প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

মো. ইলিয়াস

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

বঙ্গবন্ধু এ দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য লড়াই করেছেন: মিয়া গোলাম পরওয়ার

   
প্রকাশিত: ২:১৯ অপরাহ্ণ, ১৪ জানুয়ারি ২০২১

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি এবং তিনি গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য লড়াই করছেন বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল মিয়া গোলাম পরওয়ার। বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারি) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে ২০ দলীয় জোট আয়োজিত এক স্মরণ সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

২০ দলীয় জো‌টের অন্যতম শ‌রিক সদ্য প্রয়াত বাংলা‌দেশ মুস‌লিম লীগ সভাপ‌তি এইচ এম কামরুজ্জামান খা‌ন ও জ‌মিয়‌তে ওলামা‌য়ে ইসলা‌মের মহাস‌চিব আল্লামা নুর হোসাইন কা‌সেমীর স্মরণ সভা ও দোয়া মাহ‌ফিলের আয়োজন করেছে জোট।

মিয়া গোলাম পরওয়ার বলেন, স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম কড়েছিলেন, জীবন দিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুর বিদায়ের পরে এ দেশে গণতন্ত্রের কথা যারা বলছেন, আমি মনে করি তারা সেই গণতন্ত্র রক্ষা করতে পারেননি। বঙ্গবন্ধু গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করে গেছেন, তার উত্তরসূরি যারা আছেন তারা গণতন্ত্রকে ধ্বংস করে দিয়েছেন, হত্যা করেছেন।

তিনি বলেন, সরকার এদেশের মানুষের ভোটাধিকার হরন করেছে, গণতন্ত্র হরন করেছে, বাকস্বাধীনতা হরন করছে। সংবাদপত্রের স্বাধীনতা হরন করেছে, দেশের সকল গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে সরকার ধ্বংস করে দিয়েছে।আমি পরিষ্কার করে বলতে চাই, বাংলাদেশের যারা ক্ষমতায় আছেন এই সরকার ফ্যাসিবাদী সরকার, জনগণের ভোটের মাধ্যমে তারা ক্ষমতায় আসেনি। এই সরকারের অধীনে ভোট নিরাপদ নয়। এখন দাবি উঠেছে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে।

জামায়াতের এই নেতা বলেন, এ সরকারের অধীনে স্বাধীনতা, ইসলামী মূল্যবোধ, জাতীয়তাবাদ কোন কিছুই নিরাপদ নয়। একটি বিদেশি আধিপত্যবাদের হাতে দেশকে তুলে দেয়ার জন্য সরকারের সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে।দেশের কল-কারখানা, শিল্পপ্রতিষ্ঠান সবকিছু বিদেশী শক্তির হাতে তুলে দেয়া হচ্ছে। এই করোনা মহামারির সময়ও বাংলাদেশে সীমাহীন দুর্নীতি করছে সরকার। এ সময়ে দুর্নীতি করে হাজার হাজার কোটি পতির জন্ম হয়েছে দেশে। তাই আমি বলি, একটি বিক্ষিপ্ত বিচ্ছিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলে আমাদের লাভ নেই। কথা একটাই, এই সরকারের এমন করুণ পরিণতি অপেক্ষা করছে সেটা তারা চিন্তাও করতে পারবে না।

বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ২০ দলীয় জোটের সমন্বয়ক নজরুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক, জামায়াতে ইসলামীর নেতা আবদুল হালিম, জাতীয় পার্টির (একাংশ) চেয়ারমান মোস্তফা জামাল হায়দার, বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, জাগপা’র (একাংশ) খোন্দকার লুৎফর রহমান, এনপিপির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, জাতীয় দলের চেয়ারম্যান এড. এহসানুল হুদা, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব আবদুল কাদের, ন্যাপ ভাসানীর চেয়ারম্যান এড.আজহারুল ইসলাম প্রমূখ।

এআইআর/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: