প্রচ্ছদ / অপরাধ / বিস্তারিত

শাহেদ নিজের মায়ের নাম নিয়েও করেছেন প্রতারণা

   
প্রকাশিত: ৮:১৪ পূর্বাহ্ণ, ১৭ জুলাই ২০২০

বহুল আলোচিত রিজেন্ট হাসপাতাল প্রতারণা মামলার আসামি ও রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান শাহেদ করিম বিভিন্ন টকশো ও প্রভাবশালী ব্যক্তিদের নাম ভাঙানো আর হাসপাতাল ব্যবসা ব্যবহার করেই ওপরে উঠে আসেন। বিভিন্ন স্থানে সুবিধাজনক পরিচয় দিতেন শাহেদ করিম। কখনো তিনি নিজেকে আমলা, সামরিক কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতা, মন্ত্রী-নেতাদের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচয় দিয়েছেন বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জানিয়েছে। প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সাথে তোলা ছবি ব্যবহার করে তিনি নিজেকেও প্রভাবশালী বলে তুলে ধরতেন।

শুধু তাই নয়, শাহেদ করিম বিভিন্ন নামে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছেন। ব্যাংকগুলোর বিভিন্ন নথিপত্র অনুযায়ী জানা যায়, তার প্রকৃত নাম শাহেদ করিম। বাবা সিরাজুল করিম ও মা ‘মাফিয়া’ করিম। আবার কোনো ব্যাংকে মায়ের নাম ‘সাফিয়া’ করিম হিসেবেও উল্লেখ করেছেন। তার ঠিকানা ঢাকার আসাদ গেটের ১০৮/১ আসাদ অ্যাভিনিউ।

করোনা ভাইরাস পরীক্ষা না করেই সার্টিফিকেট দেওয়াসহ নানা প্রতারণার অভিযোগে রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান শাহেদ করিমকে প্রধান আসামি করে ১৭ জনের বিরুদ্ধে গত ৭ জুলাই উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা করে র‌্যাব। সেই মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ মামলায় গ্রেফতার হয়ে কারাগারে আছেন মোট আটজন।

এ মামলায় বুধবার (১৫ জুলাই) ভোর সাড়ে ৫টার দিকে সাতক্ষীরার দেবহাটা সীমান্ত পাড়ি দেয়ার সময় অবৈধ অস্ত্রসহ তাকে গ্রেফতার করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। তার বিরুদ্ধে দেবহাটা থানায়ও অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

গত ৬ জুলাই রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর কার্যালয়ে অভিযান চালায় র‌্যাব। পরীক্ষা ছাড়াই করোনার রিপোর্ট ও সনদ দিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছিল হাসপাতালটি। পরে ৭ জুলাই স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশে রিজেন্ট হাসপাতালের দুই শাখা ও তার মূল কার্যালয় সিলগালা করে দেয়া হয়।

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: