মো: আজিনুর রহমান

লালমনিরহাট প্রতিনিধি

বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে ৬২ ট্রাক পাটবীজ আমদানি

   
প্রকাশিত: ৩:৫৫ অপরাহ্ণ, ৫ এপ্রিল ২০২০

কৃষি মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে ৬২ ট্রাক প্রায় ১২শ মেট্রিকটন ভারতীয় পাটবীজ আমদানি করা হয়েছে। বুড়িমারী স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের উপ-পরিচালক (ডিডি) মাহফুজুল ইসলাম শনিবার (০৪ এপ্রিল) বিকাল সাড়ে ৫ টায় পাটবীজ আমদানীর সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, করোনাভাইরাস পরিস্থিতি বিবেচনা করে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ওই দিনই রাত সাড়ে ১১ টা পর্যন্ত পাটবীজবাহী ট্রাক থেকে বীজের বস্তা গুলো খালাস করা হয়। চালকদেরকে কোথাও যেতে দেয়া হয়নি এবং ভারতে পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে গত ২২ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে সকল প্রকার পণ্য আমদানি- রফতানি কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করে লালমনিরহাট জেলা প্রশাসন। এ কারণে কৃষিজ পণ্যসহ পাটবীজ বোঝাই ট্রাক গুলো ওপারে ভারতের কোচবিহার জেলার চ্যাংড়াবান্ধা স্থলবন্দর এলাকায় আটকে ছিল এতদিন। অবশেষে সরকারি নির্দেশনায় কৃষিজ পণ্যসহ পাটবীজের ট্রাক গুলো দেশে আনা হয়।

বুড়িমারী স্থলবন্দর কাস্টমস্ সূত্র জানায়, কৃষি মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে শনিবার (৪ এপ্রিল) বুড়িমারী স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ, বিজিবি, উদ্ভিদ সংগনিরোধ কর্তৃপক্ষ, স্বাস্থ্য বিভাগ ও আমদানিকারক ব্যবসায়ীদের সহায়তায় ভারতীয় পাটবীজের গাড়ী গ্রহণ ও খালাস করা হয়েছে। ঢাকার জামাল সীড কোম্পানী, বিকাশ এন্টারপ্রাইজ প্রাইজ, নীলফামারীর বিশ্বাস এন্ড ব্রাদার্স, চাপাইনবাবগঞ্জের আঁখি সীড ভান্ডার, কোয়ালিটি সীড কোং, জেএফ এগ্রো লিমিটেড, রায় সীড কোম্পানী, পাবনার হাজী বীজ ভান্ডার, নিউ হাজী বীজ ভান্ডার, মীম বীজ ভান্ডার, রাসেল সীড কোংসহ বিভিন্ন আমদানি কারক প্রতিষ্ঠান এসব বীজ আমদানি করে।

বুড়িমারী স্থললবন্দর কাস্টমস্ সহকারী কমিশনার (এসি) সোমেন কুমার চাকমা বলেন, ‘কৃষি মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে ওপারে ভারতীয় পাটবীজবাহী আটকে থাকা গাড়ী গুলো গ্রহণ করা হয়েছে। যেহেতু এখন পাট বীজ বপনের সময় সেহেতু কৃষকদের স্বার্থেই পাটবীজ গুলো দ্রুত গ্রহণ করা হয়েছে।’

এআইআ/এইচি

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: