রাবিতে সকল নিয়োগ প্রক্রিয়া স্থগিত রাখার দাবি শিক্ষকদের

   
প্রকাশিত: ৭:১৯ অপরাহ্ণ, ২৬ নভেম্বর ২০২০

কামরুল হাসান অভি, রাবি থেকে: বর্তমান বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে দুর্নীতিগ্রস্ত অবহিত করে এর অপসারণ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে চলমান সকল নিয়োগ প্রক্রিয়া স্থগিত রাখার দাবি জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে রাজশাহী ‍বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষকসমাজের একাংশ। আজ বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনস কমপ্লেক্সে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি জানান তারা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে শিক্ষক প্রতিনিধিরা বলেন, বিভিন্ন গণমাধমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে আমরা জানতে পেরেছি বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন গঠিত তদন্ত কমিটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অনিয়মের ২৫টি অভিযোগের সত্যতা পেয়েছেন এবং বর্তমান উপাচার্যসহ প্রশাসনের কতিপয় ব্যক্তিকে দায়ী করেছেন। পাশাপাশি কমিশন দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণসহ প্রাসঙ্গিক কিছু সুপারিশও প্রদান করেছে। গত ২৯ অক্টোবর এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী মন্ত্রণালয়ে তদন্ত প্রতিবেদন পৌছার বিষয়টি নিশ্চিত করেন এবং তদন্ত প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহন করবেন বলে জানান।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের তদন্তে অনিয়ম-দুর্নীতি প্রমাণিত হওয়ায় বর্তমান বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন নিয়োগ কার্যক্রম পরিচালনার নৈতিক ভিত্তি হারিয়েছে বলে জানান শিক্ষকরা এবং তদন্ত প্রতিবেদন সম্পর্কে সরকার কোন সিদ্ধান্ত গ্রহনের পূর্বে সকল নিয়োগ প্রক্রিয়া স্থগিত রাখার আহ্বান জানান তারা।

বিশ্ববিদ্যালয়ে চলমান এসব নিয়োগ প্রক্রিয়ার মধ্যে রয়েছ ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট ও ফলিত গণিত বিভাগে প্রভাষক পদে নিয়োগ,বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রে ১৩জন মেডিকেল অফিসার এবং আরো ১৪টি পদে নিয়োগ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার অব এক্সেলেন্স এন্ড লার্নিং এ ৪টি পদে নিয়োগ।

এছাড়াও শিক্ষকগণ জানান, করোনা পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সকল কাজ চললেও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাক্ট ১৯৭৩ অনুযায়ী ৬টি অথরিটি এবং ১২টি পদে ডীন পদে নির্বাচন সম্পন্ন না করেই নজিরবিহীনভাবে ৫০৩তম সিন্তিকেটে শিক্ষক প্রতিনিধি ছাড়াই নিয়োগ বোর্ড গঠন করা ও নিয়োগ সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। এমতাবস্থায় দ্রুততম সময়ের মধ্যে অথরিটি ও ডীনসমূহের নির্বাচন সম্পন্ন করে আইন অনুযায়ী সিক্তিকেট পরিচালনা ও নিয়োগ বোর্ড গঠনের দাবিও জানান তারা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূ-তত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের সুলতান-উল-ইসলাম এর সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন মনোবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মজিবুল হক আজাদ, বাংলা বিভাগের সফিকুন্নবী সামাদী, ইংরেজী বিভাগের আব্দুল্লাহ আল মামুন, প্রাণ রসায়ন ও অনুপ্রাণবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক জাহাঙ্গীর আলম, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক এসএম এক্রাম উল্যাহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এআইআর/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: