প্রচ্ছদ / অপরাধ / বিস্তারিত

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হাসপাতালে অভিযান, জরিমানা

   
প্রকাশিত: ৬:০২ অপরাহ্ণ, ১১ আগস্ট ২০২০

নানা অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার অভিযোগ এনে গাজীপুরের চান্দনা চৌরাস্তা এলাকাস্থ সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অভিযান চালিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। গেল সোমবার (১০ আগস্ট) দুপুরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় গঠিত টাস্কফোর্স র‌্যাবের সহায়তায় এ অভিযান পরিচালনা করে। হাসপাতালটি সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও সংসদ সদস্য মহীউদ্দীন খান আলমগীরের মালিকানাধীন।

এসময় মেয়াদ উর্ত্তীণ সার্জিক্যাল সরঞ্জাম, নানা অব্যবস্থাপনা ও অনুমোদনহীনভাবে চলার দায়ে সাড়ে সাত লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, আগামী ২৩ আগস্টের মধ্যে অনুমোদনহীন হাসপাতালগুলো লাইসেন্স নিতে ব্যর্থ হলে সেই প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ করে দিতে বাধ্য হব। কারণ স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে প্রতারণা বা ছিনিমিনি করা হোক তা কোনভাবেই বরদাশত করা হবে না। সোমবার অভিযানে সেবা জেনারেল নামে আরেকটি হাসপাতালকে সাড়ে তিন লাখ টাকা জরিমানা করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও র‌্যাবের যৌথ ভ্রাম্যমাণ আদালত। অভিযানে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের যুগ্ম সচিব উম্মে সালমা তানজিয়া, র‌্যাব-১ এর পোড়াবাড়ি ক্যাম্প কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুনসহ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও র‌্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অভিযান শেষে জানানো হয়, সিটি হাসপাতালটির যে ল্যাব রয়েছে তার অনুমোদন নেই। এছাড়া নানা অব্যবস্থাপনাসহ অপারেশন থিয়েটারে ব্যবহৃত মেয়াদোত্তীর্ণ সার্জিক্যাল সামগ্রী জব্দ করা হয়। এছাড়া ল্যাব টেস্টের ক্ষেত্রে মেডিকেল শর্ত মানা হয়নি। এসময় স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের যুগ্ম সচিব উম্মে সালমা তানজিয়া বলেন, কোন প্রতিষ্ঠান বন্ধ করা আমাদের উদ্দেশ্য নয়। সেবামূলক প্রতিষ্ঠানগুলো সুষ্ঠু নিয়মে চলুক সেটিই আমরা চাই। অভিযান শেষে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম বলেন, সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালটিতে যে অনিয়ম পেয়েছি তা অনাকাঙ্খিত। বিশেষ করে অপারেশন থিয়েটারে যে সার্জিক্যাল আইটেম ও ওষুধ পাওয়া গেছে সেগুলো ৫-৬ বছর আগে মেয়াদোত্তীর্ণ। এগুলো ব্যবহার করা হলে নানা রকম সমস্যা হতে পারে। এছাড়া এখানে যে প্যাথলজিক্যাল ল্যাব রয়েছে সেখানে কোন ধরনের অনুমোদন ছাড়া ব্লাড ট্রান্সমিশন করা হচ্ছে।

রক্ত পরিসঞ্চালন করতে গেলে রক্ত পরিসঞ্চালন আইন অনুযায়ী লাইসেন্স নিতে হয়। কিন্তু তাদের কোনো লাইসেন্স নেই, লাইসেন্স ছাড়াই রক্ত পরিসঞ্চালন করেছে তারা বলে জানান এ বিচারক। তিনি বলেন, এখানে যে ব্লাড কালচার করা হচ্ছে তা মানুষের কাছ থেকে নেয়া যদিও এগুলো শিপ থেকে নেয়ার কথা। এতে ভুল রিপোর্ট আসার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া হাসপাতালটির কোন লাইসেন্স নেই। যেহেতু মন্ত্রণালয় ২৩ আগস্ট পর্যন্ত লাইসেন্স নবায়নের সুযোগ দিয়েছে সেকারণে প্রতিষ্ঠানটি এখন সিলগালা করছি না। এই সময়ে লাইসেন্স নিতে ব্যর্থ হলে আমরা অবশ্যই এটি বন্ধ করে দেব। সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হাসপাতালটির চেয়ারম্যান- এ বিষয় নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সারোয়ার আলম আরো বলেন, ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের পরিচয় দিয়ে না, বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী আইন সবার জন্য সমান। সুতরাং আমি যদি কোন অন্যায় বা অপরাধ করি, সরকারের কোন দায়িত্বে আছি বা ম্যাজিস্ট্রেট আছি বলে আলাদা কোন বিধান নেই। এক্ষেত্রে সবাই সমান। এদিকে অপারেশন থিয়েটারে মেয়াদোত্তীর্ণ মালামাল ও অব্যবস্থাপনার অভিযোগে সেবা হাসপাতালকে সাড়ে ৩ লাখ টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

আরএএস/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: