প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

এম. সুরুজ্জামান

শেরপুর প্রতিনিধি

শেরপুরে পাহাড় কেটে ড্রেন নির্মাণের অভিযোগে সরঞ্জাম জব্দ

   
প্রকাশিত: ৮:২০ অপরাহ্ণ, ৩১ মার্চ ২০২০

শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার সীমান্তবর্তী গারো পাহাড় এলাকায় অবৈধভাবে পাহাড় কেটে ড্রেন তৈরীর জন্য বন বিভাগ থেকে মাটি খুড়ার অভিযোগে ভেকু মেশিনসহ অন্যান্য সরঞ্জাদি জব্দ করা হয়েছে। গারোকোনা-হলদীগ্রাম কাঁচা বাজারের কাছাকাছি মধুটিলা রেঞ্জের আওতায় শেরপুরের একজন বিচারকের গাড়ি চালক আব্দুল বাতেনের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরে সরকারি জমি দখল করে লেবু ও মাল্টা বাগান করার অভিযোগ ছিল।

এরই পেক্ষিতে সোমবার (৩০ মার্চ) শেরপুর জেলা সহকারি বন সংরক্ষণ দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ড. প্রান্তুষ চন্দ্র রায়, মধুটিলা রেঞ্জকর্মকর্তা আব্দুল করিমসহ বন বিভাগের অন্যান্য ফোর্স নিয়ে উপস্থিত হয়ে সরকারি জমি ও পাহাড় কেটে ড্রেন তৈরীর সময় হাতে নাতে ধরে একটি ভেকু মেশিন, শাবল ও বালতি জব্দ করেন।

স্থানীয়দের সুত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন থেকেই সিজিএম এর গাড়ি চালক ওই গ্রামের আব্দুল বাতেনের বিরুদ্ধে জমি দখলসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া তিনি সরকারি জমি দখল করে ইতিমধ্যে লেবু বাগান ও মাল্টা বাগান করারও অভিযোগ রয়েছে। এরপরও নতুন করে পাহাড় কেটে সরকারী জমি দখলের পায়তারা করছিল।

হলদীগ্রামের বাসিন্দা আবদুল্লাহ জানান, আব্দুল বাতেন নিজস্ব টাকায় জমি ক্রয় করে লেবু মাল্টা ও অন্যান্য বাগান দীর্ঘদিন ধরে চাষ করছেন। পরে জানা যায় কিছু সরকারি জমি জোর করে দখল করেছেন এবং এসব তথ্য বন বিভাগ জেনে ইতিপূর্বেও তাকে সতর্ক করেছিলেন। কিন্তু সতর্ক করার পরও তিনি জমি দখলে অটল ছিলেন। এ কারণে সোমবার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের লোকজন এসে এসব জব্দ করে নিয়ে যায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন বলেন, তার বিরুদ্ধে কেউ কথা বলবে, সে তাকেই মামলার ভয় দেখায়। এই ভয়ে কেউ কিছু বলতে চায়না।

জেলা বনকর্মকর্তা ড. প্রান্তুষ চন্দ্র রায় বলেন, আমরা সরকারি কর্মচারী, আমাদের দায়িত্ব হলো সরকারি বনাঞ্চল রক্ষা করা। আমি স্থানীয় বনাঞ্চল কর্মকর্তার সংবাদের ভিত্তিতে তাদেরকে সঙ্গে নিয়ে সরকারি বনাঞ্চল রক্ষার জন্য দ্রুত ছুটে যাই এবং অভিযোগের উপর ভিত্তি করে পর্যবেক্ষণ করি। এসে দেখি হলদী গ্রামবাসী শেরপুরে একজন বিচারকের গাড়ি চালক আব্দুল বাতেন সরকারি জমি দখল করে ড্রেন নির্মাণ ও লেবু মাল্টা বাগান করে নিজস্ব আয়ত্ত্বে আনার চেষ্টা করছেন। সেখান থেকে একটি মাটি কাটা ভেকু মেশিনসহ অন্যান্য জিনিসপত্র জব্দ করা হয়। সরকারি জমি দখলকারি বাতেনকে আটক করতে পারিনি। তবে তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের উপর ভিত্তি করে মামলা দায়ের করা হবে।

অভিযুক্ত বাতেনের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করে জানতে চাইলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, আমি পাহাড় কাটি নাই বা বন বিভাগের কোন জমিও দখল করি নাই। আমার নিজের জায়গা দিয়েই আমি ড্রেন করছিলাম লেবুর বাগানে যাতে পাহাড়ি ঢলে পানি ঢুকে বাগানের ক্ষতি না হয় এ জন্য।

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: