মোঃ আসাদুজ্জামান

বরগুনা প্রতিনিধি

‘মিন্নির মতো মেয়ে যেন আর কারো ঘরে না জন্মায়’

   
প্রকাশিত: ১১:২৫ পূর্বাহ্ণ, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০

রিফাত শরীফের বাবা আ. হালিম দুলাল শরীফ বলেছেন, মিন্নির মতো মেয়ে যেন আর কারো ঘরে না জন্মায়। এ মেয়েটার জন্য দুইটা ছেলের জীবন অকালে ঝরে গেছে আরও ২৪টা ছেলের জীবন ঝুলছে। আমি এই মেয়ের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড শাস্তি প্রত্যাশা করি।

বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) বরগুনা জেলা জজ আদালত চত্ত্বরে তিনি এসব কথা বলেন।

আ. হালিম দুলাল বলেন, এ ঘটনায় যারা জড়িত তাদের সর্বোচ্চ শাস্তি হোক আর যারা জড়িত না তারা মুক্তি পাক। তবে মিন্নির মতো মেয়ে যেন আর কারো ঘরে না জন্মায়। আমি প্রত্যাশা করি, মিন্নির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হোক। আমরা যেমন রিফাতের কবরের সামনে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকি। তার বাবা-মাও যেন কারাগারের গেটের সামনে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে।

উল্লেখ্য, বহুল আলোচিত বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির রায় ঘোষণা হবে আজ (৩০ সেপ্টেম্বর)। বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আছাদুজ্জামান এ রায় ঘোষণা করবেন।

এ মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক অন্য ১৪ আসামির বিরুদ্ধেও সাক্ষ্যগ্রহণ ও যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবারই বরগুনা নারী ও শিশু আদালতে এই সাক্ষ্যগ্রহণ ও যুক্তিতর্ক শেষ হয়।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে ৭৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। সব আসামির পক্ষে-বিপক্ষে আদালতে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন সংশ্লিষ্ট আইনজীবীরা। সব শেষে নিহত রিফাত শরীফের স্ত্রী, ১ নম্বর সাক্ষী থেকে ৭ নম্বর আসামি হওয়া আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির পক্ষে-বিপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে রায়ের দিন ধার্য করেন আদালত।

চার্জশিটভুক্ত প্রাপ্তবয়স্ক আসামি মো. মুসা এখনো পলাতক। বাকি আসামিরা হলেন রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইউম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হূদয় ওরফে টিকটক হূদয়, মো. হাসান, রাফিউল ইসলাম রাব্বি, মো. সাগর ও কামরুল ইসলাম সাইমুন। এই ১০ আসামির মধ্যে মিন্নি জামিনে আছেন। পলাতক মুসা ছাড়া বাকিরা আছেন কারাগারে।

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: