প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

মনজুরুল ইসলাম

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

রাস্তার পাশে পড়ে ছিল মানুষের কাটা পা

   
প্রকাশিত: ৭:২০ পূর্বাহ্ণ, ৮ আগস্ট ২০২০

ছবি: প্রতিনিধি

ময়মনসিংহের নান্দাইলে আত্মীয়ের বাড়িতে যাবার পথে শামীম ভূঁইয়া (৩৮) নামে এক যুবকের পা কেটে নেয়ার চারদিন পর উদ্ধার করা হয়েছে। ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার মাইজবাগ ইউনিয়নের ভাসা গোকূলনগর এলাকা থেকে শুক্রবার (৭ আগষ্ট) সকালে সেই বিচ্ছিন্ন পা উদ্ধার করে পুলিশ। শামীম ভূঁইয়া পার্শ্ববর্তী নান্দাইল উপজেলার কানুরামপুর গ্রামের নূরুল ইসলাম ভূঁইয়ার ছেলে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ সড়কের ঈশ্বরগঞ্জের মাইজবাগ ইউনিয়নের ভাসা গোকূলনগর এলাকার রাস্তার পাশে বিচ্ছিন্ন পা পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয় লোকজন।

পরে স্থানীয়রা থানায় খবর দিলে ময়মনসিংহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গৌরীপুর সার্কেল) সাখের হোসেন সিদ্দিকীর নেতৃত্বে পুলিশের টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে বিচ্ছিন্ন পা উদ্ধার করে। পরে পুলিশ নিশ্চিত হয়েছেন গত সোমবার (৩ আগষ্ট) রাতে শামীম ভুঁইয়ার পা কেটে নেয়া হয়েছিল।

পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ঈদ উপলক্ষে প্রবাসফেরত শামীম ভূঁইয়ার ভাই রুবেলকে নিয়ে গত সোমবার (৩ আগষ্ট) সন্ধ্যার দিকে এক আত্মীয়ের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। পথে তাদের বহন করা সিএনজিচালিত অটোরিকশাটি কানুরামপুর পশ্চিম বাস স্টপেজে থামে।

ওই সময় ১০-১২ জন দুর্বৃত্ত সিএনজি চালিত অটোরিকশাটি ঘেরাও করে দুই ভাইকে মারধর করতে থাকে। এক পর্যায়ে শামীমকে সিএনজি থেকে টেনে হিঁছড়ে নামিয়ে সড়কের ওপর ফেলে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপাতে শুরু করে। এক পর্যায়ে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে শামীমের ডান পা কেটে নেওয়া হয়। বা পায়েও কুপিয়ে জখম করা হয়।

ওই ঘটনায় শামীমের ভাই রুবেল ভুঁইয়া বাদি হয়ে গত মঙ্গলবার (৪ আগষ্ট) ২৬ জনকে আসামি করে নান্দাইল মডেল থানায় মামলা করেন। ওই মামলায় জান্নাত উল্লাহ (২৮) নামে এক আসামিকে পুলিশ ইতোমধ্যে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠিয়েছে।

শামীম ভূঁইয়ার ভাই রুবেল ভুঁইয়া বলেন, নান্দাইলের মোয়াজ্জেমপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন মোর্শেদ আলী। গত বছরের ১ ফেব্রুয়ারী রাতে কানুরামপুর বাসস্ট্যান্ডের পাশে বাড়িতে যাবার পথে প্রতিপক্ষের হাতে খুন হন মোর্শেদ আলী।

পরে হত্যা মামলার আসামি হয়ে শামীম ভূঁইয়া জামিনে ছিলেন। এইজন্যই প্রতিপক্ষের লোকজন দুই ভাইয়ের ওপর হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ তার।

ময়মনসিংহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গৌরীপুর সার্কেল) সাখের হোসেন সিদ্দিকী বলেন, পা কেটে নেয়ার ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। এক আসামিকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠিয়েছে। বিশজন আসামি আদালত থেকে জামিন নিয়েছেন।

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: