প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

হারুন-অর-রশীদ

ফরিদপুর প্রতিনিধি

সালথায় পুলিশের গাড়ীতে হামলার ঘটনায় মামলা, আটক ৫

   
প্রকাশিত: ৬:৩৪ অপরাহ্ণ, ১০ এপ্রিল ২০২০

ফরিদপুরের সালথা উপজেলার মুরুটিয়া গ্রামে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জামাল পাশাসহ পুলিশের তিনটি গাড়িতে হামলার অভিযোগে সালথা থানায় সরকারি কাজে বাঁধা সৃষ্টির অভিযোগে একটি মামলা হয়েছে, মামলা নং- ৫, তাং- ০৬-০৪-২০২০ইং। এই মামলায় উপজেলার মাঝারদিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মো: আফছার উদ্দিন মাতুব্বরকে ১ নং আসামী এবং সালথা উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো: নাজমুল হোসেনকে ২নং আসামী করে এজাহারভূক্ত ৩৫ জনসহ অজ্ঞাত ২০০/৩০০ লোককে আসামী করা হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটে গত সোমবার বেলা আনুমানিক সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার কাগদী ও মুরুটিয়া গ্রামে। এ ঘটনায় সেদিন ঘটনাস্থান থেকে পুলিশ ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আর গ্রেফতারের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

জানা গেছে, গত রবিবার বিকালে একটি তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সেদিন সন্ধ্যায় কাগদী বাজারের কয়েকটি দোকানপাট ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়। এর জের ধরে পরের দিন সোমবার স্থানীয় দুইপক্ষ (ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মো: আফছার উদ্দিন মাতুব্বর সমর্থক গ্রুপ ও ইউনিয়ন বিএনপি’র সভাপতি মো: হাবিবুর রহমান হবি মোল্যা গ্রুপ) ভোরে সংঘর্ষ ও লুটপাটে জড়িয়ে পড়ে এবং কাগদী বাজারের ব্যাপক হারে দোকানপাট ভাংচুর ও লুটপাট করে। এতে স্থানীয় বাজার ব্যবসায়ীদের প্রায় কোটি টাকার অধিক ক্ষতি হয়।

এ ঘটনার অভিযোগে ঐদিন দুপুরে সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ আফছারউদ্দিন মাতুব্বরকে তার বাড়ি থেকে গ্রেফতারের চেষ্টা করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এ সময় এই গ্রেফতার প্রতিরোধে স্থানীয় জনতা আফছারউদ্দিনকে ছাড়িয়ে নিতে মরিয়া হয়ে উঠে। কিন্তু পুলিশ সংঘর্ষে নেতৃত্ব দেওয়ার অভিযোগে আফছারউদ্দিনকে ছেড়ে দিতে রাজি না থাকায় স্থানীয় জনতা পুলিশের উপর মারমুখী হয়ে উঠে। এ সময় তারা পুলিশের তিনটি গাড়ি আটকিয়ে রাস্তাঘাট বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টার প্রাক্কালে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে আফছার মাতুব্বরকে ছেড়ে দেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এ ঘটনার আলোকে পুলিশ আর কাউকে গ্রেফতার করতে পারেননি। গতকাল বুধবার সরেজমিনে ঘটনার আলোকে বর্ননা দেন, মুরুটিয়া গ্রামের কয়েকটি দোকানদার ও সাধারন মানুষ।

এ ঘটনায় সালথা থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মাদ আলী জিন্নাহ গণমাধ্যমকে জানান, কাগদীর সংঘর্ষ এই মুহুর্তে কেউ মেনে নিবে না। গত কয়েকদিন ধরে মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে আমরা খাদ্য সামগ্রী সরবরাহ করছি, আর সেই এলাকারই কিছু লোক স্থানীয় মাতুব্বরদের ইন্ধনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জামাল পাশা স্যার এর গাড়ি সহ পুলিশের তিনটি গাড়ি হামলা চালায়, এ ঘটনায় ৫ জনকে ঘটনাস্থল থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্য আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: