রিজেন্টের শাহেদের ব্যক্তিগত গাড়িতে ফ্ল্যাগ স্ট্যান্ড-হুটার

   
প্রকাশিত: ৯:৪৭ পূর্বাহ্ণ, ৮ জুলাই ২০২০

করোনাকালে অনুমোদনহীন রিজেন্ট হাসপাতালে করোনা চিকিৎসা ও টেস্টের নামে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়াই নয়, গাড়িতে ফ্ল্যাগ স্ট্যান্ড ও হুটার ব্যবহার করতেন শাহেদ। ছিলো সরকারি দপ্তরের স্টিকারও। কাউকে তোয়াক্কা না করে অবৈধভাবে ব্যবহার করেছেন দিনের পর দিন। করোনা মহামারিতে চিকিৎসা ও টেষ্টের নামে জালিয়াতি গেলো দুদিন ধরেই আলোচনায় রিজেন্ট হাসপাতাল ও মো. শাহেদ। অভিযানে সাহেদের ব্যাক্তিগত গাড়িটিও জব্দ হয়। সাদা রংয়ের এক্সিও মডেলের গাড়িটির রেজিষ্টেশনও নেই। তার গাড়িটির একটি ফ্ল্যাগ ষ্ট্যান্ডও আছে।

বাংলাদেশ ফ্ল্যাগ রুলস, ১৯৭২ এর সংশোধন হয় ২০১০-এ। মন্ত্রীপরিষদ বিভাগ কর্তৃক বাংলাদেশের পতাকা বিধিমালায় স্পষ্টভাবে উল্লেখ আছে, কারা ব্যবহার করতে পারবেন। যার মধ্যে শাহেদ কোনভাবেই তা ব্যবহার করতে পারেন না। গাড়িটিতে আছে সাইরেন বাজানোর হুটার, যা জরুরি সেবা অথবা আইনশৃংখলা রক্ষায় নিয়োজিত থাকে এমন গাড়িতে ব্যবহার করার নিয়ম। শুধু তাই নয় গাড়ির গ্লাসও কালো করা হয়েছে, যা অইনত অপরাধ। রোগী বহনকারী অ্যাম্বুলেন্স ও আইনশংখলা রক্ষায় নিয়োজিত গাড়ি এবং জরুরি সেবার গাড়ি ব্যতীত অন্য কোনো বেসরকারি সংস্থা বা ব্যক্তির গাড়িতে হুটার ও বিকন লাইট ব্যবহার করা যাবে না, ধরা পড়লেই শাস্তি নিশ্চিত। নিয়ম যাই হোক গাড়িতে ফ্ল্যাগ ষ্ট্যান্ড এবং হুটার ব্যবহার করেই শাহেদ ঘুরে বেরিয়েছেন নিদের পর দিন।- ডিবিসি নিউজ

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: