প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

সুুখে থাকতে ভুতে কিলায়!

   
প্রকাশিত: ১১:৪২ অপরাহ্ণ, ৬ এপ্রিল ২০২০

জাতীয় সেবা ৩৩৩-এ ফোন করে স্বচ্ছল হয়েও অস্বচ্ছল হিসেবে খাবার সহযোগিতা চেয়ে বেকায়দায় পড়লেন বগুড়ার শিবগঞ্জের এক যুবক। খবর পেয়ে সোমবার (৬ এপ্রিল) করোনা ভাইরাসের কাজে নিয়োজিত থাকা শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলমগীর কবীর নিজেই খাবার নিয়ে ছুটে গিয়ে ওই যুবকের স্বচ্ছলতা দেখতে পান। পরে জাতীয় সেবা নিয়ে এমন দায়িত্বহীনতার কারণে মৌখিক সতর্ক করে ও বুঝিয়ে এলাকায় করোনাভাইরাস প্রতিরোধে করণীয় বিষয়ে প্রচারণা শেষে কার্যালয়ে ফেরেন। বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, গত রবিবার রাতে জাতীয় সেবা ৩৩৩ নম্বরে কল করেন বগুড়া শিবগঞ্জ উপজেলার মোকামতলার শংকরপুর গ্রামের ৩৫ বছরের এক যুবক। তিনি ফোনে জানান, ঘরে অবস্থান করছি, খাবার নেই। কেউ সহযোগিতা করেনি। তারপর ঠিকানাও দিয়ে দেন।

৩৩৩ এর নির্দেশনা মোতাবেক জরুরি ভিত্তিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আলমগীর কবীর সোমবার সকাল ১১টায় ত্রাণ নিয়ে ওই যুবকের বাড়িতে হাজির হয়ে দেখতে পান যুবকটির পরিবার স্বচ্ছল। যুবকটির বাবা অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারি এবং তার এক ভাই চাকুরি করেন। সবাই একই পরিবারে থাকেন। খাদ্য সহায়তা চেয়ে ফোন করার কারণে ছেলের এমন কাজে বিব্রত বোধ করেন তার বাবা। পরে বাবা খাবার সামগ্রী ফিরিয়ে দেন এবং ছেলের কৃতকর্মের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন তিনি। এ সময় মোকামতলা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ সনাতন চন্দ্র সরকার, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোকলেসার রহমান উপস্থিত ছিলেন।

বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আলমগীর কবীর জানান, করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় কর্মহীন মানুষ ঘরে অবস্থানের কারণে সরকারের পক্ষ থেকে বাড়িতে গিয়ে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। তাই স্বচ্ছল ব্যক্তিদের এভাবে জাতীয় জরুরি সেবা নম্বরে ফোন না দিতে এবং স্বচ্ছল হয়েও অস্বচ্ছল পরিবারের ত্রাণ গ্রহণ না করতে তিনি সবার প্রতি অনুরোধ জানান। এই ঘটনার জন্য পরিবারের ওই যুবকের পক্ষ থেকে দুঃখ প্রকাশ করা হয়। পরে সেখানে করোনাভাইরাস বিষয়ে সচেতন থাকতে সকলকে অনুরোধ জানানো হয়।

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: