প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

মেয়াদোত্তীর্ণ কোকাকোলা-স্প্রাইটের মেয়াদ যেভাবে বাড়ানো হচ্ছে!

   
প্রকাশিত: ১১:১২ অপরাহ্ণ, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০

কোমল পানীয়ের গায়ে কোম্পানির দেয়া মেয়াদ শেষ। তাই নেলপলিশ রিমুভার দিয়ে মুছে সেখানে ফের মেয়াদের সিল দিয়ে বাজারজাত করা হয়। এভাবে দীর্ঘদিন ধরে দেশের নামিদামি কয়েকটি ব্র্যান্ডের মেয়াদোত্তীর্ণ কোমল পানীয়ের গায়ে নতুন তারিখযুক্ত সিল বসিয়ে দিয়ে প্রতারণা করে ব্যবসা পরিচালনা করছেন। বৃহস্পতিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) গোপন সংবাদের ভিত্তিতে হাটহাজারী পৌরসভার ফটিকা এলাকায় ডায়মন্ড টার্চ সংলগ্ন আব্দুল মোনেম লিমিটেড নামের এমনি একটি কোমল পানীয়ের গুদামের সন্ধান পায় ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নেতৃত্ব দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, পৌর প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রুহুল আমিন। এ সময় ওই কোমল পানীয়ের গুদামে অভিযান চালিয়ে প্রায় আড়াই হাজার লিটার মেয়াদোত্তীর্ণ কোমল পানীয় জব্দ করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। প্রায় দুই ঘণ্টার এ অভিযানে গুদাম থেকে কোকাকোলা, স্প্রাইট, ফিজ আপসহ কয়েকটি নামিদামি ব্রান্ডের মেয়াদোত্তীর্ণ প্রায় আড়াই হাজার লিটার কোমল পানীয় জব্দ করা হয়। অভিযান পরিচালনাকালে গুদামের এজেন্ডার বিকাশ কান্তি নাথ পালিয়ে যায়। ম্যানেজার টিটু নাথ নামে একজনকে পাওয়া যায়। তাকে ভ্রাম্যমাণ আদালত ৫০ হাজার টাকা জরিমানা এবং গুদামটি সীলগালা করে দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে ইউএনও আমিন রুহুল আমিন জানান, এসব মেয়াদোত্তীর্ণ কোমল পানীয়ের গায়ে কোম্পানির দেয়া মেয়াদের তারিখ নেলপলিশ রিমুভার দিয়ে মুছে সেখানে ফের মেয়াদের সিল দেয়া হচ্ছিলো। অভিযান চলাকালে ম্যানেজার টিটু নাথ জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন, মেয়াদোত্তীর্ণ কোমল পানীয় গুদামে এনে কোম্পানির দেয়া মেয়াদের তারিখ নেলপলিশ রিমুভার দিয়ে মুছে সেখানে ফের মেয়াদের সিল লাগিয়ে খুচরা বিক্রেতাদের কাছে বিক্রি করেন তারা। মেয়াদোত্তীর্ণ এসব কোমল পানীয় পান স্বাস্থ্যের জন্য নিরাপদ নয় বলে জানান তিনি। তিনি আরও জানান, এক্ষেত্রে তারা বাড়তি মেয়াদের নতুন তারিখযুক্ত দুটি সিল বানিয়ে নেন। দোকানের ম্যানেজার ও স্টাফদের সহযোগিতায় গোপনে নেইল পলিশ রিমোভার দিয়ে মেয়াদোত্তীর্ণ বোতলের তারিখ মুছে নিমিষেই নতুন তারিখ বসিয়ে দেয়া শুরু করেন।

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: