মদিনা ও উম্মুল কোরা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ

   
প্রকাশিত: ৯:০৫ অপরাহ্ণ, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০

সাগর চৌধুরী, সৌদি আরব থেকে:  সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ্ সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) মদিনা ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস রেক্টর ডক্টর হোসাইন আল আবদালি এর সাথে সাক্ষাত করেছেন। এ সময় রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশী ছাত্রদের জন্য বৃত্তি বৃদ্ধি করায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে বিশেষ ধন্যবাদ জানান। এ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিমধ্যে ৬৯৩ জন বাংলাদেশী শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করেছেন এবং বর্তমানে ২০৬ জন শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করছেন বলে ভাইস রেক্টর জানান।

রাষ্ট্রদূত মদিনা ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয় আন্তর্জাতিক ভাবে বিখ্যাত ও উচ্চমানসম্পন্ন উল্লেখ করে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে আরো বেশি বাংলাদেশী ছাত্রদের পড়াশোনা করার সুযোগ দানের অনুরোধ জানান। বাংলাদেশী শিক্ষার্থীরা পড়াশোনায় অত্যন্ত ভালো এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় ভালো করছে বলে আন্তর্জাতিক ছাত্র বিষয়ক ডিন রাষ্ট্রদূতকে অবহিত করেন। রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে ছাত্র ও শিক্ষক বিনিময়ের লক্ষ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের প্রস্তাব দিলে ভাইস রেক্টর ডক্টর হোসাইন আল আবদালি সম্মতি প্রদান করেন । রাষ্ট্রদূত জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের বিভিন্ন ইসলামিক কবিতা, গান, হামদ, নাথ আরবিতে অনুবাদ করে গবেষণার প্রস্তাব দেন। গোলাম মসীহ বাংলাদেশের সাথে সৌদি আরবের সম্পর্ক অত্যন্ত চমৎকার বলে উল্লেখ করেন। আগামীদিনে এ সম্পর্ক আরো জোরদার হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন । এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের ডিন ও রিয়াদ বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রথম সচিব (প্রস) মো: ফখরুল ইসলাম বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে গতকাল রবিবার ২৩ ফেব্রুয়ারী পবিত্র মক্কা নগরীতে অবস্থিত উম্মুল কোরা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেক্টর ড. আব্দুল্লাহ বিন উমর বাফেল এর সাথে সাক্ষাত করেছেন। এ সময় বাংলাদেশী ছাত্রদের জন্য বৃত্তি বৃদ্ধি করায় রাষ্ট্রদূত বিশ্ববিদ্যালয়ের রেক্টরকে বিশেষ ধন্যবাদ জানান। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে বাংলাদেশী ২১৮ জন ছাত্র-ছাত্রী অধ্যয়ন করছে। রাষ্ট্রদূত রেক্টরকে বাংলাদেশী ছাত্রদের জন্য আরো বৃত্তি বৃদ্ধি করার অনুরোধ জানান। রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশী ইমামদের এ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশিক্ষণ প্রদানের অনুরোধ জানালে রেক্টর সম্মতি প্রদান করেন । গোলাম মসীহ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হবে বলে আশা প্রকাশ করেন। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেপুটি রেক্টর ড. আব্দুল ওয়াহহাব বিন আব্দুল্লাহ আর রসিনী ও জেদ্দাস্থ বাংলাদেশ কনসুলেট জেনারেলের কনসাল জেনারেল ফয়সাল আহমেদ ও বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রথম সচিব (প্রস) মো: ফখরুল ইসলাম বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: