প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

বাগেরহাটে বিষ দিয়ে একাধিক মৎস্য ঘের থেকে ২০ লাখ টাকার মাছ লুট

   
প্রকাশিত: ৬:০৫ অপরাহ্ণ, ২৬ মার্চ ২০২০

আব্দুল্লাহ আল ইমরান, বাগেরহাট থেকে: বাগেরহাটে দীর্ঘদিন ধরে এক সংঘবদ্ধ চোর চক্র বিষ দিয়ে একাধীক মৎস্য ঘেরের মাছ লুট করে নেয়ার ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাটি ঘটেছে বাগেরহাট সদর উপজেলার বেমরতা ইউনিয়নের খালকুলিয়া গ্রামে। এ বিষয়ে ভুক্তভোগীরা বাগেরহাট মডেল থানায় মামলা ও অভিযোগ দায়ের করেছেন।

মৎস্য ঘের মালিক বাগেরহাট সদর উপজেলার বেমরতা ইউনিয়নের খালকুলিয়া গ্রামের অজিৎ কুমার সাহার ছেলে অশোক কুমার সাহা মামলার এজাহারে জানান, বাগেরহাট সদর উপজেলার রঘুনাথপুর মৌজায় ০১ একর ৩০ শতক মৎস্য ঘেরে দীর্ঘদিন ধরে মাছ চাষ করে আসছেন। মৎস্য ঘেরে চিংড়ি চাষের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের সাদা মাছ ছাড়া হয়েছে। প্রতিদিনের ন্যায় গত সোমবার ভোর রাতে মৎস্য ঘেরে যায়। ঘেরের পশ্চিম পাশের ভেড়ী বাধের উপর বস্তা মাথায় নিয়ে স্থানীয় জাহাঙ্গীর শেখ, মাবুল মোল্লা, সবুজ শেখ সহ অজ্ঞাতনামা ২/৩ জনকে ঘের হতে বের হতে দেখি। আসামীদের হাতে থাকা রামদা,লাঠি সোটা দিয়ে ভয় ভীতি দেখালে আমি ডাক চিৎকার করি। আমার ডাকচিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসলে আসামীরা রাতের অন্ধকারে পালিয়ে যায়। আমিসহ স্থানীয়রা মৎস্য ঘেরে গিয়ে দেখেন পানিতে মৃত অবস্থায় অসংখ্য মাছ ভেসে রয়েছে। পরবর্তিতে আসামীদের খোজাখুজি করতে থাকি। এক পর্যায়ে আসামীদের কচুয়া উপজেলার সাইনবোর্ড বাজারস্থ বিকাশ চন্দ্র দত্ত এর মেসার্স চাচা ভাইপো মৎস্য আড়তে তাদের মাছ বিক্রী করতে দেখি। আসামীরা আমাকে দেখে দ্রুত পালিয়ে যায়।বিষয়টি কচুয়া উপজেলা চেয়ারম্যানকে জানালে তিনি আড়তে আসেন এবং ২২ হাজার ৩শত টাকার চিংড়ি সহ সাদা মাছ আটক করি। বাকি মাছ অন্যত্র বিক্রি করেছে বলে জানতে পারি। এতে আমার ঘেরে প্রায় ৩ লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন করে।

অপর মৎস্য আলমগীর মোল্লা জানান, বাগেরহাট সদর উপজেলার বেমরতা ইউনিয়নের খালকুলিয়া জামে মসজিদের পূর্ব পাশের্^ আড়াই বিঘার ঘেরটি করে। মঙ্গলবার সকালে তিনি মৎস্য ঘেরে গিয়ে দেখে ঘেরে থাকা রুই,কাতলা,বাগদা,গলদাসহ অসংখ্য মাছ মৃত অবস্থায় ভেসে রয়েছে। ঘেরের ভিতর বিষের ঘ্রানযুক্ত একটি প্রাস্টিকের বোতল পাওয়া যায়। এতে তার আনুমানিক ১ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মোঃ বাপ্প্রাজ মিনা জানান, খালকুলিয়া গ্রামে একটা সংঘবদ্ধ চোর গত এক মাসের মধ্যে ৭/৮ টি মৎস্য ঘেরে বিষ দিয়ে মাছ চুরি করে। এই এলাকাতে অধিকাংশ হিন্দু পরিবার বসবাস করে। এতে সাধারন মৎস্য চাষিদের মাঝে এক ধরনের আতঙ্ক বিরাজ করছে।

সকল ক্ষতিগ্রস্থ ঘের ব্যবসায়ীদের দাবি, তাদের ওই ঘের থেকে প্রায় ২০ লাখ টাকার মাছ দুর্বৃত্তরা বিষ প্রয়োগ করে ধরে নিয়ে গেছে। এতে আগামীতে আমরা ঘের চাষে সাহস করতে পারছি না। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের দ্রুত খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

এ বিষয়ে বাগেরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহাতাব উদ্দিন জানান, এ বিষয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: