প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

সোলায়মান বাবু

সরিষাবাড়ী প্রতিনিধি

যৌতুক না দেয়ায় স্ত্রীর গর্ভের সন্তান নষ্ট করে দিলো স্বামী

   
প্রকাশিত: ৮:৫৯ অপরাহ্ণ, ৪ ডিসেম্বর ২০২০

জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে যৌতুক না দেয়ায় স্বামী ও তার পরিবার সাড়ে ৩ মাসের গর্ভের সন্তান নষ্ট করার অভিযোগ তুলেছেন স্ত্রী সাফেলিন আক্তার (২৩)। শুক্রবার (৪ ডিসেম্বর) সকাল ১১টায় সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন সাফেলিন আক্তার সাংবাদিকদের কাছে তার স্বামী হাফিজুর রহমান এবং তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেন।

চিকিৎসাধীন সাফেলিন আক্তারের মা পারভীন বেগম জানান, উপজেলার ডোয়াইল ইউনিয়নের মাজালিয়া গ্রামের হেলাল উদ্দিনের পুত্র হাফিজুর রহমানের সাথে একই ইউনিয়নের রামচন্দ্রখালী গ্রামের মৃত ছানোয়ার হোসেনের কন্যা সাফেলিন আক্তারের বিয়ে হয়। প্রায় ছয় মাস পূর্বে সাফেলিন আক্তারের সাথে মাজালিয়া গ্রামের হাফিজুর রহমানের সাথে এক লক্ষ ৩০ হাজার টাকা ও এক ভরি স্বর্ণের গহনা যৌতুকে বিয়ে হয়। বিয়ের কিছু দিন পরে সাফেলিন আক্তারের পিতা ছানোয়ার হোসেন মারা যান। এর পর থেকে জামাতা হাফিজুর রহমান অতিরিক্ত যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকে। একপর্যায়ে আমার মেয়েকে শারীরিক এবং মানষিক ভাবে নির্যাতন করে। ইতোমধ্যে সাফেলিন আক্তার সাড়ে ৩ মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে তার স্বামী হাফিজুর রহমান, তার পিতা হেলাল, চাচা সাইফুল ইসলাম, মা রওশনারা বেগম, খালাত বোন রতœা খাতুন, খালা ঝরুয়া বেগম পরিকল্পিত ভাবে গর্ভঃপাত করার চক্রান্ত করে। তারা গত (২রা ডিসেম্বর) বুধবার রাতে তারা জোর পূর্বক ভাবে ঔষধ খাইয়ে দিয়ে সাফেলিন আক্তারের গর্ভপাত করায়। এতে গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে পড়ে সাফেলিন আক্তার। বিষয়টি জানার পর তার মা পারভীন বেগম, খালু মানিক মিয়া, খালা পারুল ও আত্মীয় মান্নানকে সাথে নিয়ে অসুস্থ্য সাফেলিন আক্তারকে দেখতে এলে হাফিজুর রহমান ও তার পরিবারের সদস্য তাদের সাথে খারাপ আচরণ করে। পরে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় অসুস্থ্য সাফেলিন আক্তারকে বন্দিদশা থেকে উদ্ধার করে গত বৃহস্পতিবার (৩রা ডিসেম্বর) রাতে সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

ভূক্তভোগী গৃহবধু সাফেলিন আক্তার হাসপাতালের বেডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জানান, আমার স্বামী হাফিজুর রহমান আমাকে স্ত্রীর পূর্ণ মর্যাদা না দিয়ে অতিরিক্ত ২লক্ষ টাকা যৌতুকের জন্য প্রতিনিয়িত আমার উপর মানসিক ও শরীরিক নির্যাতন করে। ওই যৌতুকের টাকা আমার পরিবারের কাছ থেকে এনে না দেয়ায় দফায় দফায় মারপিটসহ আমাকে ডিভোর্স দেয়ার হুমকি দেয়। যৌতুন এনে না দেয়ায় তারা আমার গর্ভে থাকা সাড়ে ৩ মাসের সন্তান গর্ভপাত করার জন্য জোর করে আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে ঔষধ খাইয়ে দিয়ে সন্তান নষ্ট করিয়েছে। আমি যৌতুক আইনে ও সন্তান নষ্ট করার বিচার চেয়ে মামলা দায়ের করব। আমি প্রশাসনের কাছে আমার স্বামী হাফিজুর রহমান ও যারা আমার সন্তান নষ্ট করার সাথে জডিত তাদের আইনের আওতায় এনে তাদের বিচার দাবি করছি।

এআইআর/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: