প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

১৩ মামলার আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

   
প্রকাশিত: ৮:৫৭ পূর্বাহ্ণ, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ছবি: ইন্টারনেট

যশোরের মণিরামপুর উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ১৩ মামলার আসামি নুরুল হক ওরফে কেরু নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত ৩টার দিকে উপজেলার বেগারিতলায় এই ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গুলি ও ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করেছে। নিহত নুরুল হক কেরু মণিরামপুর উপজেলার ভোজগাতি গ্রামের মৃত মাজেদ গাজী বক্সের ছেলে।

মণিরামপুর থানার এসআই শাহিনুর ইসলাম জানান, কেশবপুর থানার একটি টিম নুরুল হক কেরুকে নিয়ে তার সহযোগীদের ধরতে অভিযানে আসে। এ সময় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মারা যান কেরু। পরে মরদেহটি উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

কেশবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জসিম উদ্দিন জানান, বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে কেশবপুর উপজেলার চিংড়াখালি এলাকায় ইজিবাইক ছিনতাইকালে নুরুল হককে আটক করে স্থানীয় জনতা। এরপর তাকে পুলিশে সোপর্দ করেন তারা। নুরুল হক একজন চিহ্নিত ‘ডাকাত’। তার বিরুদ্ধে ১০টি ডাকাতি মামলা রয়েছে। এছাড়া অস্ত্র মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি তিনি। জিজ্ঞাসাবাদে কেরু তার সহযোগী ও অস্ত্রের তথ্য দেন। এরপর তাকে নিয়ে মণিরামপুর উপজেলার বেগারিতলায় অভিযানে যায় পুলিশ। কেশবপুর ও মণিরামপুর থানার যৌথ টিম তাকে নিয়ে বেগারিতলার সর্দারবাড়ি নার্সারির সামনে পৌঁছলে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে নুরুল হকের সহযোগীরা। জবাবে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এ সময় গুলিবিদ্ধ হন নুরুল হক কেরু। একপর্যায়ে সন্ত্রাসীরা পিছু হটলে নুরুল হককে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে তার মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়।

ওসি আরও জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শুটার গান, এক রাউন্ড গুলি ও চারটি ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: