দাইল-তাড়াইল আঞ্চরিক সড়কের বড়াইল নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আজ মঙ্গলবার (০১ সেপ্টেম্বর) দুপুরে বরকত উল্লাহ বাদী হয়ে তিনজনকে আসামী করে নান্দাইল থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে নান্দাইল থানার ওসি (তদন্ত) আবুল হাসেম বলেন, সোমবার রাত আটটার দিকে উপজেলার গাঙাইল ইউনিয়নের শ্রীরামপুর গ্রামের ইজিবাইক চালক মো. বরকত উল্লাহ (৫৫) তাঁর স্কুল পড়ুয়া ছেলে মো. আশরাফুল ইসলামকে (১৬) নিয়ে পাশের তাড়াইল উপজেলায় এক আত্মীয়ের বাড়ি যাচ্ছিলেন। গ্রামের সড়ক থেকে নান্দাইল-তাড়াইল পাকা সড়কে উঠলে ইজিবাইকটি ছেলের হাতে দেওয়া হয় চালিয়ে নেওয়ার জন্য। বড়াইল নামক স্থানে যেতেই একটি সাদা রঙের প্রাইভেটকার (ঢাকা মেট্রো-গ-৩৯-০২২৯) পথরোধ করে দাঁড়ায়।

তিনি বলেন, এ সময় প্রাইভেটকার থেকে পুলিশের পোশাক পড়ে একজন লাঠি হাতে নিয়ে গাড়ি থেকে বরকত উল্লাহ পিঠে লাঠি দিয়ে আঘাত করে বলে তোর নামে মার্ডার কেইস আছে, থানায় যেতে হবে। এ কথা বলে বাবা-ছেলেকে গাড়িতে উঠানোর সময় গাড়িতে থাকা যাত্রীরা নেমে চলে যায়। এক পর্যায়ে ভিতরেই প্রতিবাদ করলে তার বাবাকে রড দিয়ে পিটাতে থাকে। এ সময় চিৎকার দিলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি যাত্রীবাহী বাস প্রাইভেটকারটিকে আটকে দেয়। পরে দৌঁড়ে পালানোর সময় বাসের যাত্রীরা এবং স্থানীয়রা দুইজনকে ধরে গনধোলাই দিয়ে বেঁধে রাখে। খবর পেয়ে পুলিশ দুই ছিনতাইকারীকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

তিনি আরো বলেন, আহত বরকত উল্লাহকে উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আছেন। আটককৃত দুইজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়াও জব্দকৃত গাড়ি থেকে পুলিশের পোশাক জব্দ করা হয়েছে। অপরজনকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান চলছে বলেণ ও জানান তিনি।

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: