এ আর রাশেদ

ইবি প্রতিনিধি

মক্কা শরীফ ও জমজম কূপকে তাচ্ছিল্য, ইবি শিক্ষার্থীর বহিষ্কারের সুপারিশ

   
প্রকাশিত: ৬:১২ অপরাহ্ণ, ৩১ অক্টোবর ২০২০

পবিত্র মক্কা শরীফ ও জমজম কূপকে তাচ্ছিল্য করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) এক শিক্ষার্থীকে স্থায়ী বহিষ্কারের সুপারিশ করেছে কর্তৃপক্ষ। সাইফুল্লাহ আল হাদী নামের ওই শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবী ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র বলে জানা গেছে।

শনিবার (৩১ অক্টোবর) দুপুরে বিভাগীয় একাডেমিক সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। একইসাথে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে ওই শিক্ষার্থীর ছাত্রত্ব বাতিল ও তাকে আইনের আওতায় আনারও সুপারিশ করে সংশ্লিষ্ট বিভাগ।

জানা যায়, ৩০ অক্টোবর ইবি শিক্ষার্থী হাদী ফ্রান্সের পক্ষ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। এতে মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভুতির আঘাত হেনে পবিত্র মক্কা শরীফ ও জমজম কূপকে তাচ্ছিল্য করেন তিনি।

বিষয়টি ছড়িয়ে পড়লে শিক্ষার্থীদের ব্যাপক তোপেড় মুখে পড়েন তিনি। সাধারণ শিক্ষার্থীরা তাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার ও আইনের আওতায় নিয়ে আসার দাবি জানিয়ে বিভিন্ন স্ট্যাটাস দেন।এরপর ওইদিন রাতে হাদী তার ফেসবুক ওয়াল থেকে স্ট্যাটাসটি মুছে ফেলেন।

পরে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার বিষয়টি বিভাগের নজরে আসলে, একাডেমিক সভার সিদ্ধান্তের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিকট ওই শিক্ষার্থীর শাস্তির সুপারিশ করা হয়। এতে শিক্ষার্থীর ছাত্রত্ব বাতিল, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ী বহিষ্কার ও আইনের আওতায় আনার সুপারিশ করা হয়।

এ বিষয়ে আরবী ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. এম এম মনোয়ার আলী জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে জরুরী একাডেমিক সভা ডাকা হয়েছিল। সভায় অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় প্রশাসনের কাছে তার (হাদী’র) ছাত্রত্ব বাতিল, স্থায়ী বহিষ্কার ও তাকে আইনের আওতায় আনার সুপারিশ জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এস এম আব্দুল লতিফ বলেন, ‘এ বিষয়ে বিভাগ থেকে এখনো লিখিতভাবে কোন সুপারিশ হাতে পায়নি। পেলে উপাচার্য রবাবর নোট আকারে পাঠানো হবে। উপাচার্য মহোদয় এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিবেন।’

এআইআর/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: