প্রচ্ছদ / অন্যান্য... / বিস্তারিত

বাংলা ভাষা নিয়ে আরএফএলের কর্মসূচি

   
প্রকাশিত: ৫:১২ অপরাহ্ণ, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে সচেতনতামূলক ‘৬৮’র বাংলা’ নামে একটি কর্মসূচি শুরু করেছে গৃহস্থালী পণ্য উৎপাদন ও বিপণনকারী প্রতিষ্ঠান আরএফএল। বাংলা ভাষার বিকৃত উচ্চারণ ও বিদেশি ভাষার সংমিশ্রণ নিয়ে মানুষকে সচেতন করা এবং তরুণ সমাজকে সম্পূর্ণভাবে বাংলা ভাষায় কথা বলতে আগ্রহী করে তুলতে এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার রাজধানীর বাড্ডায় প্রিমিয়ার প্লাজায় ‘৬৮’র বাংলা’ কর্মসূচি সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরেন আরএফএল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরএন পাল।
এসময় উপস্থিত ছিলেন- প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের সহকারী মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) জিয়াউল হক, ডিউরেবল প্লাস্টিক-এর বিপণন বিভাগের প্রধান রাশেদ উল আলম জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক (ব্র্যান্ড) ইসফাকুল হকসহ প্রতিষ্ঠানটির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

অনুষ্ঠানে আরএন পাল বলেন, মাতৃভাষার অর্জন ৬৮ বছরে পদার্পন করতে যাচ্ছে। কিন্তু ৬৮ বছরের এ যাত্রায় আমরা অনেকেই শুদ্ধভাবে একটানা ৬৮ সেকেন্ড বাংলায় কথা বলতে পারছি না। কথা বলার সময় আমরা বাংলা ভাষার বিকৃতি ঘটাচ্ছি এবং বিদেশি ভাষার সংমিশ্রন করছি। তাই সম্পূর্ণভাবে বাংলা ভাষায় কথা বলার বিষয়ে মানুষকে আগ্রহী করতে আমাদের এ কর্মসূচি।

তিনি আরও বলেন, আরএফএল দেশীয় একটি প্রতিষ্ঠান। গুণগত মানের কারনে আমাদের প্রতিটি পণ্য ভোক্তাদের আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। আমরা মনে করি, যে ভাষা স্বাধীনতার বীজ বপন করেছিল, সেই প্রিয় মাতৃভাষার মান অক্ষুন্ন রাখতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

ডিউরেবল প্লাস্টিক-এর বিপণন বিভাগের প্রধান রাশেদ উল আলম বলেন, কর্মসূচির অধীনে আমরা অনলাইনে একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছি। এজন্য বাংলা ভাষা, বইমেলা, ২১ ফেব্রুয়ারি ও ভাষা আন্দোলন- এই চারটি বিষয়ের যেকোন একটি বিষয়ে সম্পূর্ণভাবে ৬৮ সেকেন্ড বাংলায় কথা বলে তার ভিডিও পাঠাতে হবে rflplastics.com/68-r-bangla এই ঠিকানায়। সেখান থেকে সেরা ১০ জনকে দেয়া হবে আকর্ষণীয় পুরস্কার।

এছাড়া কর্মসূচির অধীনে সচেতনামূলক তথ্যচিত্র প্রচার, জনসাধারণের মাঝে প্রচারপত্র বিলি, বেস্ট বাইসহ আরএফএল এর বিভিন্ন বিক্রয়কেন্দ্রের মাধ্যমে প্রচারণাও চালাবে আরএফএল। কর্মসূচি চলবে ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: