প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

ওবায়দুল হক চৌধুরী

বিশেষ প্রতিনিধি

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র প্রভাব

সেন্টমার্টিনে আটকা পড়েছে ১২০০ পর্যটক

   
প্রকাশিত: ৫:২৪ অপরাহ্ণ, ৮ নভেম্বর ২০১৯

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ঠ প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ কক্সবাজার উপকূলে ধীরে ধীরে ধেয়ে আসছে। এটি কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৭৩৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিল শুক্রবার (৮ নভেম্বর) দুপুরে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সাগর উত্তাল থাকায় টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে জাহাজ চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে সেন্টমার্টিনে অন্তত ১২০০ পর্যটক আটকা পড়েছে। সাগরে মাছ ধরারত ফিশিং ট্রলারগুলো উপকূলে ফিরে আসতে শুরু করেছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে গুমোট আবহাওয়া বিরাজ করছে। ঘূর্ণিঝড় বুলবুল এর সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলায় জরুরি ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপকূলবর্তী জেলা সমূহের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল করা হয়েছে এবং কর্মস্থল ত্যাগ না করার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

ঘুর্ণিঝড় মোকাবেলায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসন নানা প্রস্তুতি নিচ্ছে। ভারী বৃষ্টি, বাতাসের তীব্রতা এবং সমুদ্রে প্রবল জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কায় বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত নৌযানগুলোকে উপকূলের কাছাকাছি থাকতে বলেছে আবহাওয়া অফিস। কক্সবাজার জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড় বুলবুল এর প্রভাবে সাগর উত্তাল হওয়ায় আজ থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে জাহাজ চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে সেন্টমার্টিনে অবস্থান করা পর্যটকদের নিরাপদে ফিরিয়ে আনতে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তাদের সার্বিক খবরা খবর নেয়া হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নানা প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

কক্সবাজার আবহাওয়া অফিস জানায়, সাগর উত্তাল থাকায় সকল মাছ ধরার ও অন্যান্য নৌযানকে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে আসার জন্য বলা হয়েছে। পাকা ধান ও রবি শষ্য ক্ষেতে নষ্ট হওয়ার আশংকায় ক্ষেত থেকে পাকা ও প্রায় পাকা ধান ও অন্যান্য শষ্য শনিবারের মধ্যে কেটে নিরাপদে নিয়ে আসার জন্য কক্সবাজার জেলা আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তারা কৃষকদের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন।

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: