প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

মাছ ব্যবসায়ী করতেন সিজারিয়ান অপারেশন, অতঃপর…

   
প্রকাশিত: ২:৫৬ অপরাহ্ণ, ১১ জুলাই ২০২০

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় গোলাম মোস্তফা কামাল (৩৬) নামের এক মাছ ব্যবসায়ী তার ক্লিনিকে নিজে ডাক্তার সেজে প্রসূতি মায়ের অপারেশন করার ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফাঁস হবার পর দারুণ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। প্রাথমিকের গণ্ডি পেরিয়েছে অনেক কষ্টে। ভর্তি হওয়া হয়নি মাধ্যমিকে। মাছের ব্যবসা আছে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌর শহরে। রয়েছে নিজ মালিকানাধীন একটি প্রাইভেট ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার। এ পর্যন্ত সব কিছুই ঠিক ছিল। তবে পিলে চমকানোর বিষয় হলো চিকিৎসক পরিচয়ে ওই ক্লিনিকে নিজেই প্রসূতি মায়েদের সিজার করতেন ঐ মাছ ব্যবসায়ী।

গত বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) বিকেলে পিরোজপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পীযুষ কুমার চৌধুরীর নেতৃত্বে র‌্যাব-৮ এর একটি দল অভিযান চালিয়ে তিনটি ক্লিনিকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি না থাকা, এমবিবিএস ছাড়া সিজারিয়ান অপারেশন করাসহ বিভিন্ন অনিয়মের কারণে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে অর্থদণ্ড এবং ভুয়া চিকিৎসক ও ক্লিনিকের মালিকসহ দুইজনকে কারাদণ্ড দিয়েছেন। উপজেলার ধানীসাফা বন্দরের আব্দুর রাজ্জাক সার্জিক্যাল ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভুয়া ডাক্তার আমির হোসেন ভূঁইয়া (৪৫) কে ৬ মাসের কারাদ- ও পৌর শহরের দক্ষিণ বন্দর মাছ বাজার সংলগ্ন মহিমা ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার এর মালিক মাছ ব্যবসায়ী গোলাম মোস্তফা (৪০) কে ভুয়া ডাক্তার দিয়ে অপারেশন করার অপরাধে ৩ মাসের কারাদণ্ড, ৩০ হাজার টাকা জরিমানা এবং ভুয়া ডাক্তার এ এইচ ভূইয়া সুজনকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা ও ৬ মাসের কারাদণ্ড এবং সৌদি প্রবাসী হাসপাতালে ভুয়া ডাক্তার আমির হোসেন ভূঁইয়াকে দিয়ে বিভিন্ন সময়ে অপারেশন করানোর অপরাধে ওই হাসপাতালের মালিক মো. মনির হোসেনকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এদিকে মহিমা ক্লিনিকের মালিক গোলাম মোস্তফার কারাদণ্ডের খবর ছড়িয়ে পড়লে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মোস্তফা অপারেশন থিয়েটারের পোশাক পরিহিত অবস্থায় গর্ভবতী মায়েদের সিজার করা ছবি সম্বলিত স্ট্যাটাস দেন। মঠবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আব্দুস সালাম আজাদী তাঁর আইডিতে লিখেছেন, ‘এই হচ্ছে মাছ মোস্তাফা যে মঠবাড়িয়ার মাছের আড়তের কেরানী। তার নিজের ক্লিনিকে নিজেই সিজারসহ অন্যান্য অপারেশন করেন।’ প্রবাসী সাইদুল হক খান বলেন, ‘আসুন মানুষের জীবন নিয়ে কসাই বাণিজ্যে যারা জড়িত তাদের মুখোশ উন্মোচন করি।’ স্থানীয়রা জানান, এর আগেও মোস্তাফার বিরুদ্ধে তার ক্লিনিকের নার্সকে যৌন হয়রানী, ভুয়া ডাক্তার দ্বারা অপারেশনে এক প্রসূতি মায়ের মৃত্যুর অভিযোগসহ নানা অভিযোগ রয়েছে।

আরএএস/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: