প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

মোঃ মোস্তফা কামাল

লেখক, গবেষক ও প্রাবন্ধিক

শাহজাহান সিরাজের মৃত্যুতে আতাউল মাহমুদের শোক

   
প্রকাশিত: ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ, ১৫ জুলাই ২০২০

স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠক ও বিএনপির সাবেক নেতা শাহজাহান সিরাজের মৃত্যুতে শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় উপকমিটির সাবেক সহসম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আতাউল মাহমুদ। গণমাধ্যমে দেওয়া এক শোক বার্তায় তিনি শাহজাহান সিরাজের বিদেহি আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন রাজনৈতিক নেতা শাহজাহান সিরাজ (৭৭), (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ক্যান্সারসহ বাধর্ক্যজনিত বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। বুধবার (১৫জুলাই) তার মরদেহ টাঙ্গাইলের কালিহাতীর নিজ গ্রামে নেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন রাবেয়া সিরাজ। শাহজাহান সিরাজ ১৯৪৩ সালের ১ মার্চ টাঙ্গাইলে জন্মগ্রহণ করেন।

ষাটের দশকে ছাত্রলীগের মাধ্যমে রাজনীতিতে শুরু করেন তিনি। মুক্তিযুদ্ধের আগে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ছাত্র আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা ছিলেন। বিএনপি সরকারের সময় বন ও পরিবেশ মন্ত্রী ছিলেন তিনি। শাহজাহান সিরাজ ছিলেন বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। তিনি মুক্তিযুদ্ধকালীন অন্যতম ছাত্রনেতা ছিলেন। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি তিন বার জাসদের মনোনয়নে এবং এক বার বিএনপির মনোনয়নে সংসদ সদস্য নিবাচিত হয়েছিলেন। এছাড়া তিনি ২০০১ সালের নির্বাচনের পর খালেদা জিয়ার সরকারে বন ও পরিবেশ মন্ত্রী ছিলেন।

শাহজাহান সিরাজ ছাত্রলীগের নেতা হিসেবে ১৯৭১ সালের ৩ মার্চ ছাত্র সমাজের পক্ষে পড়েছিলেন স্বাধীনতার ইশতেহার। মুজিব বাহিনীর কমান্ডার হয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন তিনি। তবে স্বাধীনতার পর ছাত্রলীগ ছেড়ে জাসদ গঠনে ভূমিকা রাখেন শাহজাহান সিরাজ।

জাসদ ভেঙে কয়েকটি ভাগ হলে একটি অংশের নেতৃত্ব ছিলেন শাহজাহান সিরাজ। ১৯৯৫ সালে দল নিয়ে বিএনপিতে যোগ দেন তিনি। ২০০১ সালের নির্বাচনের পর খালেদা জিয়ার সরকারের মন্ত্রী হন তিনি। টাঙ্গাইল-৪ আসন থেকে কয়েকবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।

গত কয়েক বছর তিনি শারীরিক অসুস্থতার কারণে রাজনীতিতে নিষ্ক্রিয় ছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী রাবেয়া সিরাজ, মেয়ে সারোয়াত সিরাজ ও ছেলে রাজীব সিরাজসহ অসংখ্য শুভাকাঙ্খী রেখে গেছেন।

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: