প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

সুমিত সরকার সুমন

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি

পুলিশ কনস্টেবল প্রেম অস্বীকার করায় বিষ খেয়ে শিক্ষার্থীর আত্মহত্যার চেষ্টা

   
প্রকাশিত: ১০:২১ অপরাহ্ণ, ৮ জুলাই ২০২০

পুলিশের এক কনস্টেবল প্রেম অস্বীকার করায় বিষ খেয়ে আত্নহত্যার চেষ্টা করেছে এক কিশোরী। বুধবার দুপুরে মূমূর্ষ অবস্থায় শশী পাল (১৬) নামের ওই শিক্ষার্থী শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। শিক্ষার্থী জানায়, সে সিরাজদিখান উপজেলার শেখর নগর গ্রামের উত্তম পালের মেয়ে এবং শেখর নগর রায় বাহাদুর ইনিস্টিটিশনের দশম শ্রেণীর ছাত্রী। শেখর নগর পুলিশ ফাঁড়ির কনস্টেবল জুলহাস তাকে প্রেম নিবেদন করে তার সাথে সম্পর্ক গড়ে তুলে। জুলহাস তাকে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে বিভিন্ন সময় ঘনিষ্ট সম্পর্ক স্থাপন করে। দেড় বছর ধরে তাদের এই সম্পর্ক চলে আসছিল। জুলহাস হঠাৎ বদলি হয়ে মুন্সীগঞ্জ পুলিশ লাইনে চলে যায় এবং শিক্ষার্থী সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। শিক্ষার্থী শেখর নগর পুলিশ ফাঁড়িতে বিচার নিয়ে গেলে সেখানে কর্মরত এএসআই আঃ হামিদ তাকে বিষয়টি পুলিশ সুপারকে জানাতে বলে। সে মঙ্গলবার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে গিয়ে প্রত্যাখাত হয়। বুধবার দুপুরে সে শেখরনগর থেকে শ্রীনগর ফায়ার সার্ভিসের সামনে এসে ইদুর মারার ট্যাবলেট খেয়ে আতহত্যার চেষ্টা করে। এসময় ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা তাকে উদ্ধার করে শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। শিক্ষাথী আরো জানায়, কনস্টেবল জুলহাসের বাড়ি সাভারের ধামরাইয়ে। সে বর্তমানে ছুটিতে রয়েছে

এব্যাপারে মোবাইল ফোনে কনস্টেবল জুলহাস জানান, তাকে শিক্ষার্থী ফোনে বিরক্ত করত। শিক্ষার্থী সাথে তার কোন প্রেমের সম্পর্ক নেই। শেখরনগর ফাঁড়ি পুলিশের এক কর্তকর্তার বুদ্ধিতে সে এমন করছে।

এব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজ আফজাল জানান, মেয়েটি গতকাল (মঙ্গলবার) আমার কাছে এসেছিল। সে দশম শ্রেনীর ছাত্রী। আমাদের শিশু ও নারী বান্ধন কর্মকর্তা এসএসআই মুক্তার সামনে তার অভিযোগ শুনি। কিন্তু সে তার বাবা মার নাম জানাতে পারেনি। খালার কাছে থাকলেও খালা শিক্ষতা করে জানালেও কোথায় শিক্ষকতা করে তা জানাতে পারেনি। তার কথা আমরা প্রায় দেড়-দুই ঘন্টা ধরে শুনেছি। যেহেতু সে অপ্রাপ্ত বয়স্ক এবং অসংলগ্ন কথা বার্তা বলছিল। তাই বুধবার তার অভিভাবকে সাথে নিয়ে আসতে বলা হয়েছিল। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ারও প্রতিশ্রতি দেয়া হয়েছিল। তাকে প্রত্যাখানের অভিযোগটি সঠিক নয়। এছাড়া তার আত্মহত্যার চেষ্টার কথা শুনে আমাদের শ্রীনগর থানা পুলিশ সেখানে ছুটে গিয়ে দ্রæত তার ওয়াসের ব্যবস্থা করে। তার কাছে পুলিশ বাবা-মার নাম্বার চাইলেও সে দিতে পারেনি। পরে বিকল্পভাবে তার বাবা মার সন্ধান করে তাদেরকে হাসপাতালে নিয়ে আসলে তারা জানায় তাদের মেয়ে কিছুটা মানষিক ভারসাম্যহীন।

তবে মেয়েটির মা জানিয়েছে, তার মেয়ের কোন মানসিক সমস্যা না থাকলেও গত ১০-১৫ দিন সে কিছুটা অপ্রকৃতিস্থ ছিল। এ নিয়ে তাকে ডাক্তারও দেখানো হয়েছে। আজ আত্মাহত্যার চেষ্টার পর তার মানসিক অপ্রকৃতিস্থতা সম্পকে বুঝতে পারি।

এসএ/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: